শিরোনাম ::
চকরিয়া বদরখালীতে গুলি করে হাত-পা কেটে যুবককে খুনের মামলার আসামি শাকিল গ্রেপ্তার রামুতে বৌদ্ধদের স্বর্গপূরী উৎসবে নারী-পুরুষের ঢল পালিয়ে বাংলাদেশে বিজিপির আরও ১১ সদস্য টেকনাফ র‍্যাবের পৃথক অভিযানে সাজাপ্রাপ্ত ওয়ারেন্টভুক্ত ৪ আসামী গ্রেফতার র‍্যাবের অভিযানে স্বামী হত্যায় পরকীয়া প্রেমিকসহ স্ত্রী গ্রেফতার পেকুয়ায় রেঞ্জ কর্মকর্তাকে টাকা দিলেই মেলে পাহাড় কাটার অনুমতি নির্বাচনী কর্মকর্তাদের কক্সবাজার ভ্রমণের লোভ দেখালেন চেয়ারম্যান প্রার্থী শখের বাইক নিয়ে আসা হলো না কক্সবাজার, পিকআপের ধাক্কায় প্রাণ গেল যুবকের সীতাকুণ্ডের পাঁচ গরু চকরিয়ায় উদ্ধার, অস্ত্রসহ তিন চোর গ্রেপ্তার ঈদগাঁওতে ইজিবাইকের ধাক্কায় শিশুর মৃত্যু
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

মহান স্বাধীনতা দিবস: ৭১-এর গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ও বিচার দাবি

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: রবিবার, ২৬ মার্চ, ২০২৩
মহান স্বাধীনতা দিবস: ৭১-এর গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ও বিচার দাবি


ঢাকা, ২৬ মার্চ – আজ বাংলাদেশের ৫৩তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। ২৬ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন। এরআগে ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে অপারেশন সার্চলাইট নামে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী বাংলাদেশীদের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে নির্বিচারে গণহত্যা চালায়। ২৫ মার্চ ও মুক্তিযুদ্ধে সংঘটিত জঘন্যতম গণহত্যার এখনও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পায়নি বাংলাদেশ। এবার গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ও বিচার চায় বাংলাদেশ।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ এ দেশে পাকিস্তানি বাহিনীর সংঘটিত গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পায়নি বাংলাদেশ। এখন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময়ের ৯ মাসের গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য উদ্যোগ নিতে হবে সরকারকে। সে জন্য ২৫ মার্চকে জাতীয় গণহত্যা দিবস পালন এবং এর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার যে প্রস্তাব ২০১৭ সালে সংসদে পাস হয়েছিল, তাতে সংশোধন আনতে হবে। পাশাপাশি বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর সহায়তা পেতে কূটনৈতিক পদক্ষেপ শুরু করতে হবে।

গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি চায় বাংলাদেশ: ২৫ মার্চ পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী বাঙালীদের উপর চালানো গণহত্যার পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাসে যে গণহত্যা হয়েছে, তা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে ব্যাপক ও পরিকল্পিত হত্যা। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ ঢাকা ও ঢাকার বাইরে হত্যাকাণ্ডের খবর ২৭ মার্চ অস্ট্রেলিয়ার মর্নিং হেরাল্ড পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল। খবরে বলা হয়েছিল, এক লাখ পর্যন্ত মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ড বিজয়ের দিন ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। ২৫ মার্চকে জাতীয় দিবস হিসেবে পালনের কোনো স্বীকৃতি না থাকায় ২০১৫ সালে জাতিসংঘ ৯ ডিসেম্বরকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস হিসেবে পালনের প্রস্তাব পাস করে। এই সুযোগ হাতছাড়া হওয়ায় এখন সরকারকে ৯ মাসের গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য পদক্ষেপ নিতে হবে। এর জন্য ২৫ মার্চকে জাতীয় গণহত্যা দিবস পালন ও এর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার যে প্রস্তাব সংসদে পাস হয়েছিল তাতে সংশোধন আনতে হবে। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর যেসব দেশে গণহত্যা হয়েছে, তার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দিতে হবে। অপরাধীদের শাস্তি দিতে হবে এবং ভুক্তভোগীদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

গণহত্যা জাদুঘর দেশব্যাপী যে গণহত্যা-নির্যাতন, বধ্যভূমি ও নির্যাতনকেন্দ্রের জরিপ কার্যক্রম চালাচ্ছে, তাতে বিস্ময়কর চিত্র উঠে আসছে। রেফারেন্স বইয়ে গণহত্যা, বধ্যভূমি, গণকবর ও নির্যাতন কেন্দ্রের সর্বোচ্চ সংখ্যা ছিল ৯০৫, আর চলমান জরিপে ৩৪টি জেলায় সেই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ২৮৬। ৬৪ জেলার সে সংখ্যা কত দাঁড়াতে পারে, তা সহজেই অনুমান করা যায়। একেকটি গণহত্যার ঘটনায় ৫ জন থেকে ১০ হাজার পর্যন্ত মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। গণহত্যা নিয়ে অনেক রাজনীতি হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধচর্চার ইতিহাস ও গণহত্যার মধ্যে ভারসাম্যহীনতা হয়েছে। কারণ, গণহত্যার কথা বলা হলেই কারা হত্যাকারী, সে তথ্য বেরিয়ে আসবে, এ কারণে অনেক তথ্য চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে আগে।

সম্প্রতি একটি প্রবন্ধে ধর্ষণের শিকার নারীর প্রকৃত সংখ্যা ৪ লাখের বেশি হতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। সরকারি হিসাবে আছে ধর্ষণের শিকার নারীর সংখ্যা ২ লাখ। এ হিসাবটি এসেছে, যারা সরকারি পুনর্বাসন কেন্দ্রগুলোতে এসে তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন আর রেডক্রসের সেবাগ্রহীতার তথ্য থেকে। ওই সময় রেডক্রস জানিয়েছিল, তারা দেড় লাখ নারীর গর্ভপাত করিয়েছিল। কিন্তু অনেক নারী গর্ভধারণ করেননি, আবার অনেকে সন্তান জন্ম দিয়ে দিয়েছিলেন। এছাড়া অনেকে লোকলজ্জায় ধর্ষণের কথা চেপেও গিয়েছিলেন। রেডক্রসের মতে, মোট হিসাবে এ সংখ্যা ৪ লাখের বেশি হতে পারে।

গণহত্যার দায় এড়াতে চায় পাকিস্তান: ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে গণহত্যা চালালেও তার দায় এড়াতে চায় পাকিস্তান। গণহত্যার জন্য তারা কোনো ক্ষমা না চেয়ে সামনে আগাতে চায়। তবে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সব সময় তাগিদ দেয়া হচ্ছে পাকিস্তান যেন গণহত্যার জন্য আনুষ্ঠানিক ভাবে ক্ষমা চায়। এদিকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫১ বছরেও ১৯৭১ সালের নৃশংস খুন, ধর্ষণ, অপহরণের জন্য পাকিস্তানের কোনো শীর্ষ নেতা আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চায়নি। গণহত্যার দায় এড়িয়ে সব সময় পাকিস্তান দাবি করছে, ১৯৭৪ সালের ত্রিপক্ষীয় চুক্তির মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যে বিষয়টির সমাধান হয়ে গেছে। এছাড়া পাকিস্তানের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময়ে অতীত ভুলে সামনে এগিয়ে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে। পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশি বলেছেন, অতীত ভুলে বাংলাদেশ-পাকিস্তান সম্পর্ক সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক সামনে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যাশাও করেছেন তিনি।

আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির পথে বড় বাঁধা পাকিস্তান: ২০১৭ সালে বাংলাদেশে বর্তমানে প্রতিষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দেয়া সরকার ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেন, যেটি আদায়ের পেছনে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছিল ’৭১-এর ঘাতক দালান নিমূ‌র্ল কমিটি এবং সহায়তায় ছিলেন বিখ্যাত মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, শীর্ষ আওয়ামী লীগ নেতা জনাব তোফায়েল আহমেদ। জাতীয়ভাবে এই স্বীকৃতি আমাদের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির পথ খুলে দিলেও এখনো বড় বাধা হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে পাকিস্তান এবং এই মুহূর্তে তার বিশিষ্ট বন্ধুরাষ্ট্র চীন এবং সম্ভবত তুরস্ক। মধ্যপ্রাচ্যের দেশসমূহে এরই মধ্যে চেতনা বোধের এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্কের প্রশ্নে বিস্তর পরিবর্তন সাধিত হওয়ায় এদের অধিকাংশ দেশই আমাদের দাবির সমর্থনে আসবে বলে আশা করা যায়, যা অবশ্য নির্ভর করছে এ বিষয়ে আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষ লবিংয়ের ওপর। তবে যে যুক্তরাষ্ট্র ’৭১-এ আমাদের চরম বিরুদ্ধে ছিল, ২০২২-এ তার মধ্যে ১৬০ ডিগ্রি পরিবর্তনের ফলে সে দেশটি এরই মধ্যে ’৭১ সালে আমাদের দেশে পাকিস্তান কতৃ‌র্ক চালিত গণহত্যার স্বীকৃতি দিতে অনেকখানি এগিয়ে গেছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ থেকেও ভয়াবহ: বাংলাদেশে চালানো গণহত্যা নিশ্চিতভাবে আর্মেনিয়ার গণহত্যার চেয়ে নৃশংস ছিল এবং এমনকি দ্বিতীয় মহাযুদ্ধকালে নাত্সিদের দ্বারা ঘটানো গণহত্যার চেয়েও ব্যাপক ছিল এই অর্থে যে, সেখানে জার্মানিতে চার বছরে ৬০ লাখ লোককে হত্যা করা হয়েছিল, সেখানে বাংলাদেশে কমপক্ষে ৩০ লাখ লোককে শহীদ করা হয়েছিল, ৯ মাসে। গণহত্যাকারী পাকিস্তানি সৈন্যদের বিচার করা হবে, এই প্রতিজ্ঞা করে পাকিস্তান তাদের সৈন্যদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করলেও দায়ি দেশটি তাদের প্রতিজ্ঞা রক্ষা তো করেইনি, বরং বাংলাদেশে তাদের দোসর যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিরুদ্ধে, তারা সংসদে নিন্দা প্রস্তাব করে বাংলাদেশে বিচারাধীন যুদ্ধাপরাধীদের দেশপ্রেমিক বলে আখ্যায়িত করে আমাদের দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করেছিল।

স্বীকৃতি দিতে উদাসীন জাতিসংঘ: জাতিসংঘ এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি প্রাচীন ও সাম্প্রতিক গণহত্যার স্বীকৃতি দিয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রতিরোধ-প্রতিবাদ সত্ত্বেও দিয়েছে। স্বীকৃতি দিয়েছে অটোমান তুর্কিদের হাতে ১৯১৫ সালে ১৫ লাখ আর্মেনীয় হত্যা; ১৯৯৪ সালে রুয়ান্ডায় ৮ লাখ তুতসি জাতিগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে গণহত্যা; দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ইউরোপে ৬০ লাখ ইহুদি হত্যা। এমনকি স্বীকৃতি দিয়েছে ১৯৯২ সালের বসনিয়া ও ১৯৭৫ সালের কম্বোডিয়ার গণহত্যা। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, পাকিস্তানি সৈন্যদের হাতে যে ৩০ লাখ বাঙালির পরিকল্পিত হত্যাযজ্ঞ ঘটে ১৯৭১ সালে; তার কোনো স্বীকৃতি আজও দিতে পারেনি বিশ্ব সংস্থা! সেই বর্বরতার স্বীকৃতি জাতিসংঘ থেকে ৫১ বছরেও মেলেনি! এমন একটি ব্যর্থতা কেবল দুঃখজনক নয়; বিশ্ব সংস্থার চরম ব্যর্থতা ও দৈন্যেরই বহিঃপ্রকাশও বটে। শুধু তাই নয়; এমন ব্যর্থতার যুক্তিসংগত কারণও দেয়নি জাতিসংঘ।

স্বীকৃতি আদায়ে উদ্যোগী হতে হবে: বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যা আন্তর্জাতিকভাবে ভুলে যাওয়ার একটি গণহত্যায় পরিণত হয়েছে। আমাদের সমন্বিতভাবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায় করে নিতে হবে। সরকারকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায় করার জন্য দাপ্তরিকভাবে আবেদন করে কূটনৈতিক পর্যায়ে সক্রিয় হতে হবে। তথ্য, সাক্ষ্য ও যুক্তিসংবলিত আবেদন সরবরাহ করতে হবে। যারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধে সমর্থন দিয়েছিল, তাদের আবার এই বিষয়ে সমর্থন আদায় করে নিতে হবে। শুধু সরকারী পর্যায়ে নয় সামাজিক প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন এনজিও কেও এবিষয়ে কাজ করতে হবে।

স্বাধীনতা দিবসে রাষ্ট্রপতির বাণী: মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে দেশে ও প্রবাসে বসবাসরত সকল বাংলাদেশীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে দেয়া বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, স্বাধীনতার কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জনে জনমুখী ও টেকসই উন্নয়ন, সুশাসন, সামাজিক ন্যায়বিচার, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে হবে।

রাষ্ট্রপতি এ দিনে স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পরম শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে বলেন, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী অতর্কিতে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর আক্রমণ চালায়। ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দীর্ঘ ন’মাস সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা অর্জন করি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী বীর শহিদ এবং জাতীয় চার নেতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও সমর্থক, বিদেশি বন্ধু এবং সর্বস্তরের জনগণকে কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন।

স্বাধীনতা দিবসে প্রধানমন্ত্রীর বাণী: স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবসের এই মাহেন্দ্রক্ষণে সকল বাংলাদেশিকে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শ লালন করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত, আত্মপ্রত্যয়ী ও আত্মমর্যাদাশীল ‘সোনার বাংলাদেশ’ বিনির্মাণে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দেয়া বাণীতে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের ভাগ্য উন্নয়নের দর্শনে বিশ্বাসী। সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা সহজীকরণ এবং দেশের উন্নয়নে আমরা আশু, স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার মাধ্যমে রাষ্ট্র পরিচালনা করছি।

দেশে এবং প্রবাসে বসবাসকারী সব বাংলাদেশি নাগরিককে স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রী।

সব দেশেই যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের স্বীকৃতি ও বিচারের সঙ্গে জড়িয়ে আছে মানবতার লড়াই, মানব সভ্যতার লড়াই। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যা আন্তর্জাতিকভাবে ভুলে যাওয়া একটি গণহত্যায় পরিণত হয়েছে। পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও তাদের সহযোগীদের দ্বারা সংঘটিত এই গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায় করে নিতে হবে। এ জন্য সরকারকে কূটনৈতিক পর্যায়ে সক্রিয় হতে হবে। এ গণহত্যায় জড়িত ব্যক্তিদের বিচার নিশ্চিত করতে হবে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
আইএ/ ২৬ মার্চ ২০২৩

সম্পুর্ন খবরটি পড়ার জন্য এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ::মহান স্বাধীনতা দিবস: ৭১-এর গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ও বিচার দাবি first appeared on DesheBideshe.



আরো খবর: