রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১৫ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

সব ফিলিস্তিনি গোষ্ঠীকে মস্কোয় আমন্ত্রণ জানালেন পুতিন

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: শনিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
সব ফিলিস্তিনি গোষ্ঠীকে মস্কোয় আমন্ত্রণ জানালেন পুতিন


মস্কো, ১৭ ফেব্রুয়ারি – এবার সরাসরি ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত গোষ্ঠী হামাসসহ ফিলিস্তিনের অন্যান্য সশস্ত্র ও রাজনৈতিক দলকে নিজ দেশে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। গাজায় ইসরায়েলের হামলা ও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আলোচনা করতেই এসব সংগঠন ও দলকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে মস্কো।

রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মধ্যপ্রাচ্যে পুতিনের বিশেষ দূত মিখাইল বোগদানভ জানিয়েছেন, হামাসসহ প্রায় এক ডজন ফিলিস্তিনি রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ২৯ ফেব্রুয়ারি থেকে এসব দলের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন পুতিন।

বোগদানোভ বলেছেন, আমরা ফিলিস্তিনের প্রতিনিধিত্বকারী সব সংগঠনকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। ফিলিস্তিন, সিরিয়া, লেবানন ও মধ্যপ্রাচ্যের অন্য দেশগুলোতে যেসব ফিলিস্তিনি রাজনৈতিক শক্তি রয়েছে, তাদের সবাইকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি।

তাসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, আমন্ত্রিতদের মধ্যে রয়েছেন হামাস, প্যালেস্টাইন ইসলামিক জিহাদ, ফাতাহ ও বৃহত্তর প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশনের (পিএলও) প্রতিনিধিরা।

গাজায় চলমান সংঘাত ঘিরে ইসরায়েল ও তার পশ্চিমা সমর্থকদের বিরুদ্ধে রাশিয়ার সমালোচনা ক্রমে বাড়ছে। পুতিন গাজায় যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছেন ও গাজায় ইসরায়েলের কর্মকাণ্ডের ঢালাও সমালোচনা করেছেন। গাজাকে সমর্থন করে বক্তব্য দেওয়া, ইরানের সঙ্গে রাশিয়ার মিত্রতার কারণে গাজা সংঘাত শুরু হওয়ার পর থেকেই মস্কোর সঙ্গে ইসরায়েলের সম্পর্কে তিক্ততা সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে, বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষার বিষয়ে কোনো পরিকল্পনা ছাড়াই দক্ষিণ গাজার রাফাহ শহরে অভিযান শুরু করেছে ইসরায়েল। বিষয়টি নিয়ে হস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) ফোনালাপে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুকে সাবধান করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

অন্যদিকে, মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্সে ইসরায়েলি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। সামাজিক মাধ্যমে এক পোস্টে কমলা হ্যারিস জানান, ইসরায়েলি প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হারজগের সঙ্গে আলাপকালে তিনি হামাসের হাতে আটক জিম্মিদের দেশে ফিরিয়ে আনা ও ইসরায়েলকে নিরাপদ করার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

সূত্র: জাগো নিউজ
আইএ/ ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪





আরো খবর: