বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০২:৫৩ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

যুক্তরাজ্যের বাড়ি খালি করতে হবে প্রিন্স হ্যারি, মেগানকে

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: শুক্রবার, ৩ মার্চ, ২০২৩
যুক্তরাজ্যের বাড়ি খালি করতে হবে প্রিন্স হ্যারি, মেগানকে


লন্ডন, ০৩ মার্চ – প্রিন্স হ্যারি এবং তার স্ত্রী মেগানকে যুক্তরাজ্যের বাড়ি খালি করতে বলা হয়েছে। রাজা চার্লসের রাজ্যাভিষেকের প্রস্তুতির মধ্যেই রাজপরিবারের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক আরো বেশি করে বিচ্ছিন্ন করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

রাজকীয় দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়ার এবং দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ায় চলে যাওয়ার আগে দম্পতির মূল বাসস্থান হিসেবে ধরে নেওয়া হয়েছিল ফ্রগমোর কটেজকে। লন্ডনের পশ্চিমে উইন্ডসর ক্যাসেলের পাশে এই ফ্রগমোর কটেজই খালি করতে বলা হয়েছে হ্যারি-মেগান দম্পতিকে।

দ্য সান পত্রিকা জানিয়েছে, ১১ জানুয়ারি হ্যারির বিস্ফোরক স্মৃতিকথা ‘স্পেয়ার’ প্রকাশের পরদিন উচ্ছেদ প্রক্রিয়া শুরু করেন চার্লস।

দম্পতির একজন মুখপাত্র বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আমরা নিশ্চিত করছি, সাসেক্সের ডিউক এবং ডাচেসকে ফ্রগমোর কটেজে তাদের বাড়িটি খালি করে দেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে।’

‘স্পেয়ার’-এ হ্যারির উল্লেখ করা ঘটনাগুলোর ফলে পরিবারের সঙ্গে হ্যারির দূরত্ব আরো বেড়েছে। পরিবারের সঙ্গে সম্পর্কে ফাটল তৈরি হয়েছে। বইটিতে তার বাবা এবং তার ভাই প্রিন্স উইলিয়ামের সঙ্গে তার ব্যক্তিগত কথোপকথনের বিবরণ রয়েছে। যুক্তরাজ্য ছেড়ে যাওয়ার পর, হ্যারি এবং মেগান জানিয়েছিলেন, তারা এখানে ফিরলে ফ্রগমোর কটেজে থাকবেন।

বাকিংহাম প্রাসাদ সূত্র বলেছে, তারা এই প্রতিবেদন নিয়ে কোনো মন্তব্য করবে না।

রাজপরিবার সূত্র জানিয়েছে, এই ধরনের আলোচনা একটি ব্যক্তিগত এবং পারিবারিক বিষয়।

হ্যারি এবং মেগান ২০১৮ সালে বিয়ের পর ফ্রগমোর কটেজে থাকতেন। ২০২০ সালে তাদের রাজপরিবার সংক্রান্ত দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়ার পর তারা ক্যালিফোর্নিয়ায় চলে গেলেও ফ্রগমোর কটেজ তাদেরই ছিল। করদাতাদের অর্থ (২৪ লাখ পাউন্ড) ফেরত দিতেও সম্মত হন তারা। সেই অর্থ বাড়িটি সংস্কারে ব্যয় করা হয়েছিল।

সূত্র: কালের কণ্ঠ
এম ইউ/০৩ মার্চ ২০২৩





আরো খবর: