শিরোনাম :
নুরুল হক, ইদ্রিস ও বেলায়েতের বিরুদ্ধে মামলা খারিজ, উচ্চ আদালতে যাচ্ছে ভুক্তভোগীরা ৬ ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহ উখিয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের নিরাপদ ব্যবহারে হেলপ কক্সবাজারের সচেতনতা ক্যাম্পেইন চকরিয়ায় যাত্রীবেশে বাসে ডাকাতির ঘটনায় ৬ জন গ্রেফতার উখিয়ায় অবৈধ করাতকল উচ্ছেদ, বিপুল পরিমাণ কাঠ জব্দ কক্সবাজার কারাগারে কয়েদির আত্মহত্যা মছ্লেহ উদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে টিএমসি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শোক পেকুয়ার যুবক আফ্রিকায় ডাকাতের গুলিতে নিহত টেকনাফে ৬টি সোনার বার ও মিয়ানমারের ৯৫০ কিয়াট মুদ্রা উদ্ধার চকরিয়ার ডুলাহাজারায় পাহাড় কেটে মাটি লুট : দুই ডাম্পার জব্দ
শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:৪৮ পূর্বাহ্ন

লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের খোলা মাঠে সন্তান প্রসব: নবজাতকের মৃত্যু

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: মে ১০, ২০১৮ ১:১৮ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: মে ১০, ২০১৮ ৫:০৪ পূর্বাহ্ণ

লোহাগাড়া প্রতিনিধিঃ
লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ঠাঁই না পেয়ে সামনে খোলা মাঠে মরিয়ম বেগম (২৬) নামের এক নারী সন্তান প্রসব করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।মাঠে সন্তান প্রসবের পর পরই নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে। ৯ মে বুধবার রাত সাড়ে ১০ টায় এ ঘটনা ঘটে। মরিয়ম বেগম (২৬) উপজেলার পুটিবিলা ইউনিয়নের গৌড়স্থান এলাকার দিন মজুর মহরম মিয়ার স্ত্রী।
রোগীর স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গৌড়স্হান এলাকার দিনমজুর মহরম মিয়ার স্ত্রী মরিয়ম বেগম প্রচন্ত ব্যথা নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বামী, শাশুড়ী ও বোনকে নিয়ে আসেন।
সে তখন প্রচন্ড ব্যাথায় ছটফট করছিলেন।কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ আবদুল্লাহ আল মামুন তাকে দেখার পর সিনিয়র নার্স ছায়া চৌধুরীর কাছে পাঠান।কিন্তু নার্স ছায়া চৌধুরী তাদের দূর্ব্যবহার করে (এখান থেকে বের হও) বলে বের করে দেন। পরে মরিয়ন বেগমের চাচী শ্বাশুড়ি আবিয়া খাঁতুন নিরোপায় হয়ে কান্না ভেঙ্গে পড়েন। তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতাল থেকে বের হতে না হতেই আরো প্রসব বেদনা বেড়ে যায়। হাসপাতালের সামনে মাঠের ওপর তার পুত্রবধুকে নিয়ে বসে পড়েন। পরে মাঠে সন্তান প্রসবের মিনিট দুয়েক পর শিশুটির দেহ হঠাৎ নিথর হয়ে যায়। তাৎক্ষনিকভাবে পদুয়া ইউপি চেয়ারম্যানের আন্তরিক সহযোগিতায় ও স্বজনেরা মরিয়ম বেগমকে উপজেলার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করান।তবে, তার প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে বলে জানা গেছে।
ঘটনার সংবাদ পেয়েই দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন পদুয়া ইউপির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জহির উদ্দিন। তিনি ঘটনাস্থলে এসে নবজাতক শিশুর মাকে লোহাগাড়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করার ব্যবস্হা করে দেন এবং আর্থিকভাবে সার্বিক সহযোগিতা করেন। মরিয়মের শাশুড়ি আবিয়া খাঁতুন কান্নাজড়িত কন্ঠে উক্ত প্রতিবেদককে বলেন,তিনি হাসপাতালের দ্বিতীয় তলায় তার পুত্রবধুকে ভর্তি করার জন্য নিয়ে যান।প্রচন্ড ব্যাথায় তখন ছটফট করছিলেন মরিয়ম বেগম।নার্স ছায়া চৌধুরীকে তিনি বললেন,অবাজি আর পুতর বউওত্তুন বেশী খুব ব্যাথা দেহা যার। তাড়াতাড়ি এক্কাগরি চাইবান্ন্যা। কিন্তু তার কথায় সাড়া না দিয়ে তার পুত্রবধু এবং তাকে নার্স ছায়া চৌধুরী দুর্ব্যবহার করে হাসপাতাল হতে বের করে দেন।তিনি এই নার্সের কঠোর শাস্তি দাবী করেন।এ ব্যাপারে হাসপাতালের সিনিয়র নার্স ছায়া চৌধুরী উক্ত প্রতিবেদককে বলেন, মরিয়ম বেগমের প্রচন্ড ব্যাথা দেখা দিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার কাছে পাঠান।এমন পেইন উঠলে নরমাল ডেলিভারী হয়।কিন্তু প্রসূতি মায়ের বাচ্চার ডান পা বের হয়ে যাওয়াতেই তাৎক্ষণিক চিকিৎসক ডাঃ আবদুল্লাহ আল মামুনকে বলেন।ওই সময় স্তনে হাত দিলে জরায়ু নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও তিনি জানান।তাই সাথে সাথে মরিয়ম বেগমকে চমেকে রেপার করে দেওয়ার জন্য কর্তব্যরত চিকিৎসকে তিনি অবহিত করেন।তবে,তিনি রোগীকে হাসপাতাল হতে বের করে দেননি বলেও দাবী করেন।উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ আবদুল্লাহ আল মামুন উক্ত প্রতিবেদককে জনান, গর্ভবতী মহিলা হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসলে তিনি সিনিয়র নার্স ছায়া চৌধুরীর কাছে পাঠান।তার লেবার পেইন উঠেছে। উক্ত মহিলার প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছিল।তার এই অবস্হা দেখে দ্রুত চমেকে রেফার করার কথা বলেন।
পদুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জহির উদ্দিন জানান,তিনি বিষয়টি শুনে হাসপাতালে ছুটে আসেন।সেখানে দেখতে পান হাসপাতালের বাইরে গর্ভবতী মরিয়মের প্রসব হয়েছে। বাচ্চা তাৎক্ষণিক মারা যান।তিনি প্রয়োজনীয় তদন্তপুর্বক এই ঘটনার সাথে জড়িতদের কঠোর শাস্তি দাবী করেন।
লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ হানিফ মুঠোফোনে উক্ত প্রতিবেদককে জানান ,বিষয়টি তিনি জানতে পেরেছেন।পদুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন তাকে ফোন করে ঘটনার সম্পর্কে জানিয়েছেন।গর্ভবতীর মহিলার অবস্হা আশংকাজনক দেখা দিলে তাকে রেপার করার সিদ্ধান্ত দিয়েছেন বলে এমনটাই কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে অবহিত করেছেন।তিনি আরো বলেন,
এই ঘটনা আমি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলেও তিনি জানান।এ ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করতে দেখা গেছে। বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন পথচারী ও স্হানীয় জনগণ।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::