তারিখ: বৃহস্পতিবার, ১২ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Share:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়া থানার ওসি দিদারুল ফেরদৌসের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে দায়ের করা একটি অভিযোগ দুদক তদন্তকালে সাক্ষীর উপর হামলার ঘটনায় কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটনকে আটক করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

শনিবার গভীর রাতে (৩০ নভেম্বর) কক্সবাজার শহর থেকে তাকে আটক করেন দুদক।

আটক ইউপি চেয়ারম্যানকে কক্সবাজার সদর মডেল থানার পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। চট্টগ্রাম দুদকের উপ-সহকারি পরিচালক জাফর সাদেক শিবলী সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

জাফর সাদেক শিবলী আরো জানিয়েছেন, কুতুবদিয়া থানার ওসি দিদারুল ফেরদৌসের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে দায়ের করা একটি অভিযোগের তদন্তে শনিবার (৩০ নভেম্বর) কুতুবদিয়া যান দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) একটি দল। ওই অভিযোগের তদন্তের সাক্ষী দিতে আসা লোকদের উপর ওসির পক্ষ হয়ে স্থানীয় বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটনের নেতৃত্বে ১০/১২জনের একটি দল হামলা চালিয়ে বেধড়ক মারধর করেন। এক পর্যায়ে দুদকের প্রতিনিধিদলের তৎপরতায় পরিস্থিতি শান্ত করেন এবং আহতদের হাসপাতালে ভর্তির করা হয়। এর আগে শনিবার (৩০ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৬ টার দিকে কুতুবদিয়া উপজেলার স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স হাসপাতালের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এসময় স্বাক্ষী দেলোয়ার হোসেন (৪৫) ও রুহুল আমিন (৬০) ও মফিজ আলম (৩৫) গুরুতর আহত হয়। আহতদের কুতুবদিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম দুদকের উপ-সহকারি পরিচালক শরিফ উদ্দিন বলেন, ‘কুতুবদিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ দিদারুল ফেরদৌস, এসআই জয়নাল আবেদীন, এএসআই স্বজল দাশ’র বিরুদ্ধে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ, দুর্নীতি, নিরীহ লোকদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি ও দখলদারের পক্ষ নেয়াসহ নানা অভিযোগে হাইকোর্টে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন কুতুবদিয়ার মনোয়ার ইসলাম মুকুল নামের এক ব্যক্তি। ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম দুর্নীতি দমন কমিশনকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ওই নির্দেশের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর একটি প্রতিনিধিদল কুতুবদিয়া যান।

এর আগে ওই ঘটনার জড়িত থাকার অভিযোগে বেলাল নামের আরো এক যুবককে আটক করা হয়।

Share:
error: কপি করা নিষেধ !!