রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ১২:০০ পূর্বাহ্ন

লামায় পারিবারিক নির্যাতনে গৃহবধুর বিষপানে মৃত্যু

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: জুন ৭, ২০১৮ ১১:২৯ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: জুন ৭, ২০১৮ ১১:২৯ পূর্বাহ্ণ

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, লামা ::
বান্দরবানের লামায় শশুর বাড়ির লোকজন কর্তৃক শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বিষপান করায় মোছাং আলপনা (২৫) নামে এক গৃৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৭ জুন) দুপুরে মুমূর্ষ অবস্থায় তাকে লামা হাসপাতালে আনা হলে গৃহবধুর অবস্থা আশংকাজনক হওয়া কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে কক্সবাজারে তার মৃত্যু হয়েছে।
বিষপানে নিহত মোছাং আলপনা লামা উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়নের মো. জাকের হোসেনের স্ত্রী ও সদর ইউনিয়নের মেওলারচর এলাকার তাজুল ইসলাম ও রওশন আরা বেগমের মেয়ে। সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানা যায়, নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।
নিহতের পরিবারের লোকজন বলেন, আলপনার স্বামী মো. জাকের হোসেন ৫/৬ মাস আগে ২য় বিবাহ করে। সে তার নতুন স্ত্রীকে নিয়ে চট্টগ্রামে বসবাস করে ও ১ম স্ত্রীর কোন দেখবাল করেনা। মাঝে মধ্যে বাড়িতে আসত এবং আলপনাকে অমানবিক নির্যাতন করত। পাশাপাশি আলপনার শশুর, শাশুড়ি, ননদ-দেবর সহ অন্যান্যরাও তাকে শারিরীক মানসিক নির্যাতন করত। বুধবার দিবাগত রাতে আলপনার স্বামী লামায় আসে। এছাড়া বুধবার আলপনার মা রওশন আরা বেগম মেয়েকে দেখলে তার শশুর বাড়িতে গেলে বেয়াই বাড়ির লোকজন খারাপ ব্যবহার করে এবং মারতে চায়। বৃহস্পতিবার সকালে নির্যাতন সইতে না পেরে আলপনা বিষপান করে বলে তারা দাবী করেন।
স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল মান্নান বলেন, শশুর বাড়ির লোকজন ভাল ব্যবহার করতনা মেয়েটির সাথে। সবসময় ঝগড়া লেগে থাকত তাদের বাড়িতে।
মেয়ের বাবা-মা দাবী করে বলেন, আমার মেয়েকে তারা মেরে ফেলেছে। আমি মেয়ে হত্যার বিচার চাই। মেয়ে শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
বিষপানে মৃত্যুর ঘটনায় লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ অপ্পেলা রাজু নাহা বলেন, পারিবারিক কলহের জের ধরে বিষপান করেছে বলে জেনেছি। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসলে প্রকৃত মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::