শিরোনাম :
সুয়ারেজের বিদায়ে মেসির আবেগঘন বার্তা রিজার্ভ চুরির মামলার নোটিশ পেয়েছে সেই ক্যাসিনো পাকিস্তানেরগোয়েন্দা সংস্থার সাথে বিএনপির সম্পর্ক অনেক পুরনো: তথ্যমন্ত্রী এবার লন্ডনে থানার ভেতর পুলিশ কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যা ৫৪ হাজার রোহিঙ্গাকে পাসপোর্ট দিতে বাংলাদেশকে অনুরোধ জানিয়েছে সৌদি আরব: পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক চেষ্টায় রেলওয়ে তার হারানো যৌবন ফিরে পেয়েছে : রেলমন্ত্রী বর্তমান যুগে উন্নয়নের প্রধান হাতিয়ার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা: স্পিকার ইসরায়েল ইস্যুতে এবার ট্রাম্পকে এক হাত নিলেন সৌদি প্রিন্স বিএনপি প্রার্থীর প্রচারণায় হামলার অভিযোগ রিজভীর কোম্যানের উত্তরসূরি পেল নেদারল্যান্ডস
শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:২৭ অপরাহ্ন

বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে মামলা করতে পারবে

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: মে ১৭, ২০১৮ ১১:৪৩ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: মে ১৭, ২০১৮ ১১:৪৩ অপরাহ্ণ

মানবাধিকার লঙ্ঘন ও নিপীড়নের প্রতিকারের জন্য বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গারাও মিয়ানমারে মামলা করতে পারবে বলে জানিয়েছেন ওই দেশটির সমাজকল্যাণ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী ড. উইন মিয়াট আয়ে। গতকাল বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের রাজধানী নেপিডোতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় মিয়ানমারে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ তোলায় সেগুলো সুরাহার জন্য এ প্রক্রিয়া চালু করা হচ্ছে। তিনি বলেন, কিছু ব্যক্তিবিশেষের জন্য বাহিনী ও সংস্থাকে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ শুনতে হচ্ছে।

মিয়ানমারের মন্ত্রী বলেন, ‘অনেক গুরুতর অভিযোগ আছে। অপরাধ সংঘটনকারী ব্যক্তিবিশেষের তাতমাদোর (মিয়ানমার সেনাবাহিনী) বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। কিন্তু অপরাধ করে থাকলে করেছে ব্যক্তিবিশেষ। তাদের কারণে বাহিনীগুলোর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। ওই ব্যক্তিবিশেষদের শাস্তি পাওয়া উচিত, তাদের বাহিনীগুলোর নয়।’

তিনি বলেন, যারা প্রতিকার পেতে চায় তারা তাদের বর্তমান অবস্থান থেকেই তা চাইতে পারবে। তবে বিচারের সময় তাদের অবশ্যই মিয়ানমারে উপস্থিত হতে হবে। সাক্ষীদের আদালতে আনার সব খরচ মিয়ানমার বহন করবে।

উইন মিয়াট আয়ে বলেন, ‘আমরা ঘোষণা করেছি, যারা বাংলাদেশে পালিয়েছে তাদেরও এখন মামলা করার অধিকার আছে। আর এ বিষয়ে মিয়ানমার সরকার তাদের সহযোগিতা করবে।’

তিনি বলেন, অভিযোগগুলোর স্বচ্ছ তদন্তের লক্ষ্যেই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এদিকে ইরাবতি পত্রিকার সাংবাদিকরা রাখাইন রাজ্যে ধর্ষণের অভিযোগ পেলেও ফরেনসিক প্যাথলিস্টরা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর সেসব অভিযোগকে মিথ্যা বলে অভিহিত করেছেন।

গত বছরের ২৫ আগস্ট থেকে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের প্রায় সবাই রাখাইন রাজ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর ধর্ষণ, নির্যাতন-নিপীড়নের জোরালো অভিযোগ তুলেছে। জাতিসংঘের প্রতিবেদনেও বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত করতে নিরাপত্তা বাহিনী ধর্ষণকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করেছে। গত মাসে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ প্রতিনিধিদল মিয়ানমার সফরের সময়ও রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়নের অভিযোগগুলোর স্বচ্ছ তদন্ত করতে সু চির সরকার তাগিদ দেয়।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::