বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

মোদির শপথ অনুষ্ঠানকে ঘিরে থাকছে যেসব প্রস্তুতি

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: রবিবার, ৯ জুন, ২০২৪
মোদির শপথ অনুষ্ঠানকে ঘিরে থাকছে যেসব প্রস্তুতি


নয়াদিল্লি, ০৯ জুন – ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তৃতীয়বারের মতো শপথ নিতে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি। রাষ্ট্রপতি ভবনে আজ রোববার সন্ধ্যায় হতে চলেছে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানের নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে রয়েছে তিন স্তরের নিরাপত্তা, ড্রোন এবং উড়ন্ত প্ল্যাটফর্মের ওপর নিষেধাজ্ঞা। সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

সেই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গত শনিবার দিল্লি এসে পৌঁছেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি ছাড়া প্রতিবেশী দেশ ও ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আরো ছয় দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানেরা এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়েছেন। সেশেলসের উপরাষ্ট্রপতি আহমেদ আফিফও শনিবার দিল্লি এসেছেন।

আজ দুপুরের মধ্যে একে একে উপস্থিত হবেন মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবীন্দ কুমার জগন্নাথ, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মোহামেদ মুইজ্জু, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং টোগবে, শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহে এবং নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দহল। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের পর রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর আমন্ত্রণে বিদেশি অতিথিরা নৈশভোজের আসরে যোগ দেবেন।

মালদ্বীপের নির্বাচনের পর সে দেশের প্রেসিডেন্ট মোহামেদ মুইজ্জুর এটাই হবে প্রথম ভারত সফর। দুই দেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে এই সফর গুরুত্বপূর্ণ। রাষ্ট্রপতি ভবন সূত্রে জানা গেছে, শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে দেশ–বিদেশের প্রায় ৮ হাজার বিশিষ্টজনকে।

জানা গেছে, নরেন্দ্র মোদির শপথ অনুষ্ঠানকে ঘিরে থাকছে দেশটিতে নেয়া হয়েছে বিশেষ কিছু প্রস্তুতি।

রাষ্ট্রপতি ভবনে তিন স্তরের নিরাপত্তা

নিরাপত্তা ব্যবস্থার অংশ হিসাবে, নিরাপত্তা কর্মকর্তারা রাষ্ট্রপতি ভবনের ভিতরে এবং বাইরে তিন স্তরের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন। ভিআইপি মুভমেন্টের বাইরে সারা দিল্লি শহরে পুলিশের কর্মী মোতায়েন করা হবে। পিটিআই জানিয়েছে, অর্থসামরিক বাহিনী এবং দিল্লি আর্মড পুলিশের (ডিএপি) পাঁচটি দলে প্রায় ২ হাজার ৫০০ পুলিশ কর্মীকে অনুষ্ঠানস্থলের চারপাশে মোতায়েন করা হবে।

স্নাইপার ও ড্রোন মোতায়ন

তিন স্তরের নিরাপত্তার পাশাপাশি ভিআইপি রুটে স্নাইপার ও সশস্ত্র পুলিশ মোতায়েন থাকবে। উন্নত নজরদারির জন্য বিভিন্ন স্থানে ড্রোন মোতায়েন করা হবে।

দিল্লি এনসিটিতে নো ফ্লাই জোন

শপথ অনুষ্ঠানের কারণে,প্যারাগ্লাইডার, হ্যাং গ্লাইডার, ইউএভি, ইউএএস, মাইক্রোলাইট এয়ারক্রাফ্টসহ আকাশে উড়ে এমন সকল ফ্লাইয়ার সীমাবদ্ধ করা হয়েছে। এই সীমাবদ্ধতার আদেশ ৯ জুন থেকে কার্যকর হয়ে আগামী ১১ জুন পর্যন্ত বহাল থাকবে।

দিল্লি পুলিশ সামাজিক মাধ্যম এক্স-এ এক বার্তায় বলেছে, ৯ জুন থেকে সকল প্রকার প্যারা-গ্লাইডার, প্যারা-মোটর, হ্যাং-গ্লাইডার, ইউএভিএস, ইউএএসএস, মাইক্রোলাইট বিমানের মতো প্রচলিত সকল প্ল্যাটফর্মের উপর নিষেধাজ্ঞা থাকবে। বিমান, হট এয়ার বেলুন, ছোট বিমান, কোয়াডকপ্টার বা বিমান থেকে প্যারা-জাম্পিং ইত্যাদি দিল্লির এনসিটির চিহ্নিত এলাকায় বন্ধ থাকবে।

নরেন্দ্র মোদির শপথ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণে বেশ কয়েকজন প্রতিবেশি দেশের নেতারা আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন। অনেকে শনিবার ভারতে পৌঁছেছেন আবার অনেকেই আগামীকাল রোববার ভারতে পৌঁছাবেন।

শপথ অনুষ্ঠানে নিজেদের উপস্থিতি নিশ্চিত করেছেন, শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি রনিল বিক্রমাসিংহে, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ডাঃ মোহাম্মদ মুইজ্জু, সেশেলসের ভাইস-প্রেসিডেন্ট আহমেদ আফিফ, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবিন্দ কুমার জগনাথ, নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দাহাল প্রচন্ড, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে।

শনিবার ৮ জুন ভারতের স্থানীয় সময় দুপুর ১২ টায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা ভারতে পৌঁছান এবং দুপুর ২টা ৪৫ মিনিটে সেশেলসের ভাইস প্রেসিডেন্টের আহমেদ আফিফ ভারতে পৌঁছান।

রোববার ৯ জুন ভারতের স্থানীয় সময় সকাল ৯টা ৫ মিনিটে মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী ও মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ভারতে পৌঁছাবেন। সকাল সাড়ে ১১টায় ভুটানের প্রধানমন্ত্রী, ১১টা ৫৫ মিনিটে শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি এবং দুপুর ১১টা ৫০ মিনিটে নেপালের প্রধানমন্ত্রী ভারতে পৌঁছাবেন।

আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা

নরেন্দ্র মোদির শপথ অনুষ্ঠানে যোগদানের জন্য যে হোটেলগুলোতে আমন্ত্রিত অতিথিরা থাকবেন সেসব হোটেলে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

এবার ভারতের লোকসভা নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় জোট নিয়ে ক্ষমতায় বসছে নরেন্দ্র মোদির দল বিজেপি। আর বিরোধী দল হিসেবে থাকছে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন জোট ‘ইন্ডিয়া’।

সূত্র: ডেইলি-বাংলাদেশ
আইএ/ ০৯ জুন ২০২৪





আরো খবর: