তারিখ: বৃহস্পতিবার, ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ২৯শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

Share:

শাহীন মাহমুদ রাসেল::

ঘুর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে শনিবার সন্ধ্যা থেকে কক্সবাজার জেলার বিস্তৃর্ণ এলাকায় বজ্রপাত, দমকা হাওয়া ও বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। সাগর ও নদীতে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

উপকূলবাসীরা নিরাপত্তার জন্য সহায় সম্বল নিয়ে স্থানীয় স্কুল কলেজ, মসজিদ এবং সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নিয়েছে।

এদিকে কক্সবাজার জেলার কয়েকটি উপজেলার বিস্তৃর্ণ এলাকার অরক্ষিত বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের অতিরিক্ত পানি প্রবেশ করায় অন্তত ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ফলে র্নিঘুম রাত কাটছে উপকূলবাসীর।

অপরদিকে ঘুর্ণিঝড় বুলবুল ক্রমশই বাংলাদেশের দিকে অগ্রসর হচ্ছে কক্সবাজার আবহাওয়া অধিদফতর থেকে এমন খবর শুনে চরম আতংকে রয়েছে জেলার যেগাযোগ বিচ্ছিন্ন এলাকার লোকজন।

তবে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দফায় দফায় সর্তকবার্তা পৌঁছে দেয়ার ফলে উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষ কিছুটা ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষা পাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সন্ধ্যা ছয়টার দিকে) আবহাওয়া অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, ঘুর্ণিঝড় বুলবুল বর্তমানে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত থেকে অন্তত পৌনে ৪শ’ ৮০ কিলোমিটার দূরে রয়েছে।

সেক্ষেত্রে উপকূলের জনজীবনে আতংক বাড়ছে। তবে মধ্য অথবা শেষ রাতে বড় ধরনের হানা দিবে এমন আশংকায় রয়েছে উপকূলবাসী।

Share:
error: কপি করা নিষেধ !!