শিরোনাম ::
উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ! বান্দরবানের দুর্গম অঞ্চলে ঝরে পড়া শিশুদের জন্য উদ্বোধন শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের বান্দরবান দুই শতাধিক প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উখিয়ায় পালস’র উদ্যোগে বিশ্ব শান্তি দিবস পালিত সীমান্তে গুলির শব্দ থামছে না উখিয়ায় প্রশাসনের অভিযানে ৩টি ড্রেজার মেশিন ও ২টি বন্দুকসহ অস্ত্র উদ্ধার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আবারো খুন মুক্তি কক্সবাজার-এর উদ্যোগে ব্যবসায়ী ও উপকারভোগীদের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত পালস-এর উদ্যোগে “বর্ণবাদ-শান্তি ও সম্প্রীতির অন্তরায়” বিষয়ক বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:৩১ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

সাঁতরে সেন্টমার্টিন গেলেন ৫৪জন সাতারু!

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট: মঙ্গলবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২১

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বঙ্গোপসাগরে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেওয়ার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন ৭৯ সাঁতারু।

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বেলা পৌনে ১১টায় দেশের সর্বদক্ষিণ সীমান্ত টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের পশ্চিমপাড়া সমুদ্র সৈকত থেকে সাঁতার শুরু হয়।

৭৯জনের মধ্যে ৫৪ জন বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিতে সক্ষম হন। সাগর উত্তাল থাকায় বাকিরা পাড়ি দিতে পারেননি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম রাসেল সাঁতরে প্রথম সেন্টমার্টিন পৌঁছান।

আয়োজকরা জানান, বেলা পৌনে ১১টায় সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে বাংলা চ্যানেলে সাঁতার শুরু করেন ৭৯ সাঁতারু। তাদের মধ্য বিকেল ২টা ৩০ মিনিটে সেন্টমার্টিন দ্বীপে পৌঁছান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম রাসেল। সবচেয়ে কম সময়ে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেওয়ার গৌরবও অর্জন করেন তিনি। এর আগে গত বছর সাইফুল ইসলাম রাসেল তিন ঘণ্টা ২১ মিনিটে পাড়ি দিয়ে দ্বিতীয় হয়েছিলেন। এ ছাড়া এবার তিন ঘণ্টা ১৬ মিনিটে পাড়ি দিয়ে তৃতীয় হয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সালাহ উদ্দিন। এরপর পর্যায়ক্রমে বিকাল সাড়ে ৬টা পর্যন্ত ৫৪ জন দ্বীপে পৌঁছান।

এ বিষয়ে মুখপাত্র ও সাঁতারু মো. শামসুজ্জামান আরাফাত বলেন, ‘এবার একজন শিশু ও বিদেশি নাগরিকসহ আমরা ৭৯ জন সাঁতারু বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছি। তার মধ্য ৫৪ জন সাঁতরে সেন্টমার্টিন পৌঁছেছি। তবে সাগর উত্তাল থাকায় ২৫ জনের সাঁতরাতে সমস্যা হয়েছে। এ জন্য তাদের মাঝপথ থেকে ট্রলারে উদ্ধারকারীরা তুলে নেন।’

প্রসঙ্গত, প্রয়াত কাজী হামিদুল হক সমুদ্র সাঁতারের উপযোগী বঙ্গোপসাগরের এই বাংলা চ্যানেল আবিষ্কার করেন। ২০০৬ সালে প্রথমবারের আয়োজনে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেন লিপটন সরকার, ফজলুল কবির ও সালমান সাঈদ।


আরো খবর: