তারিখ: শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

Share:

কক্সবাজার পোস্ট পত্রিকায় প্রকাশিত ‘‘প্ল্যান ও ওয়ার্ল্ডভিশনের প্রত্যাবাসনের বিরুদ্ধে কার্যক্রম” বক্তব্যে ওয়ার্ল্ডভিশন কঠোরভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছে। উক্ত বক্তব্যটি ভিত্তিহীন ও অসত্য।

বাংলাদেশ সরকারের ’রিফিউজিদের নিরাপদে, সম্মানের সাথে ও স্বেচ্ছায় মায়ানমারে-পরিস্থিতি অনুকূলে সাপেক্ষে- প্রত্যাবাসনের নীতির’ সঙ্গে ওয়ার্ল্ডভিশন একাত্বতা জানায়। আমরা একটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ মানবিক প্রতিষ্ঠান যার শরাণার্থী প্রত্যাবাসন কোন কাজের সঙ্গে যুক্ত হবার সুযোগ নেই। প্রত্যাবাসনের কাজ হল সরকার এবং ইউনিএইচআর-এর, এবং শরণার্থীদের মায়ানমারে ফেরত যাওয়ার সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর
করে।

ওয়ার্ল্ড ভিশন কক্সবাজারে ৩০ বছর, বাংলাদেশে প্রায় ৫০ বছর ধরে শিশু, তার পরিবার ও কমিউনিটির জন্য বাংলাদেশে কাজ করে যাচ্ছে। আমরা বিশ্বস্ত উন্নয়ন অংশীদার হিসবে সামাজিক ও মানবিক কর্মকান্ড পরিচালনার সকল নিয়ম ও নীতিমালা অনুসরণ করে বাংলাদেশ সরকারের সাথে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

মানবিক সহায়তার নীতিমালা অনুসরন: স্থানীয় জনগোষ্ঠী ও শরনার্থীদের চাহিদা পূরণে বাংলাদেশ সরকারকে সহায়তা করাই আমাদের লক্ষ্য।

ওয়ার্ল্ড ভিশন আন্তর্জাতিক মানদন্ড মেনেই অত্যন্ত নিরপেক্ষভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। মানবিক উন্নয়ন সংস্থা হিসেবে আমরা কোনভাবেই সংঘাত সৃষ্টিকারী কোন পক্ষ কিংবা কোন রাজনৈতিক, ধর্মীয়, জাতিগত ও বিশেষ আদর্শিক জনগোষ্ঠীর পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করি না। আমাদের সহায়তা জাতি, বর্ণ, ধর্মীয় বিশ্বাস এবং রাজনৈতিক আদর্শের উর্দ্ধে সবার প্রতি সমানভাবে প্রযোজ্য।

ওয়ার্ল্ড ভিশন একটি খ্রিস্টান ত্রাণ, উন্নয়ন এবং অ্যাডভোকেসি সংস্থা যা শিশু, তার পরিবার ও কমিউনিটির দারিদ্র্য বিমোচন ও সকল অন্যায্যতা
দূরীকরণে নিরলস কাজ করতে বদ্ধপরিকর।

চলমান মানবিক সহায়তা প্রকল্পের মাধ্যমে ইতিমধ্যে স্থানীয় জনগোষ্ঠীসহ ৩৭০,০০০ মানুষকে নিরাপত্তা, খাদ্য সহায়তা, পুষ্টি, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন কার্যক্রমের মাধ্যমে সেবা প্রদান করা হয়েছে।

Share:

আপনার মতামত প্রদান করুন ::

error: কপি করা নিষেধ !!