শিরোনাম :
পেকুয়ায় গরুর খামার ও মুরগীর ফার্মে বিদ্যুৎ ষ্পৃষ্ঠে দুই যুবকের মৃত্যু মহেশখালীতে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ, শিক্ষকসহ আটক-২ রামুতে পর্নোগ্রাফি ও ধর্ষণ মামলার আসামী পুলিশের হাতে আটক সিনহা হত্যায় জড়িত নয় ওসি প্রদীপ, দাবি আইনজীবীর চকরিয়ায় মহাসড়কে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু নাফ নদের চর হতে আরও এক শিশুর লাশ উদ্ধার উখিয়ায় ইয়াবাসহ রোহিঙ্গা নারী আটক উখিয়ায় ইয়াবা ও নগদ টাকাসহ চার মাদক কারবারি আটক: সিএনজি ও মোটরসাইকেল জব্দ চকরিয়ায় সব পর্যটন স্পট কমিনিউটি সেন্টার ও বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ থাকবে দুইদফায় স্থগিত হলো চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচন হতাশায় ভোটার, খরচের খাতা দীর্ঘ হচ্ছে প্রার্থীদের!
সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ১২:৩২ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
কক্সবাজার পোস্টে আপনাকে স্বাগতম, আমাদের সাথে থাকুন,কক্সবাজারকে জানুন......

রামু ইউএনও অফিস সহকারী ধনঞ্জয়ের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: জুলাই ৩, ২০১৯ ১২:২৪ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: জুলাই ৩, ২০১৯ ১২:২৪ পূর্বাহ্ণ

বার্তা পরিবেশক:
টাকা ছাড়া ফাইল খুঁজে পায় না রামু ইউএনও অফিসের অফিস সহকারী ধনঞ্জয় ধর। এছাড়া সেবা নিতে আসা লোকজনকে খারাপ ব্যবহারের অভিযোগ তুলেছে ভোক্তভোগীরা। দীর্ঘ প্রায় ২০ বছর যাবৎ রামুর ভূমি অফিস ও ইউএনও অফিসে কর্মরত থাকায় সে কাউকে পরোয়া করে না। যখন যে ইউএনও আসেন তাঁকে বশবর্তী করে কমিশন, ঘুষ বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে তিনি। তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে তাকে অন্যত্র বদলীর আবেদন জানিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবরে নানা অভিযোগ জমা দিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।
জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত আবেদনে ইদ্রিস মহল্লাদার,আবুল কাশেম ও মনোয়ার আলম নামে কয়েকজন চৌকিদার উল্লেখ করেন, চাকরীর সুবাদে রামু ইউএনও অফিসের অফিস সহকারী ধনঞ্জয় ধরের কাছে বেতনের জন্য যেতে হয়। তার কাছে গেলে মা-বাবার নাম ধরে গালি গালাজ করে। এমনকি তাদের দিয়ে ব্যাংক এবং ডিসি অফিস থেকে সম্পূর্ণ চেক নিয়ে এসে বেতন থেকে টাকা কর্তন করে রেখে দেয়। এ ব্যাপারে রামুতে কর্মরত চৌকিদারদের পক্ষে জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা। ধনঞ্জয় ধরকে অন্যত্র বদলীর আবেদন জানিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর করা আরেক আবেদন পত্রে বংকিম বড়ুয়া নামের এক ঠিকাদার উল্লেখ করেন, তিনি রামু ইউএনও অফিস ও ভুমি অফিসে প্রায় ১৮/২০ বছর যাবৎ চাকুরী করে আসছে। টাকা ছাড়া ঠিকাদারের ফাইল বের করে দেয় না, অফিসে আসলে অযথা বসিয়ে রাখে। ইউনও’র নাম ভাঙ্গিয়ে অনেক টাকা কামাই করে থাকে তিনি। কেউ তাকে বদলী করতে পারবেনা বা তার বিরুদ্ধে কেউ কিছু করতে পারবেনা বলে বেড়ায় তিনি।

টাকা ছাড়া কোন কাজ করে না বলে উল্লেখ করে তাকে অন্যত্র বদলীর আবেদন করেন তিনি।

খুনিয়াপালং এলাকার মৃত রফিক আহাম্মদের পুত্র মো. ইসলাম, জ্ঞান্ত বড়–য়ার পুত্র রিপন বড়–য়া ও তেজেন্দ্র বড়–য়ার পুত্র শৈল বড়–য়ার যৌত স্বাক্ষরে আবেদনে উল্লেখ করা হয়-নতুন কোন ইউএনও আসলে তাকে বশ করে নানা অপকর্ম করে থাকে ধনঞ্জয় ধর। এখান থেকে উপরি টাকা কামিয়ে ভারতে বাড়ি করেছে তিনি। এমনকি প্রতিবছর চিকিৎসার নামে একবার ভারত ঘুরে আসে। কক্সবাজার শহরে তার একটা স্বর্ণের দোকান আছে, যা তার ভাই দিয়ে পরিচালনা করে থাকে। তারা রামুবাসীর পক্ষে ইউএনও অফিসের অফিস সহকারী ধনঞ্জয় ধরকে অন্যত্র বদলীর আবেদন জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক বরাবর।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::