তারিখ: মঙ্গলবার, ১৯শে মার্চ, ২০১৯ ইং, ৫ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

Share:

॥ বলরাম দাশ অনুপম ॥

সবাই তো ভালোবাসা চায়, কেউ পায়, কেউ পায় না… ভালোবাসার আরেক নাম প্রেম। ভালোবাসার গভীরতাকে মোহ নামে আখ্যায়িত করেন অনেকে। স্নেহ-প্রীতির বন্ধন, প্রেম আর ভালোবাসার জন্য কি বিশেষ কোনো দিনের প্রয়োজন হয়! কিন্তু তারপরও পৃথিবীর অনেক প্রেমিক-প্রেমিকা পালন করে আসছে একটি দিন। আর সেই কাংখিত দিনটিই আজ-ভালোবাসা দিবস। হ্যাপি ভ্যালেন্টাইন্স ডে। প্রিয় বা প্রিয়ার মাঝে নিজেকে খুঁজে পাওয়ার দিন আজ। দিনটি আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা সবার জন্য হলেও প্রধানত তারুণ্যের জয়জয়কার ঘোষিত হবে আজ। আর সে জন্যই হয়তো লাজলজ্জা, সংকোচ আর ভীরুতা কাটিয়ে হৃদয়ের গহিনে অনেক দিনের সঞ্চিত প্রিয় বাক্য আমি তোমাকে ভালোবাসি বলে ফেলবেন কেউ কেউ। সোমবার ধরণীতে শুরু হওয়া বসন্তের উতল হাওয়ায় প্রেমকাতর হৃদয়ের রক্তরাঙা গোলাপটি তুলে দেবে প্রিয়ার হাতে। হিয়ার মাঝে বেজে উঠবে গান, আমি হৃদয়ের কথা বলিতে ব্যাকুল। এদিকে বিশ্ব ভালবাসা দিবসকে কেন্দ্র করে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের ঝাউবিথী আর বালিয়াড়িতে বসবে প্রেমিক-প্রেমিকাদের মিলনমেলা। প্রেমিক-প্রেমিকাদের বিশুদ্ধ ভালবাসায় আনন্দের উচ্ছাস আর বাঁধভাঙ্গা সুর নিয়ে প্রেমিক-প্রেমিকা জুটির পাশাপাশি ভালবাসার টানে সমুদ্র সৈকতসহ বিভিন্ন দর্শনীয় জায়গায় ঘুরে বেড়াবে আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা সকল বয়সের নর-নারী। কারো মনে থাকবে আনন্দ আবার কারো মনে বেদনা। সারি সারি ঝাউবাগানের মাঝে আর সমুদ্র সৈকতের বালিয়াড়িতে বসে প্রেমিক-প্রেমিকারা একে অপরকে ফুল আর উপহার বিনিময়ের মাধ্যমে নিজেদের মাঝে লুকিয়ে থাকা দীর্ঘদিনের সুখ-দুঃখ আর আনন্দ-বেদনার কথা ভাগাভাগি করে নেয়ার মোক্ষম সময় ১৪ ফেব্রুয়ারী। ১৪ ফেব্রুয়ারী কাক ডাকা ভোরে শুরু হয়ে ভালবাসা দিবসের রজনী শেষ না হওয়ার আগ পর্যন্ত প্রেমিক-প্রেমিকাকে, ছেলে মাকে, মা-বাবা সন্তানদের এবং ভাই-বোনের মধ্যে থাকবে প্রাণঢালা ভালবাসার আবেগ। আবেগের মাঝে হারিয়ে যাবে সকল প্রাণ।
(লেখক : সংবাদকর্মী, মোবাইল : ০১৮১৮-২০৫৭৬৩)।

আরো পড়ুন ::  কুরবানীর তাৎপর্য ও শিক্ষা

Share:

আপনার মতামত প্রদান করুন ::