সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৩৫ অপরাহ্ন

শহীদ এটিএম জাফর স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষায় কৃতি শিক্ষার্থীদের সম্মাননা ক্রেস্ট দিলেন মন্ত্রী পরিষদ সচিব

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ২০, ২০১৯ ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ২০, ২০১৯ ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ

ফারুক আহমদ, উখিয়া ::

উখিয়ায় প্রথমবারের শহীদ এ.টি.এম জাফর আলম স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ কৃর্তি শিক্ষার্থীদের মাঝে সনদ ও সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দিলেন মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সচিব মোঃ শফিউল আলম।

শনিবার (২০ এপ্রিল) সকাল ৯টায় হলদিয়াপালং ইউনিয়নের রুমখাঁ ক্লাশপাড়া এলাকায় নবপ্রতিষ্ঠিত “শহীদ এ.টি.এম জাফর আলম স্কুল এন্ড কলেজ” মাঠে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে ১৯২জন বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সনদ, সম্মাননা ও নগদ অর্থ প্রদান করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রি পরিষদ সচিব মো: শফিউল আলম কোমলমতি শিক্ষার্থী উদ্দেশ্যে বলেছেন, শহীদ এ.টি.এম জাফর আলম একজন হলদিয়াপালং ইউনিয়নের সাধারণ পরিবারের সন্তান ছিলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিস্ট সহচর ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইকবাল হলে পশ্চিমা হানাদার বাহিনীর ব্র্যাশ ফায়ারে এটিএম জাফর শহীদ হন।

তিনি আরো বলেন, শহীদ জাফর আলম শিক্ষাজীবনে রুমখাঁপালং প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণিতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তিপ্রাপ্ত হন। পরবর্তীতে পালং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন।

মহেশখালী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মানবিক বিভাগে ম্যাট্রিকুলেশন করে চট্টগ্রাম কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে আইএসসি পাস করেন। তারপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিষয়ে অধ্যায়ন সম্পন্ন করেন। একজন মেধাবী ছাত্র হিসেবে প্রত্যেক পরীক্ষায় তিনি কৃর্তিত্বের স্বাক্ষর রাখেন।

মন্ত্রী পরিষদ সচিব স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে বলেন, রাষ্ট্রীয় কাজে কয়েকটি চিঠি নিয়ে বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে তিনি কলকাতা যান। সেখান থেকে ফেরার পরপরই ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের প্রথম প্রহরে পাক্বাহিনীর হাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইকবাল হলে প্রথম শহীদ হন শহীদ এ.টি.এম জাফর আলম। তিনি ছিলেন তদানীন্তন কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের অন্যতম নেতা ও মুক্তিযোদ্ধা। তাঁর মৃত্যু’র দুই মাস পর সিভিল সার্ভিস অব পাকিস্তান (সিএসপি)’র চিঠি এসে পৌঁছায়। মেধা অন্বেষণে আগামীতেও এই বৃত্তি কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান । অনুষ্ঠানের শুরুতে ‘শহীদ এ.টি.এম জাফর আলম স্কুল এন্ড কলেজের’ নামে একটি ভবন নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন মো: শফিউল আলম ।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, যথাক্রমে মো: শফিউল আলমের সহধর্মীনি ছৈয়দা শামীমা সুলতানা, মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের যুগ্ম সচিব শফিউল আযম, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক (ভারপ্রাপ্ত) আশরাফুল আবছার, উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: নিকারুজ্জামান চৌধুরী, উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো: আবুল খায়ের, এটিএম জাফর আলম স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা মুনীর আহমদ, শিক্ষক কামাল উদ্দিন, স্বাগত বক্তব্য রাখেন শহীদ এ.টি.এম জাফর আলমের ছোট ভাই ও হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ শাহ আলম।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উখিয়া সহকারী কমিশনার (ভুমি) ফখরুল ইসলাম, উখিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোক্তার আহমদ, অধ্যাপক জিয়াউল হক হান্নান, অধ্যাপক বেলাল উদ্দিন, উখিয়া সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি ফারুক আহমদ, শিক্ষক হাসান জামাল, হাকিম আলী কেজি স্কুলের প্রধান শিক্ষক মাষ্টার টিটুসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ।

পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন শিক্ষক মনোজ কুমার বড়ুয়া। মানপত্র প্রদান করেন শহীদ এটিএম জাফর আলম স্কুল এ- কলেজের শিক্ষক মো: মনজুর আলম শাহীন। সঞ্চালনা করেন আজিজুর রহমান।

উলেখ্য, শহীদ এ.টি.এম জাফর আলমের স্মৃতিকে ধরে
রেখে প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে গত ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার ৫ ইউনিয়নের শতাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডার গার্টেনের ১ম শ্রেণি থেকে ৪র্থ শ্রেণি পর্যন্ত ১০১৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেন।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::