বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪১ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..  

আইএমএফের ঋণই প্রমাণ করে দেশের অর্থনীতির ভিত্তি মজবুত

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: বুধবার, ১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) থেকে ৪.৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণের অনুমোদনই প্রমাণ করে যে দেশের সামষ্টিক অর্থনীতির মৌলিক ক্ষেত্রগুলো শক্ত ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত।

তিনি বলেন, ‘দেশের সামষ্টিক অর্থনীতির মৌলিক বিষয়গুলো বিশ্বের অনেক দেশের চেয়েই ভালো।’ বাংলাদেশের জন্য ৪.৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ প্রস্তাব গতকাল আইএমএফ বোর্ড সভায় অনুমোদনের পর অর্থমন্ত্রী আজ এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী অভিযোগ করেন, অনেকেই আশংকা প্রকাশ করেছিল যে সামষ্টিক অর্থনীতির মৌলিক দুর্বলতার কারনে আন্তর্জাতিক অর্থায়ন সংস্থাটি বাংলাদেশে এধরনের ঋণ সুবিধা প্রদান করবে না। কিন্তু, শেষ পর্যন্ত তারা ঋণ অনুমোদন করে, তা ভুল প্রমাণিত করেছে। তিনি আইএমএফ এর এধরনের ঋণ সহায়তা প্রদানের জন্য এই প্রক্রিয়ার সাথে সম্পৃক্ত বিশেষ করে- আন্তর্জাতিক অর্থায়ন সংস্থাটির ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর আন্তোয়েনেট সায়েহ মনসেউ এবং মিশন প্রধান রাহুল আনন্দ’র পাশাপাশি অন্যান্য কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জানান। উল্লেখ্য, আইএমএফ সোমবার বোর্ড সভায় বাংলাদেশের জন্য ৪.৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ঋণ প্রস্তাব অনুমোদন করে।

মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ এক্সটেন্ডেড ক্রেডিট ফ্যাসিলিটি (ইসিএফ) এবং এক্সটেন্ডেড ফান্ড ফ্যাসিলিটি (ইএফএফ)-এর আওতায় প্রায় ৩.৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি ফ্যাসিলিটি (আরএসএফ)-এর আওতায় প্রায় ১.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পাবে।

আইএমএফ-এর ইসিএফ বা ইএফএফ অনুমোদনের ফলে ৪২ মাসের মধ্যে নির্ধারিত সাতটি কিস্তির মধ্যে প্রথম হিসাবে প্রায় ৪৭৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার তাৎক্ষণিকভাবে বিতরণ করা সম্ভব হয়েছে। অবশিষ্ট অর্থ ছয়টি সমান কিস্তিতে দেয়া হবে, প্রতিটি কিস্তি হবে ৭০৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ৪২ মাসের এই কর্মসূচি সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা রক্ষা, দুর্বলদের সুরক্ষা এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ও সবুজ প্রবৃদ্ধি বাড়াতে সহায়তা করবে।

সংস্কারগুলো বৃহত্তর সামাজিক ও উন্নয়নমূলক ব্যয় সক্ষম করার জন্য বাজেট সক্ষমতা তৈরি করবে, আর্থিক খাতকে শক্তিশালীকরণ, নীতি কাঠামোর আধুনিকীকরণ এবং জলবায়ু স্থিতিশীলতা গড়ে তোলার দিকে মনোনিবেশ করবে।

আইএমএফ’কে উদ্ধৃত করে বলা হয়, ইউক্রেনে রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে মহামারী থেকে বাংলাদেশের শক্তিশালী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার বাধাগ্রস্ত হয়েছে, যার ফলে বাংলাদেশের চলতি হিসাবের ঘাটতি, টাকার অবমূল্যায়ন এবং বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ হ্রাস পেয়েছে। এতে আরও বলা হয়, কর্তৃপক্ষ এই সর্বশেষ অর্থনৈতিক বিঘœ মোকাবেলার জন্য একটি বিস্তৃত ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। কর্তৃপক্ষ স্বীকার করে যে, এই তাৎক্ষণিক চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করার পাশাপাশি, প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত করতে, বেসরকারি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে, উৎপাদনশীলতা বাড়াতে এবং জলবায়ু স্থিতিশীলতা গড়ে তুলতে জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত দীর্ঘস্থায়ী কাঠামোগত সমস্যা এবং দুর্বলতাগুলোও মোকাবেলা করতে হবে।

ইসিএফ/ইএফএফ ব্যবস্থার অধীনে আইএমএফ-সমর্থিত কর্মসূচি সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এবং শক্তিশালী, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং পরিবেশগতভাবে টেকসই প্রবৃদ্ধির ভিত্তি স্থাপনের সময় দুর্বলদের সুরক্ষায় সহায়তা করবে। সমসাময়িক আরএসএফ ব্যবস্থা কর্তৃপক্ষের পরিকল্পনায় চিহ্নিত জলবায়ু বিনিয়োগের অগ্রাধিকারগুলোর অর্থায়নের জন্য আর্থিক স্থান প্রসারিত করতে, অতিরিক্ত অর্থায়নকে উদ্বুদ্ধ করতে এবং দীর্ঘমেয়াদী জলবায়ু ঝুঁকির বিরুদ্ধে স্থিতিশীলতা গড়ে তুলতে ইসিএফ/ইএফএফের অধীনে সংস্থানগুলো পূর্ণ সহায়তা করবে।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল

,


আরো খবর: