মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:১৫ পূর্বাহ্ন

পেকুয়ায় ২ টি কালভার্ট বিধ্বস্ত, সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ১৫, ২০১৯ ৯:৩৬ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ১৫, ২০১৯ ৯:৩৬ পূর্বাহ্ণ

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া ::

পেকুয়ায় ২ টি কালভার্ট বিধ্বস্ত হয়েছে। লবণ বোঝাই ট্রাকের ধাক্কায় এ ২ টি কালভার্ট বিকল হয়েছে। এতে করে উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের দক্ষিন মগনামা কাজী বাজার ও কালারপাড়া সড়কে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন রয়েছে। গত দেড় মাস আগে কাজীবাজার-কালারপাড়া গ্রামীণ সড়কের কাজী বাজার পয়েন্ট ও মৌলভীরদিয়া পয়েন্টে এ ২ টি আরসিসি কালভার্ট বিধ্বস্ত হয়েছে।

এ দিকে বিধ্বস্ত কালভার্ট দুটি জরুরী ভিত্তিতে পুন:সংষ্কারের জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর উদ্যোগ নেয়। চলতি অর্থ বছরে এলজিইডি এর সংষ্কারকাজ বাস্তবায়ন করতে অর্থ বরাদ্ধ দেয়। তারা সড়কের ২ পয়েন্টে আরসিসি কালভার্ট নির্মাণকাজ বাস্তবায়ন করতে কার্যাদেশ আহবান করে। হাকিম এন্ড ব্রাদার্স নামক ঠিকাদারী প্রতিষ্টান প্রকল্প কাজ বাস্তবায়ন করতে কার্যাদেশ পায়।

সুত্র জানায়, গত ১ মাস আগে কইড়াবাজার-কালারপাড়া সড়কের পৃথক পয়েন্টে কালভার্ট দুটি সংষ্কার কাজ বাস্তবায়ন করতে সড়কে মাটি খনন কাজ শুরু করে। মাত্র ২০০ গজের মধ্যে কাজী বাজারের একটু দক্ষিনে ও মৌলভীরদিয়ায় আয়েশা ছিদ্দিকা মহিলা মাদ্রাসার সংলগ্ন স্থানে অবস্থিত এ ২ টি পয়েন্টে সড়কে গর্ত করে ড্রেন করা হয়েছে।

প্রায় ১ মাস যাবৎ সড়কের এ দুটি গুরুত্বপূর্ন পয়েন্ট গর্ত হওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন রয়েছে। ওই সময় থেকে কইড়া বাজার ও কাজী বাজারের যোগাযোগ ব্যবস্থা থেমে গেছে। যানবাহন চলাচল দেড় মাস ধরে বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডির মালিকানাধীন মগনামার অন্যতম প্রধান সড়ক কালারপাড়া ও কাজী বাজারের যোগাযোগ ব্যবস্থা সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে। থেমে গেছে গাড়ী চলাচল। গত ১ মাস ধরে সংস্কার কাজ বাস্তবায়ন করতে সড়কের ২ টি পয়েন্ট গর্ত করায় এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে মানুষের যাতায়াতে।

১৯৯৮ সালে এলজিইডি ওই সড়কটি ব্রিক সলিনের আওতায় আনে। সে সময় থেকে দক্ষিন মগনামা কইড়া বাজার থেকে কাজী বাজার পর্যন্ত সড়কটি পাকা করনের মাধ্যমে সড়ক যোগাযোগ উন্নীতকরন করা হয়েছে। এ দিকে কাজী বাজার-কইড়াবাজার সড়কে ২ টি কালভার্ট বিকলসহ ওই স্থানে গর্ত তৈরী করায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়েছে। দক্ষিন মগনামা ও কাজী বাজারের যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত হয়েছে।

স্থানীয় সুত্র জানায়, ঠিকাদার কাজের কার্যাদেশ পেলেও সঠিক সময়ে কাজ বাস্তবায়নে ব্যর্থ হচ্ছে। অবহেলা ও কর্তব্যবোধের অভাববোধ করছেন ঠিকাদারের বিরুদ্ধে এলাকার মানুষ।

আতিক মাঝি, রহিমমুল্লাহ, বাদশা মাঝি ও ছরওয়ার মাঝিসহ লবণ ব্যবসায়ীরা জানায়, কালভার্ট দুটি বিকল হওয়ায় লবণ ব্যবসা থেমে গেছে। গাড়ী চলাচল নেই সড়কে। লবণ আমাদের অর্থনৈতিক সম্পদ। সড়কপথে পরিবহন হয়। গত দেড় মাস ধরে লবণ বিক্রি বন্ধ থাকায় মানুষের অর্থনৈতিক সংকট তৈরী হয়েছে।

মগনামা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্র গিয়াস উদ্দিন, দশম শ্রেনীর ছাত্র মিনহাজ, ৬ষ্ট শ্রেনীর ছাত্র সাকিবুল হাসান, সামিসহ ছাত্র-ছাত্রীরা জানায়, সড়কের মাঝখানে দুটি স্থানে ড্রেন তৈরী হয়েছে। গত কিছুদিন আগে বৃষ্টির সময় কাঁদা মাটিতে সড়কটি পিচ্ছিল হয়ে যায়। এ সময় পায়ে হেঁেটও এপার থেকে ওইপারে যাওয়া খুবই কঠিন ছিল।

হাজী মোহাম্মদুল হক, হাজী আজিজুল হক, জহিরুল হকসহ বৃদ্ধ ব্যক্তিরা জানায়, আমরা চরমভাবে দুর্ভোগে পড়েছি। প্রতিদিন বাড়ি থেকে কাজী বাজারে গিয়ে সময় পার করি। অথচ এখন হেঁটেও সেখানে যেতে পারছি না।

মগনামা ইউপির চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ ওয়াসিম জানায়, ইউএনও ও প্রকৌশলী সাহেব আমাকে কাজে সহায়তা করতে অনুরোধ করছিলেন। আমি দ্রুত কাজ বাস্তবায়ন স্বার্থে দুটি কালভার্ট স্থানে ছুটে গিয়েছিলাম। এখন তারা মাটি খনন করে গর্ত করেছেন। অথচ কাজ বাস্তবায়ন করছেন না। ঠিকাদারের অবহেলা ও দায়িত্ববোধে পরিচয় নেই তার কাছে। জনগনের অবস্থা অত্যন্ত কঠিন। কালভার্ট দুটি দ্রুত সময়ে নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন না হলে অধিক ক্ষতি হওয়ার সম্মুখীন হবে জনগন।

এলজিইডি পেকুয়ার প্রকৌশলী জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী জানায়, আমি ঠিকাদারকে বলেছি দ্রুত সময়ে কাজ শেষ করতে। চেয়ারম্যান সাহেব বিষয়টি অতি গুরুত্বের সহিত আমাকে বলেছেন। আমি অবশ্যই এ ব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ নেব।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::