শিরোনাম :
সুপার ওভারে স্বস্তির জয় বেঙ্গালুরুর বিএনপির রাজনীতিতে চরম দুঃসময় চলছে : ওবায়দুল কাদের নাগরিক সেবায় যত বেশি ইতিবাচক কাজ তত বেশি পুরস্কার : আইজিপি কানাডায় রেড অ্যালার্ট জারি: বার, রেঁস্তোরা ও থিয়েটার হল ২৮ দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা আলীকদমে সাতটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিশু বান্ধব আসবাব সামগ্রী বিতরণ সিলেটে নববধু ধর্ষণে অভিযুক্তদের রাজনৈতিক পরিচয় নাকচ করছে আওয়ামী লীগ ছাত্রাবাসে দলবদ্ধ ধর্ষণ মামলার আসামি মাহফুজুর গ্রেপ্তার ড্রাইভার মালেকের মতো চুনোপুঁটিদের ধরে লাভ নেই চীনের চূড়ান্ত শক্তির প্রদর্শন, একসঙ্গে ৫ সমুদ্রে নজিরবিহীন যুদ্ধ মহড়া! ৪ বারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লড়াকু জীবন
মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:৩৭ অপরাহ্ন

সৌদি থেকে ফিরলেন আরও ৪০ নারী

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: মে ২৭, ২০১৮ ১০:৪৮ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: মে ২৭, ২০১৮ ১০:৪৮ অপরাহ্ণ

সৌদি আরবে কর্মক্ষেত্রে নির্যাতনের শিকার আরও ৪০ নারী দেশে ফিরছেন।

রোববার রাত নয়টার দিকে ‘এয়ার অ্যারাবিয়ার’ উড়োজাহাজে তারা দেশে আসেন।

এর আগে গত ১৮ ও ১৯ মে সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরেছিলেন ৮৯ নির্যাতিত বাংলাদেশি নারী কর্মী।

ব্র্যাক অভিবাসনের কর্মকর্তা আলামিন নয়ন জানিয়েছেন, ৪০ নারী কর্মী এক সঙ্গে দেশে ফিরেছেন। তাদের অনেকেই শারিরিক ও যৌন নির্যাতনের শিকার। বেশির ভাগই বেতন পাননি। নির্যাতন সইতে না পেরে সৌদি আরবে বাংলাদেশ দূতাবাসের আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছিলেন। ৪০ নারীর তিনজন ফিরেছেন ব্র্যাকের আবেদনে।

দেশে ফেরা নারীরা জানিয়েছেন, ভাল বেতনে কাজের আশায় তারা সৌদি আরব গিয়েছিলেন। কিন্তু দেশটিতে যাওয়ার পর নির্যাতন, নিপীড়ন শুরু হয়। যেসব রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে গিয়েছিলেন, তারা দায়দায়িত্ব নেয়নি। তাই পালিয়ে দূতাবাসে আশ্রয় নেন।
প্রায় চার হাজার নারী কর্মস্থলে নির্যাতনের শিকার হয়ে গত বছরে মধ্যপ্রাচ্য থেকে দেশে ফেরেন। চলতি বছরের প্রথম চার মাসে ফিরেছেন আরো হাজের খানেক মেয়ে।

যেসব রিক্রুটিং এজেন্সি নির্যাতনের শিকার এ নারীদের সৌদি আরব পাঠিয়ে ছিল, তাদের কারো বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়। দেশে ফেরা নারীরা দাবি জানালেন, রিক্রুটিং এজেন্সির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে। এজেন্সিগুলোকে তাদের চাকরি দেওয়ার কথা বলে বিদেশ নিয়ে ‘বিক্রি ‘ করে দিয়েছিল।

গত বছর ৫৪ হাজার বাংলাদেশি সৌদি আরব যান। মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য দেশে গিয়েছেন আরো অন্তত ৫০ হাজারে মেয়ে।

সৌদি আরবের সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি অনুযায়ী, নারী কর্মীরা বিনাখরচে দেশটিতে যান। একজন নারী কর্মী পাঠিয়ে রিক্রুটিং এজেন্সির আয় হয় দুই হাজার ডলার। এ কারণে এজেন্সিগুলো মুনাফার লোভে কর্মপরিবেশ যাচাই না করেই কর্মী পাঠায় বলে অভিযোগ রয়েছে।

দেশে ফেরা নারীদের অনেকের শরীরে রয়েছে নির্যাতনের চিহ্ন। এক নারী সমকালকে জানান, সৌদি আরবের রিয়াদের এক বাড়িতে কাজ করতেন। নিয়মিত খাবার দিত না। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কাজ করতে হতো। কাজে ভুল হলে মারধর করা হতো। বকেয়া বেতন চাইলেও নির্যাতন করা হতো।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::