শিরোনাম ::
মিয়ানমারের নৌবাহিনীর গুলিতে ২ বাংলাদেশি গুলিবিদ্ধ পেকুয়ায় আরো দুটি অবৈধ করাতকল সিলগালা চকরিয়া বদরখালীতে গুলি করে হাত-পা কেটে যুবককে খুনের মামলার আসামি শাকিল গ্রেপ্তার রামুতে বৌদ্ধদের স্বর্গপূরী উৎসবে নারী-পুরুষের ঢল পালিয়ে বাংলাদেশে বিজিপির আরও ১১ সদস্য টেকনাফ র‍্যাবের পৃথক অভিযানে সাজাপ্রাপ্ত ওয়ারেন্টভুক্ত ৪ আসামী গ্রেফতার র‍্যাবের অভিযানে স্বামী হত্যায় পরকীয়া প্রেমিকসহ স্ত্রী গ্রেফতার পেকুয়ায় রেঞ্জ কর্মকর্তাকে টাকা দিলেই মেলে পাহাড় কাটার অনুমতি নির্বাচনী কর্মকর্তাদের কক্সবাজার ভ্রমণের লোভ দেখালেন চেয়ারম্যান প্রার্থী শখের বাইক নিয়ে আসা হলো না কক্সবাজার, পিকআপের ধাক্কায় প্রাণ গেল যুবকের
রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:১৬ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

যুক্তরাষ্ট্রে বৃদ্ধি পাচ্ছে নরোভাইরাসের প্রকোপ

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
যুক্তরাষ্ট্রে বৃদ্ধি পাচ্ছে নরোভাইরাসের প্রকোপ


ওয়াশিংটন, ২৫ ফেব্রুয়ারি – যুক্তরাষ্ট্রে একটি নতুন ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে, যার নাম ‘নরোভাইরাস’। এটি এক ধরনের পাকস্থলীর ভাইরাস বা পেটের ফ্লু। সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) প্রকাশিত সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ভাইরাসটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দেশটির জনস্বাস্থ্য সংস্থার বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে উইওন নিউজ।

দেশটির জনস্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, গেল সপ্তাহে ওই অঞ্চলে ‘নরোভাইরাসে’ আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ দশমিক ৯ শতাংশে পৌঁছিয়েছে। সিডিসির তথ্যানুসারে, যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি বছর ১৯ থেকে ২১ মিলিয়ন রোগের জন্য ‘নরোভাইরাস’ দায়ী।

সাধারণত নভেম্বর থেকে এপ্রিল মাস পর্যন্ত মানুষ এতে বেশি আক্রান্ত হন। আর প্রতিবছর এ ভাইরাসে হাসপাতালে ভর্তি হন ১ লাখ ৯ হাজার মানুষ আর মৃত্যু হয় ৯০০ জনের। আট থেকে ৮০ সব বয়সের মানুষই এ ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মতে, ‘নরোভাইরাস’ বিশ্বব্যাপী তীব্র গ্যাস্ট্রোএন্টেরাইটিসের অন্যতম প্রধান কারণ। এ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে, হঠাৎ ডায়রিয়া এবং বমির মতো লক্ষণ দেখা দেয়। অত্যন্ত সংক্রামক এই ভাইরাস বিষাক্ত খাবার,পানি এবং বদ্ধ জায়গা থেকে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

প্রাথমিক লক্ষণগুলো হলো: মাথাব্যথা এবং শরীরের ব্যথার পাশাপাশি বমি অথবা ডায়রিয়া। যদিও ভাইরাসটি সুস্থ মানুষের উপর কম প্রভাব ফেলে। তবে এটি অল্পবয়সী শিশু, বয়স্ক এবং রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের পেটের গুরুতর অসুস্থতার কারণ হতে পারে।

প্রতিরোধে করণীয়- নরোভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ ও ঝুঁকি কমানোর জন্য বেশ কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা জরুরি।

হাত ধোয়া: ঘন ঘন সাবান ও পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নিন, বিশেষ করে টয়লেট ব্যবহার করার পরে, ডায়াপার পরিবর্তন করার পরে এবং খাবার তৈরি বা খাওয়ার আগে। সাবান ও পানি সহজে না পাওয়া গেলে কমপক্ষে ৬০ শতাংশ অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজারও ব্যবহার করা যেতে পারে।

নিরাপদ খাদ্য: ফল এবং শাকসবজি খাওয়ার আগে ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন। যদি আপনি নরোভাইরাসের লক্ষণগুলো অনুভব করেন, তবে অন্যদের জন্য খাবার তৈরি করা এড়িয়ে চলুন।

অসুস্থ হলে বাড়িতে থাকুন: আপনার যদি নরোভাইরাসের উপসর্গ থাকে, যেমন বমি বা ডায়রিয়া হয়; তাহলে অন্যদের মধ্যে ভাইরাস ছড়ানো প্রতিরোধে দৈনন্দিন কাজ ও বাহিরে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

আপনার বা অন্য কারো যদি বমি ও ডায়রিয়া হয়, ডিসপোজেবল গ্লাভস এবং জীবাণুনাশক ব্যবহার করে অবিলম্বে জায়গাটি পরিষ্কার করুন। আপনার হাত ভালো করে ধুয়ে নিন।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
আইএ/ ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪





আরো খবর: