বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

পেকুয়ায় মসজিদের জায়গা দখল নিতে নিরহ ব্যক্তির বিরুদ্ধে ইউপি সদস্যের চাঁদাবাজি মামলা

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: বুধবার, ৩০ আগস্ট, ২০২৩

পেকুয়া প্রতিনিধি::

কক্সবাজারের পেকুয়ায় রাজাখালী ইউনিয়নের নতুনঘোনায় ১ একর জমি নিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও মসজিদ কমিটির মধ্যে দ্বন্ধ প্রকট আকার ধারণ করেছে। আধিপত্যবাদকে কেন্দ্র করে ইউপি সদস্যের ফাঁসানো মামলায় ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর জের ধরে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নিরীহ লোকজনকে আসামী করে জেলে পাঠানোর প্রতিবাদে ২৮ আগষ্ট (সোমবার) বিকেলে রাজাখালী নতুনঘোনায় বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করা হয়।

এদিকে মসজিদের ৪০ বছরের ভোগ দখলীয় এক একর জমি জবর দখল পাঁয়তারা করছে স্থানীয় ইউপি সদস্য হোসাইন শহীদ মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ। জমি জবর দখল কুমানসে ওই ইউপি সদস্য মসজিদ কমিটির ৬ সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে। পেকুয়া থানা পুলিশ শুক্রবারে অভিযান চালায়। এ সময় মসজিদে আগত ৫ জন মুসল্লীকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন নতুনঘোনা এলাকার মৃত উকিল আহমদের ছেলে আবদুল হক (৭২), আবদুল খালেক, তাঁর ছেলে বেলাল (২৫), আবদুল মালেকের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (৪০), আকতার আহমদের ছেলে মাওলানা জাহাঙ্গীর । মামলার ১ নং আসামী করা হয়েছে নতুনঘোনা এলাকার আবদুল খালেকের ছেলে আলী হোসেন (৩২) কে।

স্থানীয়রা জানান, আলী হোসেন বিদেশ থাকেন। ৮ মাস আগে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমানে পাড়ি জমান। অথচ ইউপি সদস্যের মামলায় তাকে ১ নং আসামী করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে রাজাখালী ইউনিয়নে নতুনঘোনায় স্থানীয়রা বিক্ষোভে ফেটে পড়ে।

এসময় ৫শতাধিক স্থানীয় নারী-পুরুষ রাস্তায় নেমে এ ঘটনার তীব্র নিন্দাসহ প্রতিবাদ করে। নতুনঘোনা বায়তুর মামুর জামে মসজিদ সংলগ্ন স্থানে বিক্ষোভ কর্মসূচী পালিত হয়। এ সময় বিক্ষোভকারীরা সড়কে অবস্থান নেয়। বিক্ষোভে অবস্থান নেওয়া সর্বস্তরের নারী-পুরুষ প্রতিবাদ মুখর হয়ে মসজিদের জমি জবর দখল করাকে ন্যাক্কারজনক দৃষ্টান্ত হিসেবে বলছেন প্রতিবাদকারীরা।

এসময় বিক্ষোভে অংশ নেওয়া নারী-পুরুষ জানান, নতুনঘোনায় বায়তুর মামুর জামে মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে। সেই সময় থেকে ভোলা খালে জেগে উঠা নদীর চরের ১একরের অধিক জায়গা মসজিদ কমিটি রক্ষনাবেক্ষণ করছিল। সরকারী ১ নং খাস খতিয়ানভূক্ত জমিতে মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হয়। সম্প্রতি মসজিদের ভোগ দখলীয় ১ একর জমি জবর দখলে নিতে ইউপি সদস্য হোসাইন শহীদ সাইফুল্লাহ তৎপর রয়েছে। জমি জবর দখলের প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে স্থানীয়রা ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে।

এর সুত্র ধরে ইউপি সদস্য হোসাইন শহীদ সাইফুল্লাহ চকরিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে সিআর মামলা রুজু করে। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআইকে) মামলা তদন্তভার দেওয়া হয়েছে।

সরেজমিনে তদন্তে না এসে পিবিআই গোপনে কোর্টে প্রতিবেদন পাঠান। ওই মামলায় পেকুয়া থানা পুলিশ শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে নতুনঘোনায় এসে আপোষের কথা বলে ৫ মুসল্লীকে পুলিশ ভ্যানে তুলে নেয়। পরবর্তীতে গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করে। আটককৃতরা মসজিদ কমিটিতে দায়িত্বরত আছেন।

এব্যাপারে আটক আবদুল হকের স্ত্রী নুরুন্নিসা (৬০) বলেন, আমার স্বামী বয়োবৃদ্ধ। ৭৫ বছর বয়স হয়েছে। এ অবস্থায় মসজিদের পক্ষে প্রতিবাদ করতে গিয়ে চাঁদাবাজি মামলার আসামী করেছে সাইফুল মেম্বার। তাকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। আমার ১ ছেলেকেও পুলিশ নিয়ে গেছে।

গ্রেপ্তার জাহাঙ্গীরের স্ত্রী জন্নাতুল ফেরদৌস জানান, আমার স্বামী পল্লী চিকিৎসক। তাকেও পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। মসজিদের স্বার্থ নিয়ে কথা বলা তার অপরাধ ছিল।

বায়তুর মামুর জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি মাহামুদুল করিম বলেন, সাইফুল্লাহর অত্যাচারে আমরা অতিষ্ঠ। সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর জমি চাষ করে সাইফু মেম্বার। মন্ত্রীর এক পিএসকে দিয়ে থানাসহ প্রশাসনকে ফোন করায়। শত শত মানুষ হয়রানি হচ্ছে।

মসজিদের ইমাম মাওলানা বশির আহমদ বলেন, মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ৪৫ বছর। আমি এখানে আছি ৩৫ বছর। যে মানুষগুলিকে মামলা দিয়ে হয়রানি করছে তারা সবাই নিরাপরাধ। আল্লাহর ঘর মসজিদের পক্ষে প্রতিবাদ করছে। আমি নিজেও এ বর্বরতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে রাস্তায় এসেছি।

এবিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য হোসাইন শহীদ সাইফুল্লাহ জানান, গত বছরের আগষ্টে ১ একর ৫৪ শতক জমি আমি ক্রয় করি। মূল মালিকের নামে চুড়ান্ত খতিয়ান আছে। বর্তমানে আমার নামে ও সৃজিত খতিয়ান আছে।


আরো খবর: