শিরোনাম ::
সামাজিক সংহতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত উখিয়ার রাজা পালং মাদ্রসা দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রে নানা অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠিত মুক্তি কক্সবাজারের উদ্যোগে উখিয়ায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফ্রেন্ডশিপের প্রশিক্ষণে চ্যাম্পিয়ন ভালুকিয়া পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের নারী ফুটবল টিমকে সংবর্ধনা উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ! বান্দরবানের দুর্গম অঞ্চলে ঝরে পড়া শিশুদের জন্য উদ্বোধন শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের বান্দরবান দুই শতাধিক প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উখিয়ায় পালস’র উদ্যোগে বিশ্ব শান্তি দিবস পালিত সীমান্তে গুলির শব্দ থামছে না
বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:০৫ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

পেকুয়ায় চেয়ারম্যানের উপর ইউপি সদস্য কর্তৃক হামলার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট: রবিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক:
কক্সবাজারের পেকুয়ায় প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ইউপি চেয়ারম্যানের উপর হামলার অভিযোগ উঠেছে একই ইউপির একজন ইউপি সদস্যের উপর। শনিবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলার সদর ইউপি কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ঘটনার দিন পেকুয়া সদর ইউনিয়ন পরিষদে প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচনের সময় ধার্য্য করা হয়। প্যানেল চেয়ারম্যান (১) এ ইউপি সদস্য শাহনেওয়াজ আজাদ এবং ইউপি সদস্য মো.ফোরকান প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। এতে ১৩ ভোটের মধ্যে শাহনেওয়াজ আজাদ ৮ ভোট এবং ফোরকান ৪ ভোট পায়। অপর ১টি ভোট নষ্ট হয়। নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী মো.ফোরকান তৎক্ষনাৎ ইউপি কার্যালয় ত্যাগ করে বেরিয়ে আসে। পরে তাঁর সংঘবদ্ধ দলবল নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান এম.বাহাদুর শাহ্সহ বেশ কয়েকজন ইউপি সদস্যদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

স্থানীয় লোকজন খবর পেয়ে ছুটে আসলে ইউপি সদস্য মো ফোরকান তার লোকজন নিয়ে ইউপি কার্যালয় ত্যাগ করেন। পরে ইউপি চেয়ারম্যান বাহাদুর শাহ্কে নিরাপদে স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি সদস্য মো ফোরকান বলেন, হামলার বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমি প্যানেল চেয়ারম্যানের ভোট শেষ হওয়ার পরপরই বাড়ি চলে যাই। উল্টো বিজয়ী প্রার্থীরা আমার সমর্থকদের উপর হামলা করে।
চেয়ারম্যান বাহাদুর শাহ বলেন, আমি এই ইউনিয়ন পরিষদের টানা তিন বারের চেয়ারম্যান।প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচন নিয়ে কোন সময় এধরণের সংঙ্ঘাত সৃষ্টি হয়নি। এবারে ব্যাতিক্রম কিছু দেখলাম। প্যানেল চেয়ারম্যান (১) এ দুজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। এতে পরাজিত প্রার্থী ক্ষিপ্ত হয়ে দলবল নিয়ে আমার রুমে ডুকে অর্তকিত হামাল করে। এ সময় বেশ কয়েকজন ইউপি সদস্যরা ও আহত হয়। আমি এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানের উপর হামলার ঘটনা শুনা মাত্রই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। লিখিত অভিযোগ পেলে ঘটনার তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরো খবর: