শিরোনাম ::
উখিয়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রার্থীতা ঘোষণা করেছেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু পেকুয়ায় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করে কিশোরীর ভিডিও ধারণ, যুবক আটক পেকুয়ায় হাসপাতালে নবজাতক সন্তান রেখে পালিয়ে গেলেন মা বাংলাদেশে ঢুকল মিয়ানমারের আরও ৪৬ বিজিপি সদস্য মহেশখালীতে র‍্যাব ও পুলিশের অভিযান, ৭ টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ৪ পেকুয়ার মানুষের সেবা করতেই ছুটে এসেছি- ড. সজীব বাইক দুর্ঘটনায় রামুর পোল্ট্রি ব্যবসায়ী নিহত কক্সবাজারে হোটেলের সুইমিংপুলের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু চকরিয়ায় বাড়ি থেকে ঢেকে নিয়ে মেম্বার প্রার্থীকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা পেকুয়ায় রেঞ্জ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পাহাড়ের জব্দকৃত বালু বিক্রির অভিযোগ
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:২১ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

কক্সবাজার-১: পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে কল্যাণ পার্টির নির্বাচনি কার্যালয়

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: সোমবার, ১ জানুয়ারি, ২০২৪

কক্সবাজার-০১ আসনে কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিমের নির্বাচনি কার্যালয় পুড়িয়ে দিয়েছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। আগুনে কার্যালয়ের পাশের একটি দোকানও পুড়ে গেছে।

রোববার গভীর রাতে চকরিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের খোজাখালী এলাকায় এই ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন চকরিয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ফখরুল ইসলাম।

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান ও কক্সবাজার-০১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনে হাতঘড়ি প্রতীকের সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, “গভীর রাতে খোজাখালী সিএনজি স্টেশনের কাছে হাতঘড়ি মার্কার নির্বাচনি প্রচারের অফিসে কে বা কারা আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন চকরিয়া উপজেলার ফায়ার সার্ভিস স্টেশনকে খবর দেয়।

“প্রায় আধাঘণ্টা পর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তার আগেই আগুনে নির্বাচনি অফিস ও তার পাশের সার-কীটনাশকের দোকান সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। আগুনে দোকানের মালামাল ছাড়াও নির্বাচনি অফিসে থাকা পোস্টার লিফলেটসহ প্রচুর প্রচার সরঞ্জাম পুড়ে গেছে। ”

তিনি অভিযোগ করে বলেন, “গত কয়েকদিন ধরে ট্রাক প্রতীকের প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থীর কতিপয় সন্ত্রাসীরা হুমকি-ধমকী দেওয়ায় প্রাথমিকভাবে তারাই আগুন লাগিয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করছি।”

তবে কক্সবাজার-১ আসনের ট্রাক প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য জাফর আলম বলেন, তার নির্বাচনি কর্মী ও সমর্থকদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা মিথ্যা। চকরিয়া ও পেকুয়ার মানুষের মাঝে প্রচার রয়েছে- নিজেরা (হাতঘড়ির লোকজন) এ ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটিয়ে তার কর্মীদের উপর দায় চাপিয়ে মামলা করে এলাকা ছাড়া করবে।

তিনি বলেন, বিগত ৪-৫ দিন ধরে হাতঘড়ি প্রতীকের প্রার্থী সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহীমের সমর্থকরা চকরিয়া-পেকুয়ায় ওপেন সিক্রটলি বলে যাচ্ছিলো যে “তাদের অফিস তারা পুড়িয়ে দিয়ে/ভেঙে দিয়ে আমার সমর্থকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করবে এবং আমার কর্মীদের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে মামলা দায়ের করবে, উক্ত নীলনকশার অংশ হিসেবে কৈয়ারবিলে অফিস পুড়ানোর কথিত অভিযোগ। ”

জাফর অভিযোগ করে বলেন, “অথচ দুঃখজনকভাবে গত ২৮ ডিসেম্বর টইটং ইউনিয়নের হিরাবনিয়া ৮নং ওয়ার্ডে আমার অফিস ভাংচুর করা হয়। অফিসের দায়িত্বে নিয়োজিত স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মানিকের মোটর সাইকেলে পেট্রোল দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে দেয় হাতঘড়ির কর্মী সমর্থকরা। যা আমি সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে অবহিত করেছি।“

ইউএনও ফখরুল জানান, সকালে কৈয়ারবিলে আগুনের খবর পেয়ে তিনিসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আগুনে হাতঘড়ি প্রতীকের নির্বাচনী অফিস ও একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে গেছে।

“কে বা কারা আগুন লাগিয়ে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ঘটনার ব্যাপারে নির্বাচনি দায়িত্বে থাকা বিচারিক হাকিমকে অবহিত এবং জড়িতদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিতে পুলিশকে নির্দেশনা হয়েছে।”

চকরিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ জানান, “ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।”

এদিকে সোমবার সকাল ১১টার দিকে ঘটনাস্থলে যান কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম। এ সময় তিনি পুড়ে যাওয়া দোকানটির মালিককে ২০ হাজার টাকার আর্থিক সহায়তা দেন।


আরো খবর: