তারিখ: বুধবার, ২২শে মে, ২০১৯ ইং, ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Share:

অনলাইন ডেস্ক: ফেসবুকে লাইভে পবিত্র কোরআনকে অবমাননাকারী সেফাতউল্লাহ ওরফে সেফুদার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ আগামী ১৮ জুলাই ধার্য করেছেন আদালত।

বুধবার মামলাটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ধার্য ছিল। কিন্তু এদিন মামলার তদন্ত সংস্থা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেননি। এজন্য ঢাকার সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালের বিচারক আস্ সামস জগলুল হোসেন প্রতিবেদন দাখিলের পরবর্তী এ তারিখ ঠিক করেন।

গত ২৩ এপ্রিল ঢাকা বারের আইনজীবী মো. আলীম আল রাজী (জীবন) মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, গত ৯ এপ্রিল বাদী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেখতে পান যে, অস্ট্রিয়ার ভিয়েনা প্রবাসী সেফাতউল্লাহ ওরফে সেফুদা তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভে এসে পবিত্র আল কোরআন সম্বন্ধে বিভিন্ন ধরনের আজেবাজে কথা বলছেন এবং আল কোরআনকে অবমাননা করছেন, যা সমগ্র ইসলামী বিশ্বকে মারাত্মকভাবে আহত করছে। লাইভটি ভাইরাল হওয়ায় প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।

এছাড়া, এ আসামি একইভাবে বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে বিভিন্ন সময় লাইভে এসে করুচিপূর্ণ, অশ্লীল, আক্রমণাত্মক কথা বলেছেন ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছেন। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে নিয়েও কটূক্তি করেছেন।

মামলায় এ আসামির ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার ও তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করার আবেদনে করেন বাদী।
জানা গেছে, ছোটবেলা থেকেই সেফুদা উন্মাদ ছিলেন। ২৫ বছর আগে তাকে ত্যাজ্যপুত্র ঘোষণা করেন তার বাবা হাজী আলী আকবর। তিনি চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার ১৩ নং সূচিপাড়া উত্তর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড চেড়িয়ারা গ্রামের মৃত হাজী আলী আকবরের পুত্র। তার বাবা তিনটি বিয়ে করেন। সব ঘর মিলে সেফুদার ভাই-বোন ১৫ জনের অধিক। তার মধ্যে সেফুদার আপন ভাই-বোনের সংখ্যা আটজন। তবে কারো সাথে তার সম্পর্ক নেই।

সেফুদার এক সন্তান রয়েছে। তিনি ইংল্যান্ডে থাকেন। তার স্ত্রী থাকেন ঢাকায়। প্রায় ২২ বছর আগে সেফুদা অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় চলে যান।

সেফুদাকে দেশে অথবা বিদেশে আইনের হাতে তুলে দিতে পারলে ২ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছেন ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল।

Share:

আপনার মতামত প্রদান করুন ::