শিরোনাম ::
উখিয়ার রোহিঙ্গা হিন্দু ক্যাম্পের দুর্গোৎসবে অর্থ সহায়তা প্রদান করেছে কোস্ট ফাউন্ডেশন। উখিয়ায় জাতীয় কন্যা শিশু দিবস পালিত কোটবাজার সিএনজি মালিক-চালক সমিতির কর্মকর্তাদের দুর্নীতি ও উপজেলা সমবায় অফিসারের স্বেচ্ছাচারিতা বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন উখিয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে কর্মশালা অনুষ্ঠিত সামাজিক সংহতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত উখিয়ার রাজা পালং মাদ্রসা দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রে নানা অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠিত মুক্তি কক্সবাজারের উদ্যোগে উখিয়ায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফ্রেন্ডশিপের প্রশিক্ষণে চ্যাম্পিয়ন ভালুকিয়া পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের নারী ফুটবল টিমকে সংবর্ধনা উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ!
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৫:২৫ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

সিনহা হত্যাকাণ্ড ছিলো পূর্বপরিকল্পিত,বিচারকের পর্যবেক্ষণ

ডেস্ক নিউজ
আপডেট: সোমবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২২

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি পূর্বপরিকল্পত ছিল বলে আদালত পর্যবেক্ষণ দিয়েছে। দেড় বছর আগের এই হত্যাকাণ্ডের রায় পড়ার শুরুতে এমন পর্যবেক্ষণ দেন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল।

সোমবার দুপুর আড়াইটার পর সিনহা হত্যার রায় পড়া শুরু করেন বিচারক। তার আগে দুইটার দিকে ওসি প্রদীপসহ ১৫ আসামিকে প্রিজনভ্যানে করে কক্সবাজার আদালতে আনা হয়। পরে লাইন ধরে তাদের নিয়ে যাওয়া হয় এজলাস কক্ষে, দাঁড় করানো হয় কাঠগড়ায়।

আসামিদের উপস্থিতিতেই বেলা আড়াইটার কিছু আগে এজলাসে বসেন বিচারক। আসামিদের নাম ডাকার পর শুরু করেন তাদের সামনেই ৩০০ পৃষ্ঠার রায়ের সারসংক্ষেপ। আধা ঘণ্টা সারসংক্ষেপ পড়ার শুরুতে বিচারক পর্যবেক্ষণ দেন। পর্যবেক্ষণে সিনহা হত্যার ঘটনা পূর্বপরিকল্পিত বলে জানান বিচারক।

২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফের মেরিন ড্রাইভ সড়কে সিনহাকে গুলি করে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়।

হত্যাকাণ্ডের পাঁচ দিন পর ওই বছরের ৫ আগস্ট আদালতে হত্যা মামলা করেন সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার। আদালতের নির্দেশে মামলার তদন্তের দায়িত্ব পায় এলিট ফোর্স র‌্যাব। চার মাস দশ দিন পর একইবছরের ১২ ডিসেম্বর কক্সবাজার আদালতে ২৬ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্র জমা দেয় র‌্যাবের তদন্ত কর্মকর্তা।

সিনহা হত্যায় অভিযুক্ত করা হয় টেকনাফ থানা পুলিশের নয় সদস্যকে। এছাড়াও এপিবিএনের তিনজন এবং পুলিশের সোর্স তিনজনকে অভিযুক্ত করা হয়। তারা হলেন- বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলী, টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, টেকনাফ থানার এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত, বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ি এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল ছাফানুর করিম, কনস্টেবল কামাল হোসাইন আজাদ, কনস্টেবল আবদুল্লাহ আল মামুন, কনস্টেবল রুবেল শর্মা ও কনস্টেবল সাগর দেব। আর এপিবিএনের তিনজন হলেন- এসআই মো. শাহজাহান আলী, কনস্টেবল আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, কনস্টেবল রাজিব হোসেন। এছাড়া পুলিশের মামলার সাক্ষী ও পুলিশের সোর্স টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের মারিশবুনিয়া গ্রামের নুরুল আমিন, মোহাম্মদ আইয়াজ আয়াছ ও মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিনকে অভিযুক্ত করা হয়।
ঢাকাটাইমস২৪


আরো খবর: