শিরোনাম :
বাঁধ মেরামতে স্বস্তি পাচ্ছে কুতুবদিয়ার মানুষ কক্সবাজারে স্মার্ট ফোনের বাজার শুল্কফাঁকিতে আনা অবৈধ মোবাইলের দখলে কক্সবাজারে অর্ধশতাধিক সেবা প্রার্থীকে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট বিতরণ করলেন পুলিশ সুপার রামু থানা পরিদর্শন ও মাস্ক বিতরণ করলেন জেলা পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ প্রতিরক্ষা বেড়িবাঁধ পরিদর্শনে পানি সম্পদ সংসদীয় কমিটির সদস্য এমপি শাওন বিবিসি ১০০ নারীর তালিকায় রামুর মেয়ে রিমা সুলতানা রিমু কক্সবাজারে ৫ রেস্টুরেন্টেকে লক্ষাধিক টাকা জরিমানা কক্সবাজারে নারীর পেটে মিলল ৩ হাজার ইয়াবা : ডিএনসি‘র পৃথক অভিযানে আটক-৪ টেকনাফে ২০হাজার ইয়াবা উদ্ধার করল বিজিবি পেকুয়ায় ব্যক্তিগত অর্থায়নে কালভার্ট ও সড়ক সংস্কার
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১১:১৩ পূর্বাহ্ন

প্রথমে শ্লীলতাহানির মামলা, পরে আসামিকে ছাড়াতে তরুণীর কাণ্ড

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: নভেম্বর ২, ২০২০ ৬:০৬ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: নভেম্বর ২, ২০২০ ৬:০৬ পূর্বাহ্ণ

[ad_1]

ঢাকা, ০২ নভেম্বর -নানা প্রলোভন দেখিয়ে একটি ছেলে তার শ্লীলতাহানি করেছেন বলে প্রথমে মামলা করেন এক তরুণী। পরে তার অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ছেলেকে গ্রেপ্তারও করে পুলিশ। তবে ছেলেটিকে থানায় নিয়ে আসার পরপরই ঘটে অদ্ভুত এক ঘটনা। আসামি ছাড়াতে নিজেই থানায় হাজির হন মামলাকারী সেই তরুণী। সেইসঙ্গে করেন নানা কাণ্ড।

গতকাল রোববার রাজধানীর কাকরাইলের সেগুনবাগিচা রোডের রমনা মডেল থানায় ঘটেছে এমন ঘটনা। রমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রমনা থানা সূত্রে জানা যায়, নিজেকে মডেল ও অভিনেত্রী পরিচয় দেওয়া ওই তরুণী সিদ্ধেশ্বরী এলাকার মৌচাক মার্কেটের পাশে থাকা এক ছেলের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির মামলা করেন। মামলার অভিযোগে তিনি লিখেছেন, ছেলেটি নানা প্রলোভন দেখিয়ে তার শ্লীলতাহানি করেছেন।

এ ব্যাপারে ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা মেয়েটির অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা নিই। আসামি ধরার পর তিনি থানায় এসে বলেন, আসামিকে ছেড়ে দিতে হবে। পাশাপাশি আসামির কাছ থেকে টাকা আদায় করে দিতে হবে। তবে আমরা সাফ জানিয়ে দিই যে, টাকা আদায়ের কাজ পুলিশের নয়।’

‘একপর্যায়ে রাতে ওই তরুণী রাস্তায় শুয়ে সিনক্রিয়েট করেন। রাত ১টার সময় নিজ জিম্মায় ওই আসামিকে থানা থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান,’ যোগ করেন রমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন : গণপিটুনিতে নিহত: সেই মসজিদের খাদেমসহ আরও ৫ জন গ্রেফতার

জানা গেছে, রোববার দুপুরে আসামি ছেলেটিকে গ্রেপ্তারের পর থানায় আসেন ওই তরুণী। ছেলেটির কাছ থেকে টাকা আদায় করে দিতে পুলিশের কাছে আবদার করেন তিনি। তবে পুলিশ সাফ জানিয়ে দেয়, ‘মামলা হয়েছে, আসামিও ধরা হয়েছে। পরবর্তী কার্যক্রম আদালতের।’

তবে পুলিশের কথায় মন গলেনি তরুণীর। তার দাবি, গ্রেপ্তার নয়, বরং তাকে মোটা অংকের টাকা আদায় করে দিতে হবে পুলিশকে। একপর্যায়ে পুলিশ রাজি না হলে পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেন তিনি।

পুলিশের সঙ্গে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সড়কে শুয়ে পড়েন। কিছুক্ষণ পরপর গড়াগড়ি। আবার শুয়ে থাকার ভান। কিছুক্ষণ পর উঠে হাঁটাহাঁটি, আবার রাস্তায় ঘুমের ভান। সড়কে ওই তরুণীর এমন অদ্ভুত দৃশ্য দেখে ভিড় জমে যায় আশপাশে। সঙ্গে সঙ্গে তাকে নিরাপত্তা দিতে ঘিরে ফেললেন চারজন নারী পুলিশ। পরে নিজ জিম্মায় আসামিকে থানা থেকে নিয়ে যান ওই তরুণী।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, নানা প্রলোভনে ওই তরুণীকে ২০১২ সাল থেকে শ্লীলতাহানি করে আসছেন ওই ছেলে। এ বছরও একবার শ্লীলতাহানি করেছেন। তবে এই দীর্ঘ আট বছর কেন তিনি শ্লীলতাহানির মামলা করেননি-এ বিষয়ে পুলিশকে কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি ওই তরুণী।

সুত্র : আমাদের সময়
এন এ/ ০২ নভেম্বর



[ad_2]

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::