সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন

মহেশখালীর সড়কে গর্ত, বাজারে আবর্জনার স্তুপ, জনদূর্ভোগ চরমে, নিত্য ঘটছে দূর্ঘটনা

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ২৪, ২০১৮ ১:৫০ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ২৪, ২০১৮ ১:৫২ পূর্বাহ্ণ

ফরিদুল আলম দেওয়ান,মহেশখালী ::
মহেশখালীর হাটে বাজারে রাস্তার ধারে জন চলাচলের স্থানে ময়লা আবর্জনার স্তুপ ও গর্তে জমে থাকা পঁচা পানি থেকে ছড়ানো দূর্গন্ধে রাস্তায় হাটা চলা এখন রীতিমত দুস্কর হয়ে পড়েছে। অপর দিকে গেল বর্ষায় পাহাড়ী ঢলে প্রধান সড়ক ভেঙ্গে গিয়ে বেশ কটি ব্রীজ কার্লভাটঝুকীপূর্ণ হয়ে পড়েছে। এসব ব্রীজের উপর দিয়ে চরম ঝুকী নিয়ে চলছে যানবাহন। গত ২ /৩ অাগে হালকা গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে উপজেলার প্রায় সব হাট বাজারে জমে থাকা ময়লার ভাঘাড় গুলো পঁচে দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এছাড়া চলাচলের রাস্তায় কাঁদা মাড়িয়ে হাঁটা দুস্কর হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে স্থানীয় বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটি ও প্রশাসনের যেন কোন দায় দায়িত্ব নেই। ফলে জন দূর্ভোগ বাড়ছে দিন দিন।হোয়ানক ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি অাকতারুজ্জামান বাবুও টাইম বাজারের ব্যবসায়ি সুমন ঘোষ জানান, হোয়ানক টাইম বাজারের প্রধান সড়কে মসজিদের সামনে সামান্য বৃষ্টিতে পানি জমে ময়লা আবর্জনার বিশাল ভাগাড়ের সৃষ্টি হয়েছে। এর উপর দিয়ে প্রতিদিন কয়েকটি স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা হেঁটে যাতায়ত করতে হচ্ছে। তা ছাড়া হোয়ানক কৃষি ব্যাংক ও হোয়ানক পুলিশ বিটের সামনে প্রধান সড়কেরবিশাল গর্তে পারি জমে তা পঁচে দূর্গন্ধ সৃষ্টি হয়েছে। ওই গর্তে প্রতিদিন ঘটছে দূর্ঘটনা। অাজও টমটম দূর্ঘটনা হয়েছে। বাজারের ব্যবসায়িরা ময়লা আবর্জনার গন্ধ সহ্য করে বাজারে বসে ব্যবসা করতে বাধ্য হচ্ছে।জনপ্রতিনিধিরা নিজ এলাকার এমন দূর্দশার কোন খোঁজ খবর নিচ্ছেনা। স্থানীয় প্রশাসনও দেখেও না দেখার ভান করে রয়েছে।হোয়ানক টাইম বাজারে পুরো বাজার জুড়ে প্রায় অাধা কি: মি: জুড়ে রাস্তায় কাঁদা ও গর্তে পানি জমে থাকার কারণে পথচারী ও স্কুল কলেজ গামী ছাত্র ছাত্রীরা যাতায়াতে সীমাহীন দূর্ভোগে পড়েছে। এ বাজারে রাস্তার দুপাশের দোকান গুলো সামনের অংশ বৃদ্ধি করে ফুটপাত দখল করেরাস্তার উপর উঠে এসে ব্যবসা করলেও এদের বাঁধা নিষেধ করার জন্য যেন কেউ নেই। রাস্তায় গাড়ী চলাচলের সময় স্কুল গামী ছাত্রীদের প্রকাশ্য বাজারের দোকানের সামনে ঠাই দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এব্যাপারেস্থানীয় ভূক্তভোগীরা প্রশাসনের দৃষ্টি অাকর্ষণ করে জানান, নাগরিকভোগান্তির এ বিষয়ে প্রশাসন একটু নজর দিলে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রী ও পথচারি দূর্ভোগ থেকে মুক্তি পাবে এমনই আশা করেন সচেতন মহল।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::