শিরোনাম :
নাইট কোচে ডাকাতি: গ্রেপ্তারকৃত বাস চালক সহ তিনজনকে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন মহেশখালী থেকে ছিনতাই হওয়া মটরসাইকেল উদ্ধার : গ্রেফতার-১ টেকনাফে ১০হাজার ইয়াবা বড়িসহ আটক-১ কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পরিবেশ, পর্যটন ও উন্নয়ন বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত সেন্টমার্টিনে কোস্টগার্ডের অভিযানে ইয়াবা ও গাজাসহ আটক ২ উৎসবমুখর পরিবেশে উখিয়া প্রেসক্লাবের নির্বাচনের মনোনয়ন পত্র জমা স্বাস্থ্যবিধি না মানলে প্রয়োজনে কারাদন্ড দেয়া হবে-জেলা প্রশাসক চকরিয়ায় অবৈধ বসতি গুঁড়িয়ে দিয়ে এক একর সংরক্ষিত বনভূমি উদ্ধার কক্সবাজার সদরের ইসলামাবাদে কারের ধাক্কায় টমটম চালক নিহত পেকুয়ায় রাতে নির্মিত ৩টি অবৈধ স্থাপনা দিনে উচ্ছেদ
রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন

পেকুয়া জেনারেল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগে মামলা

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ২৫, ২০১৮ ৫:৩৪ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ২৫, ২০১৮ ৫:৩৪ পূর্বাহ্ণ

আবদুর রাজ্জাক,কক্সবাজার : পেকুয়া জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগে আদালতে মামলা হয়েছে। গতকাল মৃতের স্বামী এ মামলাটি দায়ের করে।

জানা যায় , আয়েশা বেগম (২৮) নামের এক প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর ঘটনায় কক্সবাজারের পেকুয়া জেনারেল হাসপাতালের ডাক্তার রুবেল সাদাত চৌধূরীকে ১ম ও হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোন্তাজির কামরান জাদিদ মুকুটকে ২য় আসামী করে গতকাল বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট আদালত,চকরিয়া,কক্সবাজারের নিকট নিহত প্রসূতির স্বামী ফজল করিম বাদি হয়ে ফৌজদারী অভিযোগ (যাহার নং-৩৯১/২০১৮ ইং) করলে আদালতের বিজ্ঞ বিচারক অভিযোগটি আমলে নিয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য অফিসার ইনচার্জ(ওসি) পেকুয়াকে নির্দেশ প্রদান করেন। নিহত প্রসূতি আয়েশা বেগম কক্সবাজার জেলার পেকুয়া উপজেলার রাজাখালী ইউনিয়নের হাজী পাড়া গ্রামের দিন মজুর ফজল করিমের স্ত্রী বলে জানা গেছে।
আরো জানা যায়,নিহত সাত মাসের অন্তঃস্বত্তা প্রসূতি আয়েশা বেগমের শারীরিক সমস্যা দেখা দিলে তার স্বামী ফজল করিম তাকে গত ১৪ এপ্রিল কক্সবাজার জেলার পেকুয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে হাসপাতালের এমবিবিএস চিকিৎসক রুবেল সাদাত চৌধূরী তাকে হাসপাতালে ভর্তি করার কথা বল্লে তার স্বামী তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। হাসপাতালে ভর্তির পর চিকিৎসক রুবেল সাদাত চৌধূরী তাকে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করানোর পর বলেন যে ,প্রসূতি আয়েশা বেগমের গর্ভের ভিতর বাচ্চার সমস্যা হয়েছে এবং এক্ষুনি একজন মহিলা গাইনী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দিয়ে ডিএনসি করে তা বের করতে হবে। এদিকে মহিলা গাইনী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দিয়ে ডিএনসি করার কথা থাকলেও ডিএনসি করেন খোদ ডাক্তার রুবেল সাদাত চৌধুরী নিজেই। ডিএনসি করার ১ঘন্টার পর থেকে আয়েশা বেগমের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে
চিকিৎসক রুবেল সাদাত তাকে তাড়াতাড়ি চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য বল্লে তার স্বামী তাকে গত ১৭ এপ্রিল দ্রুত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হ্সাপাতালে নিয়ে আসে এবং চিকিৎসারর ব্যবস্থা করে।এদিকে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসকরা আয়েশা বেগমকে বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা নিরীক্ষার পর বলেন যে, তার জরায়ুর মুখাবয় ও প্রসাবের নাশিকা কেটে ফেলায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হওয়ায় তার শরীরে প্রচুর রক্ত শুন্যতা দেখা দিয়েছে ফলে তার শরীরে প্রচুর পরিমান রক্ত দিতে হবে এবং রোগীর অবস্হা আশংকাজনক বলে জানান চিকিৎসকরা।এদিকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর দৈনিক ৫ পাউন্ড করে রক্ত দেয়ার পরও আয়েশা বেগম অবশেষে গত ১৯ এপ্রিল দিবাগত রাত ২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::