শিরোনাম :
চকরিয়ায় সব পর্যটন স্পট কমিনিউটি সেন্টার ও বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ থাকবে দুইদফায় স্থগিত হলো চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচন হতাশায় ভোটার, খরচের খাতা দীর্ঘ হচ্ছে প্রার্থীদের! উখিয়ায় বসতবাড়ি ভাংচুর ও মালামাল লুটপাট, মহিলা সহ আহত ৩ উখিয়ায় সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট পরিদর্শনে সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন হোটেল-মোটেলসহ কক্সবাজারের সব পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ থাকবে শিগগিরই চালু হবে ইন্সটিটিউট ও পাবলিক লাইব্রেরী-সিনিয়র সচিব মো. হেলালুদ্দীন উখিয়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে রোহিঙ্গার মৃত্যু উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এপিবিএনের কার্যক্রম পরিদর্শনে ডিআইজি টেকনাফের নাফ নদী থেকে ৩ জনের মরদেহ উদ্ধার টেকনাফে এক্স-রেতেই ধরা খেল পাকস্থলীতে ইয়াবা
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৩:০৭ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
কক্সবাজার পোস্টে আপনাকে স্বাগতম, আমাদের সাথে থাকুন,কক্সবাজারকে জানুন......

কক্সবাজারের লক্ষাধিক জেলের মানবেতর জীবনযাপন

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ৩০, ২০১৮ ৯:৫৮ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ৩০, ২০১৮ ৯:৫৮ অপরাহ্ণ

কক্সবাজার পোস্ট ডটকম ::
জাতীয় অর্থনীতিতে ভূমিকার রাখলেও মানবেতর জীবনযাপন করছেন কক্সবাজারের লক্ষাধিক জেলে। নেই কোন ছুটি, ঝুঁকি নিয়ে দিনরাত হাড়ভাঙ্গা খাটুনিতেও পরিবর্তন হয়না তাদের ভাগ্য। শ্রম আদালত বা শ্রম আইনের যথাযথ প্রয়োগ না থাকায়, তারা অধিকার বঞ্চিত হচ্ছেন বলে মেনে করেন শ্রমিক নেতারা। আর মৎস্য বিভাগ বলছে, পুরো নিবন্ধন কার্যক্রম শেষ হলে জেলেদের অধিকার আরও সুরক্ষিত হবে।

গভীর সাগরে ট্রলার নিয়ে মাছ শিকারই তাদের পেশা। কখনো তপ্ত রোদে পুড়ে, কখনো ঝড়ো হাওয়া আবার কখনো জলদস্যু জীবনের ঝুঁকি। নেই কোন ছুটি ও অন্যান্য সুবিধা। টানা সময়ের জীবন যুদ্ধে এসব মানুষ জেলে নামেই পরিচিত।

এসব মানুষের কাছে শ্রম অধিকার বা মে দিবসের কোন মূল্য নাই। তারা জানেন না তাদের জন্য রয়েছে একটি দিন, মে দিবস। ট্রলারযোগে সাগর থেকে মাছ ধরে এনে কূলে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহই তাদের জীবন। দিনরাত হাড়ভাঙ্গা খাটুনিতে পাওয়া মজুরিতেই অভাব-অনটনে চলে তাদের সংসার। সাপ্তাহিক ছুটি, নির্দিষ্ট কর্মঘন্টা, ন্যায্য মজুরি পাচ্ছেন কিনা এমন প্রশ্ন তাদের কাছে অবান্তর।

কক্সবাজারে শ্রম আদালত বা শ্রম আইনের যথাযথ প্রয়োগ না থাকায় শ্রমিকরা শ্রম অধিকার বঞ্চিত হচ্ছেন বলে অভিযোগ জেলা ফিশিং বোট শ্রমিক ইউনিয়নের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান বাহাদুরের।

তিনি বলেন, ‘শ্রম আইনের অধীনে এই শ্রমিকদের এখনও অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। তাদের ব্যাপারে কোন নীতিমালাও তৈরি করা হয়নি এমনকি কক্সবাজের কোনো শ্রমআদালতও নাই।’

তবে মৎস্য অধিদপ্তরের সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা ড. মঈন উদ্দিন আহমদ জানালেন, শ্রমিকদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন করার পাশাপাশি নিবন্ধন কার্যক্রম শেষ হলে জেলেদের অধিকার সুরক্ষিত হবে।

তিনি বলেন, ‘আইনটা কঠিন হলে আমরা এমনটা করতে পারি যে, নিবন্ধিত জেলে ছাড়া কেউ সাগরে যেতে পারবে না। তখন এদের অধিকারটা আরও সমু্ন্নত হবে।

জেলা মৎস্য অফিসের দেয়া তথ্য মতে, কক্সবাজারে এখন পর্যন্ত নিবন্ধনের আওতায় এসেছে ৪৮ হাজার ৩৯৩ জন জেলে ও নিবন্ধিত নৌযানের সংখ্যা ৫ হাজার ২৪০টি।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::