শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:৪৩ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

লামায় বন্য হাতির আক্রমণে নিহত ২, আহত ১

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: শুক্রবার, ৪ নভেম্বর, ২০২২

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম; লামা-আলীকদম :

বান্দরবানের লামায় বন্য হাতির আক্রমণে দুই বৃদ্ধা নিহত ও ১ জন আহত হয়েছে। শুক্রবার (৪ নভেম্বর) সকাল ৮টায় আজিজনগর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড সোহরাব পাড়া, মগ বাজার ও জামাল পাড়া গ্রামে বন্য হাতি তান্ডব চালায়। এসময় বন্য হাতি দোকানপাট, বাগান ও কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর করে।

হাতির আক্রমণ নিহতরা হলেন, ইউনিয়নের সোহরাব পাড়ার মৃত ফজর আলীর স্ত্রী খতিজা বিবি (৬৫) এবং মগ বাজার এলাকার মৃত মাইন উদ্দিন গাজীর ছেলে দোকানদার আমির আলী (৫০)। আহত হলেন, জামাল পাড়ার মৃত মোঃ আজিজুল এর ছেলে মোজাম্মেল হক বয়াতি (৬৫)।

ঘটনাস্থলে খতিজা বিবির মৃত্যু হয় এবং পরে চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে দুপুর ১টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় আমির আলী নামে আরো একজনের মৃত্যু হয়। অপর আহত মোজাম্মেল হক বয়াতিকে চকরিয়া সরকারি হাসপাতাল থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। তার অবস্থাও আশংকাজনক বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী মোঃ জাকারিয়া, আফজাল হোসেন জয় ও মোঃ বাবলু জানিয়েছেন, সকালে গৃহস্থালি কাজে খতিজা বিবি বাড়ির পাশের ঝিরিতে গেলে সেখানে বন্য হাতির সামনে পড়ে। মুহুর্তে হাতি তাকে আঁচড়ে মেরে ফেলে। পরে মগ বাজার আমির আলীর দোকান ও জামাল পাড়ার মোজাম্মেল হক বয়াতির বাড়িতে ভাংচুর করে তাদের আহত করে। দলছুট দাঁতাল বন্য হাতিটি এদিক সেদিক ঘোরাঘুরি করছে। আতঙ্কে আছে সাধারণ মানুষ।

বন্য হাতির আক্রমণে ২ জন নিহত ও ১ জন আহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে আজিজনগর পুলিশ ক্যাম্পের আইসি এনামুল হক বলেন, নিহতের লাশ তার বাড়িতে আছে ও আমির আলীর লাশ আনা হচ্ছে। আহত মোজাম্মেল হক বয়াতি চিকিৎসাধীন।

জনপ্রতিনিধিদের সুপারিশ ও কারো অভিযোগ না থাকায় নিহতদের লাশ দাফনের জন্য বলা হয়েছে।

স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ সেলিম বলেন, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে সহায়তা করা হবে। লাশ দাফনের ব্যবস্থা করেছি।

লামা বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আরিফুল হক বেলাল বলেন, বিষয়টি দুঃখজনক। ঘটনাস্থলে হাতি রেসপন্স টিমকে পাঠানো হচ্ছে। কেউ যেন হাতিকে উক্ত্যক্ত না করে। আমরা হাতিটিকে নিরাপদ স্থানে নেয়ার চেষ্টা করছি। নিহতের পরিবারের জন্য ৩ লাখ, আহতদের ১ লাখ ও ক্ষয়ক্ষতির জন্য ৫০ হাজার টাকা অনুদান বন বিভাগের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে দিবে সরকার।


আরো খবর: