শিরোনাম ::
উখিয়ার রোহিঙ্গা হিন্দু ক্যাম্পের দুর্গোৎসবে অর্থ সহায়তা প্রদান করেছে কোস্ট ফাউন্ডেশন। উখিয়ায় জাতীয় কন্যা শিশু দিবস পালিত কোটবাজার সিএনজি মালিক-চালক সমিতির কর্মকর্তাদের দুর্নীতি ও উপজেলা সমবায় অফিসারের স্বেচ্ছাচারিতা বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন উখিয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে কর্মশালা অনুষ্ঠিত সামাজিক সংহতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত উখিয়ার রাজা পালং মাদ্রসা দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রে নানা অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠিত মুক্তি কক্সবাজারের উদ্যোগে উখিয়ায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফ্রেন্ডশিপের প্রশিক্ষণে চ্যাম্পিয়ন ভালুকিয়া পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের নারী ফুটবল টিমকে সংবর্ধনা উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ!
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

ব্যবসায়ীকে হয়রানি—বৃহস্পতিবার কক্সবাজারে সব দোকান বন্ধ ঘোষণা

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: বুধবার, ৩০ মার্চ, ২০২২

বুধবার সন্ধ্যার মধ্যে দীর্ঘ ৩৫ বছরের ভাড়াটিয়াকে নতুন নির্মিত মার্কেটে চুক্তিকৃত দোকান বুঝিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছে কক্সবাজার দোকান মালিক সমিতি ফেডারেশন।

আজ বুধবার সন্ধ্যার মধ্যে দোকান বুঝিয়ে না দিলে আগামীকাল সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত কক্সবাজার শহরের সকল দোকান বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে সংগঠনটি । একই সময়ে শহরের এন্ডাসন রোডের জলিল মার্কেটের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে ব্যবসায়ীরা।

মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) রাতে কক্সবাজার দোকান মালিক সমিতি ফেডারেশনের কার্যালয়ে উপদেষ্টা ও ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় সভা শেষে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন ফেডারেশনের সভাপতি পৌরসভার প্যানেল মেয়র মাহাবুবর রহমান।

সভাপতি প্যানেল মেয়র মাহাবুবর রহমান বলেন, ‘১৯৮৭ সালে অ্যাডভোকেট আব্দুল জলিলের কাছ থেকে ব্যবসায়ীরা সালামীর ভিত্তিতে দোকান ভাড়া নেন। তারা দোকানের নিয়মিত ভাড়া পরিশোধও করেছেন। ২০১৯ সালে মূল মালিক অ্যাডভোকেট আব্দুল জলিলের মৃত্যুর পর তার ছেলে কলিম উল্লাহ ‘জলিল টাওয়ার’ নামে নতুন একটি মার্কেট নির্মাণের কথা বলে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নতুন সালামী নির্ধারণ করে চুক্তি করেন। মার্কেটটির নির্মাণকাজ শেষ হলেও গত তিন বছর ধরে কলিম উল্লাহ ভাড়াটিয়াদের দোকান বুঝিয়ে না দিয়ে হয়রানি করে যাচ্ছেন। এ ব্যাপারে বারবার মালিকের সাথে যোগাযোগ করা হলেও সমস্যা সমাধানে কোনো উদ্যোগ না নিয়ে হয়রানি অব্যাহত রেখেছেন। একই সঙ্গে ব্যবসায়ীরা প্রশাসককে অবহিত করেও কোনো কার্যকর ফলাফল পায়নি। এমন পরিস্থিতিতে দোকান বন্ধ রেখে অবস্থান কর্মসূচি ছাড়া আর কোনো পথ নেই।’

সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেমের সঞ্চালনায় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন- ফেডারেশনের উপদেষ্টা ফিরোজ আহমদ ওসমানী, শওকত ওসমান পিয়ারো, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, লাইব্রেরী সমিতির সভাপতি ওমর ফারুক, ইজি বাইক মার্কেটের সভাপতি রফিকুল ইসলাম, পুরাতন তরকারি শেডের সভাপতি মোহাম্মদ মোস্তফা, বৃহত্তর বার্মিজ মার্কেটের সভাপতি মুসা কলিম উল্লাহ, কৃষি অফিস সড়কের সভাপতি মোহাম্মদ সোহেল, বেকারি সমিতির সভাপতি নাসির উদ্দিন, হর্কাস মার্কেটের সভাপতি সামির উদ্দিন সুমন, বস্ত্র ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম সোহান ও সমবায় সুপার মার্কেটের সহ সভাপতি আমিনুল ইসলাম প্রমূখ।


আরো খবর: