শিরোনাম ::
উখিয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে কর্মশালা অনুষ্ঠিত সামাজিক সংহতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত উখিয়ার রাজা পালং মাদ্রসা দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রে নানা অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠিত মুক্তি কক্সবাজারের উদ্যোগে উখিয়ায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফ্রেন্ডশিপের প্রশিক্ষণে চ্যাম্পিয়ন ভালুকিয়া পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের নারী ফুটবল টিমকে সংবর্ধনা উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ! বান্দরবানের দুর্গম অঞ্চলে ঝরে পড়া শিশুদের জন্য উদ্বোধন শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের বান্দরবান দুই শতাধিক প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উখিয়ায় পালস’র উদ্যোগে বিশ্ব শান্তি দিবস পালিত
বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:১৯ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

৩০হাজার মানুষের একমাত্র ভরসা কাঁঠের সাঁকো!

ডেস্ক নিউজ
আপডেট: মঙ্গলবার, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২২

নীলফামারীর ডোমার উপজেলার সীমান্তঘেঁষা ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নে বুড়িতিস্তা নদীর বুদুর ঘাটে কোনও সেতু নেই। আট গ্রামের প্রায় ৩০ হাজার মানুষের চলাচলের একমাত্র ভরসা একটি বাঁশের সাঁকো। বিকল্প পথ না থাকায় এই সাঁকো দিয়েই যাতায়াত করতে হয় গ্রামবাসীদের। স্থানীয়রা প্রতি বছর নিজ উদ্যোগে নড়বড়ে সাঁকোটি মেরামত করে কোনও রকমে যাতায়াত করেন। বর্ষাকালে শিশুদের স্কুলে যাতায়াত বন্ধ হয়ে যায়। দুর্ভোগ পোহাতে হয় কৃষিপণ্য পরিবহনে।

এ সমস্যার স্থায়ী সমাধান চান শব্দিগঞ্জ, গোসাইগঞ্জ, আনন্দবাজার, সর্দারপাড়, জালিয়াপাড়া, ভোগডাবুড়ি, চিলাপাড়া, মধ্যপাড়া বাজার এই আট গ্রামের বাসিন্দারা।

সরেজমিন দেখা যায়, একটি বাঁশের সাঁকো দিয়ে ঝুঁকির নিয়ে কষ্ট করে চলতে হয় ওই এলাকার মানুষদের। ডোমার শহরসহ জেলা শহর নীলফামারীতে যেতেও ওই সাঁকোটিই ব্যবহৃত হয়। বর্ষা মৌসুমে দুর্ভোগে পড়েন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। কৃষকের উৎপাদিত পণ্য ধান, চাল, পাট, ভুট্টা, গম, আদা, মরিচ, পেঁয়াজ ও রসুন ডোমার বাজারে আনতে দুর্ঘটনায় পড়তে হয় অনেক সময়। বর্ষায় কলা গাছের ভেলা আর শুষ্ক মৌসুমে বাঁশের সাঁকোই নদীর উভয় পারের মানুষের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা।

নদীর কোল ঘেঁষে গড়ে উঠেছে শব্দিগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গোসাইগঞ্জ স্কুল অ্যান্ড কলেজ, কারেঙ্গাতলী উচ্চ বিদ্যালয়। এই সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের বুদুর ঘাটের বাঁশের সাঁকো দিয়েই চলাচল করতে হয়।

গোসাইগঞ্জ স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী সামিনা আকতার বলে, ‘বাবা-দাদার আমল থেকে বুদুর ঘাটে সেতু নেই। আমরা অনেক কষ্ট করে স্কুলে যাতায়াত করি। বর্ষা মৌসুমে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পড়ালেখার জন্য বিদ্যালয়ে যেতে হয়। তারপরও বর্ষা মৌসুমে প্রায় তিন মাস লেখাপড়া বন্ধ থাকে। এতে সহপাঠীদের সঙ্গে পাঠ্যসূচি মেলাতে হিমশিম খেতে হয়। পিছিয়ে পড়তে হয় পাঠ্যসূচি থেকে। আমাদের দাবি, বুদুর ঘাটে একটি সেতু নির্মিত হোক। ঝুঁকিপূর্ণ এ সাকোঁতে প্রতিনিয়ত ঘটে দুর্ঘটনা। বর্ষাকালে রোগী নিয়ে পড়তে হয় সীমাহীন দুর্ভোগে। উপজেলা শহরে উন্নত চিকিৎসার জন্য যাওয়ার কোনও উপায় থাকে না। প্রায় ৮-১০ কিলোমিটার রাস্তা ঘুরে যেতে হয় ডোমার উপজেলা শহরে।’

উপজেলার শব্দিগঞ্জ গ্রামের মোনতাজ আলী, জরিনা বেগম বলেন, ‘ছেলে-মেয়েরা নড়বড়ে ওই সাঁকোর ওপর দিয়ে স্কুল-কলেজে আসা-যাওয়া করে। শুধু তাই নয়, ব্যবসায়ী ও কৃষকদের পণ্য নিয়ে উপজেলার শহরে যাতায়াত করতে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়তে হয়।’

সামিনা আরও জানায়, ভোট এলে অনেকেই সেতু নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকেন। কিন্তু ভোট চলে গেলে কারও কোনও খবর থাকে না।

ভুক্তভোগী স্থানীয় বাসিন্দা জয়দেব রায় ও স্বপ্না রায় জানান, এলাকাবাসী একটি সেতু নির্মাণের দাবি করে আসছেন। দেশ স্বাধীনের পঞ্চাশ বছর অতিবাহিত হলেও কেউ শোনেনি তাদের কথা। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের এ নিয়ে নেই কোনও পরিকল্পনা।

ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান রেয়াজুল ইসলাম কালুর সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, ‘আমি অতি দ্রুত সেতু নির্মাণ করে মানুষের দুর্ভোগ কমানোর চেষ্টা করবো। বিষয়টি নিয়ে উপজেলার মাসিক মিটিংয়ে আলোচনা করা হবে।’

এলজিইডি উপজেলা প্রকৌশলী মোস্তাক আহমেদ জানান, তিনি নতুন এসেছেন। বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত নন। সমস্যাটি জেনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নীলফামারী এক আসনের (ডোমার ডিমলা) সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার জানান, উপজেলা প্রকৌশলীর দফতর থেকে তালিকা দেওয়া হলে সেতুটি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নির্মাণ করা হবে। এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে।
বাংলা ট্রিবিউন


আরো খবর: