শিরোনাম ::
উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ! বান্দরবানের দুর্গম অঞ্চলে ঝরে পড়া শিশুদের জন্য উদ্বোধন শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের বান্দরবান দুই শতাধিক প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উখিয়ায় পালস’র উদ্যোগে বিশ্ব শান্তি দিবস পালিত সীমান্তে গুলির শব্দ থামছে না উখিয়ায় প্রশাসনের অভিযানে ৩টি ড্রেজার মেশিন ও ২টি বন্দুকসহ অস্ত্র উদ্ধার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আবারো খুন মুক্তি কক্সবাজার-এর উদ্যোগে ব্যবসায়ী ও উপকারভোগীদের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত পালস-এর উদ্যোগে “বর্ণবাদ-শান্তি ও সম্প্রীতির অন্তরায়” বিষয়ক বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:০৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

পেকুয়ায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা,বিক্ষোভে উত্তাল

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: সোমবার, ২৮ মার্চ, ২০২২

পেকুয়া প্রতিনিধি::

পেকুয়ায় জখমী সেই ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দায়ের হয়েছে মামলা। এর প্রতিবাদে রাস্তায় বিক্ষোভ করেছে হাজার হাজার মানুষ। মামলা ও হামলার প্রতিবাদে জনগন ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে।
তারা ইউপি চেয়ারম্যান ও আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং চেয়ারম্যানের উপর হামলার প্রতিবাদে পেকুয়ার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) এর উপসহকারী প্রকৌশলী আবদুল আলিমের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থাসহ অবিলম্বে মামলা রুজু করে তাকে গ্রেপ্তারের জোর দাবী জানানো হয়েছে। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আনীত গায়েবী মামলা প্রত্যাহার করা না হলে জনগন কঠোর কর্মসূচীর হুশিয়ারীও দিয়েছেন।

২৮ মার্চ (সোমবার) সন্ধ্যার দিকে চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুলের উপর হামলা ও মামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্টিত হয়।

রাজাখালী ইউনিয়নের সবুজ বাজারে এ বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে। মিছিল শেষে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্টিত হয়। এ সময় বক্তব্য দেন ইউনিয়ন আ’লীগের সহসভাপতি হাজী আবু তাহের, সহসভাপতি হাজী সেকান্দর, সাধারন সম্পাদক আবুল কাসেম আজাদ, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক এতারাফ চৌধুরী, যুবলীগ রাজাখালীর সভাপতি রিয়াজ খান রাজু, উপজেলা যুবলীগ নেতা জহির উদ্দিন, আনিছুর রহমান বাবুল, ইউনিয়ন আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল আলম, উপজেলা মৎস্যজীবিলীগের সহসভাপতি মনছুর আলম, কৃষকলীগ সাধারন সম্পাদক মো: সালাহ উদ্দিন, ওয়ার্ড আ’লীগ সভাপতি আবুল বশর, হাজী আবু তাহের মনু, ফজলুল কাদের, মো: ইদ্রিস সওদাগর, আবু বক্কর, ওয়ার্ড কমিটির সাধারন সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন, শামশুল ইসলাম, ছরওয়ার প্রমুখ। ছাত্রলীগ নেতা ইসমাইল জিহাদী, ইউপি সদস্য নেজাম উদ্দিন নেজু, আনোয়ার হোসাইন, হাজী গোলাম রহমান, ছমিউল্লাহ মেম্বার, রুহুল আমিন, নুরুল আলম, হোসাইন শহীদ সাইফুল্লাহ, বাদশাহ মেম্বার, মহিলা আ’লীগ নেত্রী ও ইউপির নারী সদস্য ছেনুয়ারা প্রমুখ।

এ সময় বক্তারা বলেন, চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুলের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ ও মামলায় আমরা হতাশ হয়েছি। এ মামলা মূলত গায়েবী ঘটনায় হয়েছে। এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী আবদুল আলিম একজন দুর্ণীতিবাজ ও ঘুষখোর কর্মকর্তা।

২৭ মার্চ দুপুরের দিকে চেয়ারম্যান পেকুয়ায় আ’লীগের বর্ধিত সভায় যাচ্ছিলেন। রাজাখালী ও বারবাকিয়া পারাপার আরসিসি সেতু পুন:সংষ্কারকাজ বাস্তবায়ন চলছিল। স্থানীয়দের উদ্যোগ ও অর্থসহায়তায় এ ব্রীজটির কাজ হচ্ছিল। সেখানে এলজিইডির ওই কর্মকর্তার সাথে চেয়ারম্যানের কথা হয়েছে। এক পর্যায়ে আবদুল আলীম নামক ওই কর্মকর্তা হঠাৎ চেয়ারম্যানকে ঘুসি মারে। এতে করে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়। চেয়ারম্যানকে মারধর করা হয়েছে। এ খবরে কয়েক হাজার মানুষ সেখানে জড়ো হন। এ সময় চেয়ারম্যান নিজেই এলজিইডির ওই কর্মকর্তাকে জনরোষ থেকে উদ্ধার করেন।

পরবর্তীতে ওই কর্মকর্তা বাদী হয়ে পেকুয়া থানায় একটি এজাহার প্রেরণ করেন। ওই এজাহারটি পুলিশ নিয়মিত মামলা হিসেবে রেকর্ড করে। আমরা মামলার খবর পেয়ে স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছি। একজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিকে কিল, ঘুসি মারা হয়েছে। চেয়ারম্যান হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। অথচ তার বিরুদ্ধে নেয়া হয়েছে গায়েবী মামলা। আমরা রাজাখালী বাসী মনে করছি এটি জনপ্রতিনিধির উপর চরম অবিচার। সরকারী কর্মচারী জনগনের কাছ থেকে বেতন নেন। জনপ্রতিনিধির উপর হাত ওঠানো এটি চরম দু:সাহস। নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান হয়েছেন। তিনি রাজাখালীর অত্যন্ত জনপ্রিয় চেয়ারম্যান।

এ ব্যাপারে ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আবুল কাসেম আজাদ বলেন, আমরা ওই ঘুষখোর কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা চাই। কিছুদিন আগে সড়ক উন্নয়ন কাজ হচ্ছিল নিন্মমানের। চেয়ারম্যান গিয়ে কাজ সঠিক ভাবে করতে পরামর্শ দিয়েছিলেন। লবণ পানি দিয়ে ঢালাইয়ের কাজ হচ্ছিল। সেখানে আবদুল আলীম নিজেই উপস্থিত ছিলেন। চেয়ারম্যান গিয়ে কাজ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এর প্রতিশোধ নিতে ওই দিন জনপ্রিয় চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুলের শরীরে হাত তুলেছে ওই আবদুল আলীম।

আমরা কর্মসূচীর দিকে যাচ্ছি। আজকে অনির্দিষ্টভাবে করেছি। হঠাৎ হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমেছে। জনগনের সংহতি ও অংশগ্রহণে প্রতীয়মান হচ্ছে নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল এ রাজাখালীবাসীর মাটি ও মানুষের নেতা। একজন সৎ জনপ্রতিনিধির উপর কাল্পনিক মামলা আমরা কোন ধরনের সমর্থন করতে পারিনা। রাস্তায় নেমেছি এর প্রতিবাদ আরো অধিক তীব্রতর হবে। কর্মসূচী হবে রাজাখালীসহ পেকুয়া উপজেলায়।


আরো খবর: