বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

ভাঙা বাঁধ দিয়ে ঢুকছে পানি; পেকুয়ায় আবারো বন্যার শঙ্কা

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: রবিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২৩

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া::

আবারো বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হতে পারে কক্সবাজারের পেকুয়া। একুশ দিনের মাথায় ফের বন্যার শঙ্কায় ভুগছেন পেকুয়াবাসী। গেলো ভয়াবহ বন্যার ক্ষত না শুকাতেই আবারো বন্যার পানিতে ডুবতে হবে সদর ইউনিয়নের অন্তত পঞ্চাশ হাজার মানুষকে। ২০দিন আগের বন্যায় পানিবন্দি হয়েছিল উপজেলার প্রায় দেড় লক্ষাধিক মানুষ। এখনো সেই ক্ষত শুকায়নি। সেবারের বন্যায় ক্ষতি হয়েছিল প্রায় ২৯ কোটি টাকার। স্থানীয়দের দাবি বন্যায় ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ সংস্কার না করায় দূর্দশায় পড়তে হচ্ছে তাদের। কতৃপক্ষের গাফিলতির কারণে ভারি বর্ষন ও পাহাড়ি ঢলের পানি ভাঙা বাঁধ দিয়ে প্রবেশ করছে লোকালয়ে।

সকালে সরেজমিন দেখা যায়, সদর ইউনিয়নের পুর্ব মেহেরনামা ফাসের গুদাম পয়েন্টে প্রায় দেড় চেইন ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি প্রবেশ করছে। গত দুইদিনের প্রবল বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে মাতামুহুরী নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। সৈকতপাড়া, মুরারপাড়া,পুর্ব মেহেরনামাসহ আরো কয়েকটি গ্রাম আংশিক প্লাবিত হয়েছে। স্থানীয়রা বালির বস্তা দিয়ে পানি প্রবেশ ঠেকানোর চেষ্টা করছে।

এদিকে খবর পেয়ে দুপুরের দিকে পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পূর্বিতা চাকমা ভাঙা বাঁধ পয়েন্ট পরিদর্শন করেছেন।
তিনি বলেন,কি করব ভেবে পাচ্ছিনা। ভাঙা অংশ দিয়ে যেভাবে পানি লোকালয়ে প্রবেশ করছে খুব দ্রুত সময়ে পেকুয়া সদর প্লাবিত হবে। পাউবো কতৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি।

জানাগেছে, গেল বন্যায় পাউবোর বেড়িবাঁধ ভেঙে তিনটি পয়েন্টে পানি প্রবেশ করেছে। পাউবো কতৃপক্ষ জরুরী ভিত্তিতে ভাঙা বাঁধ সংস্কার করতে উদ্যোগের আশ্বাস দিয়েছিলে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। পানি উন্নয়ন বোর্ড কতৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে ফের বন্যার কবলে পড়তে হয়েছে পেকুয়াবাসীকে।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন,বার বার পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে যোগাযোগ করেছি। তাদের কোন সাড়া পায়নি। তাদের অবহেলার কারণে আমরা কষ্ট পাচ্ছি।


আরো খবর: