শিরোনাম ::
উখিয়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রার্থীতা ঘোষণা করেছেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু পেকুয়ায় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করে কিশোরীর ভিডিও ধারণ, যুবক আটক পেকুয়ায় হাসপাতালে নবজাতক সন্তান রেখে পালিয়ে গেলেন মা বাংলাদেশে ঢুকল মিয়ানমারের আরও ৪৬ বিজিপি সদস্য মহেশখালীতে র‍্যাব ও পুলিশের অভিযান, ৭ টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ৪ পেকুয়ার মানুষের সেবা করতেই ছুটে এসেছি- ড. সজীব বাইক দুর্ঘটনায় রামুর পোল্ট্রি ব্যবসায়ী নিহত কক্সবাজারে হোটেলের সুইমিংপুলের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু চকরিয়ায় বাড়ি থেকে ঢেকে নিয়ে মেম্বার প্রার্থীকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা পেকুয়ায় রেঞ্জ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পাহাড়ের জব্দকৃত বালু বিক্রির অভিযোগ
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৫৭ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

৬ দিন পর চট্টগ্রামের সেই চিনি মিলের আগুন নির্বাপণ

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: রবিবার, ১০ মার্চ, ২০২৪


চট্টগ্রাম, ১০ মার্চ – টানা ছয় দিনের প্রচেষ্টায় অবশেষে চট্টগ্রামের চিনি কারখানার আগুন নেভাতে সক্ষম হয়েছে ফায়ার সার্ভিস। শনিবার (৯ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আগুন সম্পূর্ণ নির্বাপণ করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের (চট্টগ্রাম) উপ-সহকারী পরিচালক মো. আব্দুর রাজ্জাক।

এর আগে গত ৪ মার্চ বিকেল ৪টার দিকে কর্ণফুলীর ইছাপুর এলাকায় অবস্থিত চিনি কারখানাটিতে আগুন লাগে। কারখানায় ৬টি গোডাউন ছিল। এর মধ্যে একটি গোডাউনে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে।

অগ্নিকাণ্ডের প্রথমদিন রাতে সাড়ে ১০টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয় ফায়ার সার্ভিস। ওই সময় ফায়ার সার্ভিসের ১৪ ইউনিট কাজ করে। তাতে মূল কারখানা ও অন্য গুদামগুলোতে আগুন ছড়ানো ঠেকানো যায়। আগুন নিয়ন্ত্রণ করা গেলেও গোডাউনের ভেতরে আগুন নেভানো যায়নি। পরে নৌবাহিনী, সেনাবাহিনী ও কোস্ট গার্ডের শতাধিক সদস্য ফায়ার সার্ভিসকে আগুন নির্বাপণ কাজে সহযোগিতা করে।

শনিবার (৯ মার্চ) সন্ধ্যায় সম্পূর্ণভাবে আগুন নেভাতে সক্ষম হয় ফায়ার সার্ভিস। এই সময় ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট কাজ করে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের (চট্টগ্রাম) উপ-পরিচালক দিনমনি শর্মা বলেন, অপরিশোধিত চিনিগুলো দাহ্য পদার্থ হওয়ায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে এতটা বেগ পেতে হয়েছে। অন্য গোডাউনে যাতে আগুন ছড়িয়ে না পড়ে সেটি নিয়ে আমরা সতর্ক অবস্থানে ছিলাম। রোবট ফায়ার ফাইটার, ফোম, কেমিক্যাল ব্যবহারসহ বিভিন্ন চেষ্টায় আগুন নির্বাপণ করতে সক্ষম হয়েছি।

কারখানার কর্মকর্তারা বলছেন, রমজান সামনে রেখে মিলের চারটি গুদামে মোট চার লাখ টন অপরিশোধিত চিনি মজুত করা হয়েছিল। পরিশোধনের পর ওই চিনি বাজারে যাওয়ার কথা। এর মধ্যে ১ নম্বর গোডাউনের এক লাখ টন চিনি পুড়ে গেছে। অপরিশোধিত এই চিনি আগুনে গলে লালচে কালো কাদার মতো তরল কর্ণফুলীতে গিয়ে দূষণ ঘটাতে শুরু করেছে।

পোড়া চিনি ও কেমিক্যালের বর্জ্য মিশে পানিতে দ্রবীভূত অক্সিজেন কমে যাওয়ায় ৫ মার্চ থেকেই নদীর দুই তীরে ভেসে উঠতে শুরু করেছে মাছ ও জলজ প্রাণী। ওই বর্জ্য যেন আর নদীতে না ছড়ায়, তা নিশ্চিত করার তাগিদ দিয়েছিলেন বিশেষজ্ঞরা।

পরিবেশবিদ ড. ইদ্রিস আলী বলেন, শিল্প কারখানা গড়ে তোলার আগে কিছু বিষয় মাথায় রাখা উচিত ছিল। তারা ডাম্পিংয়ের জন্য পর্যাপ্ত জায়গা রাখেনি। এ কারণে কারখানা থেকে পোড়া বর্জ্য পড়ছে কর্ণফুলী নদীতে। পুড়ে যাওয়া সম্পদের ক্ষতি একসময় পুষিয়ে যাবে। কিন্তু পরিবেশের যে ক্ষতি হচ্ছে তা আর পূরণ হবে না। এ জন্য আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে সজাগ হতে হবে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
আইএ/ ১০ মার্চ ২০২৪


আরো খবর: