শিরোনাম :
মৃত্যু নিশ্চিত করতে পর পর দুটি গুলি করেন ওসি প্রদীপ দীর্ঘদিন পর অনুশীলনটাকে চ্যালেঞ্জিং মনে হচ্ছে মুমিনুলের বৈরুতে নেতাদের ওপর ক্ষোভ বাড়লেও উদ্ধার কাজে এসেছে গতি দক্ষ ও প্রশিক্ষিত কৃষি-গ্রাজুয়েট তৈরি করতে হবে: কৃষিমন্ত্রী লাইসেন্সবিহীন হাসপাতাল-ক্লিনিকের তথ্য চেয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর অবশেষে করোনামুক্ত অভিষেক, এক মাস পর হাসপাতাল ছাড়লেন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের অনুসন্ধানে প্রবাসীদের সহযোগীতা চাইলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিনহা হত্যা মামলার ৪ আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদ, ৩ আসামীকে এখনো রিমান্ডে নেয়নি কেরালার বিমান দুর্ঘটনায় অলৌকিক ভাবে বেঁচে গেল এক পরিবার মাশরাফীর বাবা-মাসহ পরিবারের চারজন করোনায় আক্রান্ত
রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন

পেকুয়ায় ছাত্রী অপহরণ মামলার আসামী গ্রেফতার

নাজিম উদ্দিন,পেকুয়া::

প্রকাশ: July 7, 2020 9:12 am | সম্পাদনা: July 7, 2020 9:12 am

পেকুয়ায় অপহৃত কলেজ ছাত্রীর মামলার আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। স্থানীয়রা তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

৭ জুলাই (মঙ্গলবার) বিকেলে পেকুয়ায় কবির আহমদ চৌধুরী বাজার থেকে তাকে আটক করা হয়েছে।

আটককৃত ব্যক্তির নাম আলমগীর (৩০)। তিনি উপজেলার সদর ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড মইয়াদিয়ার আশরাফ মিয়ার ছেলে। পেকুয়া থানার ওসি কামরুল আজম আসামী গ্রেফতারের সত্যতা স্বীকার করেছেন।

ওসি জানান, ছাত্রী অপহরণ মামলার আসামীকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ আটক করতে সক্ষম হয়েছে। আসামীর বিরুদ্ধে পেকুয়া থানায় একটি মামলা রুজু আছে। যার নং ০৫/২০।

সুত্র জানায়, চলতি বছরের ১২ জুন পেকুয়ায় এক কলেজ ছাত্রী অপহৃত হয়েছে। ঘটনার দিন দুপুরে পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের মইয়াদিয়া গ্রাম থেকে ওই কলেজ ছাত্রী অপহৃত হয়েছে।

জন্নাতুল নাঈমা মুন্নী (১৭)কে একই এলাকার মৃত জহির আলমের ছেলে হুমায়ুন কবির, আশরাফ মিয়ার ছেলে আলমগীর ও আবছার প্রকাশ পুতুসহ তিন/চার জনের দুবৃর্ত্তরা ওই ছাত্রীকে মইয়াদিয়া থেকে একটি সিএনজিতে তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।

২৬ জুন পেকুয়া থানায় ওই ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একটি মামলা রেকর্ড হয়েছে। মামলার বাদী মইয়াদিয়া গ্রামের মৃত নুর আহমদের ছেলে আলী হোসেন। মামলায় প্রধান আসামী করা হয়েছে মৃত জহির আলমের পুত্র হুমায়ুন কবিরকে।

সুত্র জানায়, জন্নাতুল নাঈমা মুন্নী পেকুয়া শহীদ জিয়াউর রহমান উপকুলীয় কলেজের ছাত্রী। তার পিতা আলী হোসেন সদর ইউনিয়ন আ’লীগের ৩ নং ওয়ার্ড কমিটিতে সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত আছেন।

আলী হোসেন জানান, হুমায়ুন কবিরসহ অপরাপর আসামীরা আমার মেয়েকে ১ মাস আগে অপহরণ করেছে। বাড়ি থেকে বের হয়ে চাচার বাড়িতে যাওয়ার সময় বখাটেরা আমার মেয়েকে সিএনজিতে তুলে অপহরণ করে। ওই সময় থেকে মেয়ে নিখোঁজ রয়েছে। আসামী আলমগীরকে আমরা হাতে নাতে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেছি।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::