তারিখ: শনিবার, ২৩শে মার্চ, ২০১৯ ইং, ৯ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

Share:

পেকুয়া অফিস:
পেকুয়ায় চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হচ্ছেন উপজেলা আ’লীগ সাধারন সম্পাদক আবুল কাসেম। ২০১৯ সালে অনুষ্টিতব্য উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীতা ঘোষনা করছেন ক্ষমতাসীন দল আ’লীগের এ নেতা। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করতে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতা ঘোষনা করেছেন মাদার সংগঠনের এ নেতা। এ দিকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের হাওয়া পেকুয়ায় বেগবান হয়েছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচন শেষ হয়েছে। এবার শুরু হয়েছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আমেজ। সরকার এ নির্বাচনের তফশিল ঘোষনা করেননি। তবে চলতি বছরের মার্চে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্টিত হবে এ সংক্রান্ত পূর্বাভাস পাওয়া গেছে। উপজেলা পেকুয়ায় ওই নির্বাচনের আগাম হাওয়া বিরাজ করছে। এ নির্বাচনকে ঘিরে চেয়ারম্যান ও দুটি ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়তে প্রার্থীরা আগাম প্রস্তুতি শুরু করেছেন। ভাইস চেয়ারম্যান (নারী) ও পুরুষ পদ নিয়ে তেমন দৌড়ঝাপ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। তবে মুল পদ চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করতে একাধিক প্রার্থীর নাম পাওয়া যাচ্ছে পেকুয়ায়। এরই মধ্যে সবার আগেই প্রচার প্রচারনায় ব্যস্ত হচ্ছেন ক্ষমতাসীনদল আ’লীগের বর্তমান কমিটির পেকুয়ার সাধারন সম্পাদক আবুল কাসেম। তিনি নির্বাচন নিয়ে অত্যন্ত প্রাণবন্ত ও সর্বোচ্চ প্রচারনায় মাঠে নেমে পড়েছে। সম্প্রতি তার পক্ষে ডাক উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকসহ বিভিন্ন প্রচারনায় তার পক্ষে প্রচার পরিলক্ষিত হচ্ছে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে দেখতে চাই আবুল কাসেমকে এ সংক্রান্ত প্রচার চলছে তার ভক্ত অনুকুলে। অপরদিকে তাকে নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে দেখতে ব্যানার ও ফেস্টুনে প্রচার চলছে। পেকুয়া উপজেলার প্রাণকেন্দ্র সদর ইউনিয়নের অভিজাত পয়েন্টে তার প্রচারে ব্যানার টাঙ্গানো হয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নব নির্বাচিত সাংসদ জাফর আলমের ছবি সম্বলিত ব্যানার সাটানো হয়েছে। উপজেলা নির্বাচনে একমাত্র প্রার্থী হিসেবে আবুল কাসেম আগাম প্রচারনা শুরু করে। এ ছাড়া তিনি উপজেলার প্রত্যন্ত অ লে প্রচার ও গণসংযোগ কাজ ত্বরান্বিত করছেন। ১০ জানুয়ারী সন্ধ্যায় মগনামা ইউনিয়নে তিনি আগাম নির্বাচনী গণসংযোগে মিলিত হয়েছেন। এ সময় কাজী বাজারে দলীয় নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের লোকজন তার এ গণসংযোগে যোগ দিয়েছেন। পেকুয়ার রাজনীতিতে কাসেম একটি নাম। ছাত্র রাজনীতি দিয়ে তার সাংগঠনিক যাত্রা। মুজিবাদর্শের রনাঙ্গনের অন্যতম কর্ণধার। পেকুয়ায় আওয়ামী রাজনীতিতে আবুল কাসেম একজন নিবেদিত প্রাণ। জোট সরকারের সময় অনেক রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হন। প্রায় ২ বছরেরও বেশী সময় জেলে ছিলেন। প্রায় ১৬ টি মামলা ছিল জোট সরকারের সময়ে। এ সব মামলা রাজনৈতিক হয়রানির উদ্দেশ্যে ছিল। তার ৫ ভাইও সে সময় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হন। তারাও জেল জুলুম ও হয়রানির শিকার হয়েছেন। আওয়ামী রাজনীতির প্রাণ ভ্রমরা এ নেতা নীতি ও আদর্শতে অটুট ছিলেন। জেল জুলুম ও অবিচার তাকে আওয়ামী পথ চলা থেকে বিচ্যুত হতে দেয়নি। রাজনীতিতে একজন নির্ভীক মুজিবাদর্শের সৈনিক। তিনি চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হবেন এ প্রত্যাশা করছেন। মনোনয়ন হবে দলগত। তবুও তার অবস্থান ও সক্ষমতা জানিয়ে দিতে মাঠে সরব অবস্থান তৈরী করছেন। জানতে চাইলে উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আবুল কাসেম জানায়, আমি ও আমার পরিবার এ দলটির জন্য অনেক ত্যাগ ও তিতীক্ষা করেছি। মুল্যায়ন ও মুল্যবোধের সঠিক সময় এসেছে। আমি জনগন ও দলের সমন্বিত উদ্যেগ তৈরী হলে প্রার্থী হতে প্রস্তুত। দল মনোনয়ন দিবেন এ প্রত্যাশা করছি। তবে যাকে মনোনয়ন দেবেন তাকে নিয়ে কাজ করতেও কোন কুন্ঠাবোধ থাকবে না। দলের জন্য ত্যাগ করেছি, করব, ভবিষ্যতেও করে যাব।

Share:

আপনার মতামত প্রদান করুন ::