বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০২:৩৮ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

পেকুয়ায় দুভাইয়ের শত বছরের বসতভিটা দখল

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: বৃহস্পতিবার, ৩১ আগস্ট, ২০২৩

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া::

দু’ভাইয়ের শত বছরের ভোগ দখলীয় বসতভিটা জবর দখলে নিয়েছে একটি প্রভাবশালী মহল। এসময় বসতভিটায় ব্যাপক তান্ডব চালানো হয়েছে। কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের নোয়াখালী পাড়ায় গত মঙলবার এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার দুপুরে এমন অভিযোগ তুলে পেকুয়া চৌমুহনীস্থ সাংবাদিকদের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী পরিবার।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দিলোয়ারা বেগম (৫৮)। এসময় তিনি বলেন,বারবাকিয়া ইউনিয়নের নোয়াখালী পাড়ায় তাঁর স্বামী বদিউল আলম ও দেবর শফিউল আলম পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছেন। শ্বাশুরের খরিদা জায়গায় তাঁরা বসবাস করছেন। ওই জায়গা বিগত একশো বছর ধরে তাদের ভোগ দখলীয়।

তাদের বসতভিটার প্রতি লোলুপ দৃষ্টি পড়ে প্রতিবেশী মৃত জাফর আহমদের ছেলে কাইসার, মৃত,আশরাফ মিয়ার ছেলে হেলাল উদ্দিন ও নুরুল হোসেনের ছেলে বেলাল উদ্দিন গংয়ের। তাঁরা প্রভাবশালী। গত কয়েক মাস ধরে বসতভিটা জবর দখলের চেষ্টা করে আসছে। আমাদের ভিটা থেকে উচ্ছেদ করতে চায় তাঁরা।
এক মাস আগেও একবার দখলের চেষ্টা চালিয়েছে। এসময় বাঁধা দেওয়ায় কলেজ পড়ুয়া ছাত্রসহ চারজনকে কুপিয়ে জখম করেছে।

তিনি আরো বলেন,সমাজ প্রতিনিধিরা শালিসি বৈঠকে বসেছে। তাঁরা কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। থানায়ও বৈঠক হয়েছে। সেখানেও তাঁরা উপযুক্ত কাগজপত্র দেখাতে ব্যার্থ হয়।

মঙলবার সকালে কাইসার,হেলাল ও বেলালের নেতৃত্বে ২০-৩০ জনের ভাড়াটে সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বসতভিটায় হানা দেয়। এসময় আমাদের বাড়িতে অবরুদ্ধ করে তাঁরা ব্যাপক তান্ডব চালায়। দুটি স্কেবেটর গাড়ি এনে মাটি কেটে বসতভিটা গুঁড়িয়ে দেয়। টিনের ঘেরাবেড়া দিয়ে জবর দখল করে নেয়। প্রায় একশোটি বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কেটে নিয়ে যায়। পুকুর থেকে মাছ লুট করেছে। একটি স্থাপনাও নির্মাণ করেছে। পুলিশের জরুরী সেবা (৯৯৯) কল দিলে পুলিশ গিয়ে আমাদের উদ্ধার করে।

এসময় হামিদা বেগম (৪৮) নামের আরেক মহিলা অভিযোগ করে বলেন,কাইসার গং এলাকার প্রভাবশালী। কেউ তাদের বিরুদ্ধে টু শব্দ করেনা। আমাদের ওপর জুলুম করা হয়েছে। আমরা তাদের অত্যাচারে দিশাহারা। এখন স্বামী সন্তানদের প্রতিনিয়ত মেরে ফেরার হুমকি দিচ্ছে। আমরা প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন শফিউল আলমের মেয়ে তসলিমা বেগম,পুত্রবধু রোজিনা আক্তার।

এবিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত হেলাল উদ্দিন বলেন, আমাদের কিছু জায়গা আছে সেখানে। তবে ঘটনায় আমি ছিলাম না। আমি ছিলাম স্কুলে। তবে জায়গা নিয়ে বিভিন্ন বৈঠক হয়েছে। জমির পরিমাপ করেছে। কাগজে জায়গা পেলেও তাঁরা ছেড়ে দিচ্ছেনা।


আরো খবর: