শিরোনাম :
সকল ষড়যন্ত্রের জাল ভেদ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাবেই: শামীম চুমু খেতেও ভয় পাচ্ছেন সালমান সুয়ারেজের বিদায়ে মেসির আবেগঘন বার্তা রিজার্ভ চুরির মামলার নোটিশ পেয়েছে সেই ক্যাসিনো পাকিস্তানেরগোয়েন্দা সংস্থার সাথে বিএনপির সম্পর্ক অনেক পুরনো: তথ্যমন্ত্রী এবার লন্ডনে থানার ভেতর পুলিশ কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যা ৫৪ হাজার রোহিঙ্গাকে পাসপোর্ট দিতে বাংলাদেশকে অনুরোধ জানিয়েছে সৌদি আরব: পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক চেষ্টায় রেলওয়ে তার হারানো যৌবন ফিরে পেয়েছে : রেলমন্ত্রী বর্তমান যুগে উন্নয়নের প্রধান হাতিয়ার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা: স্পিকার ইসরায়েল ইস্যুতে এবার ট্রাম্পকে এক হাত নিলেন সৌদি প্রিন্স
শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন

নাইক্ষ্যংছড়ি ও কচ্ছপিয়ায় প্রাহকদের বিদ্যুৎ হয়রানী বাড়ছে দিনদিন

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ২৮, ২০১৮ ৯:১১ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ২৮, ২০১৮ ৯:১২ অপরাহ্ণ

মাঈনুদ্দিন খালেদ,নাইক্ষ্যংছড়ি ::
অতিরিক্ত লোডশেডিং ও নানা হয়রানীতে নাইক্ষ্যংছড়ি ও কচ্ছপিয়ার কয়েক হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক। প্রধানমন্ত্রীর ১০ বিশেষ উদ্যোগ প্রকল্পে অবহেলা আর হয়রানী বাড়ছে দিনের পর দিন এখানে। বিদ্যুৎ আসে আর যায় এখানে । জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এ বছরে সরকারের অগ্রাধিকার এ প্রকল্পের এহেন দূরাবস্থায় এ কারণেই প্রশ্ন তুলেছেন সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা।

অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, ককসবাজারের রামুর বিদ্যুৎ সরবরাহের আবাসিক প্রকৌশলীর নিয়ন্ত্রনাধিন এলাকায় বিদ্যুৎ গ্রাহক সংখ্যা প্রায় সাড়ে ১১৩২০ জন । ভেীগলিকভাবে বিছিন্ন হলেও পাহাড়ি জনপদ নাইক্ষ্যংছড়ি ও কচ্ছপিয়া ইউনিয়ন এলাকাটি এ অফিসের অধীন এবং এখানে গ্রাহক সংখ্যা রয়েছে প্রায় ৪ হাজারের অধিক।

এ সব ফিডার পরিচালনায় বিদ্যুৎ অফিসের কর্তাদের সুবিধার জন্যে এ ৪ এলাকাকে ৪ ভাগে ভাগ করে বিদ্যুৎ বিতরণ করে আসছে তারা। এ ভাগ গুলো হলো ছিকলঘাট ফিডার,রামু সদর ফিডার,আর্মি ক্যাম্প ফিডার ও নাইক্ষ্যংছড়ি-কচ্ছপিয়া ফিডার। এই ৪ ফিডারের মধ্যে সেবার মান বলতে কিছুই নেই নাইক্ষ্যংছড়ি ফিডারে বা এলাকায়।

গ্রাহকরা আরো জানান, এখানে যখন-তখন লোডশেডিং হয়,যথা সময়ে বিদ্যুৎ বিল প্রাহকদের কাছে পৌছে না, আর পৌছলেও গড়মিল থাকে, অবৈধদের কাছ থেকে বিশেষ সুবিধা নিয়ে শতশত সাইট কানেকশন করে বিশেষ সুবিধা আদায়, অফিসে বসে মিটারের হিসেব দিয়ে বিদ্যুৎ বিল তৈরী, বিদ্যুৎ এর মিটার বসাতে বা পরিবর্তন করতে অবৈধ লেন-দেন,অফিসে কাজ বন্ঠন করে না দিয়ে অধিকাংশ কাজ নিজের হাতে কূক্ষিগত করে রেখে গ্রাকদের হয়রানী।

এছাড়া প্রাথমিক স্থরের স্কুল শিক্ষার্থীদের যাবতীয় পরীক্ষা সহ জেএসসি-এসএসসি-এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষা ছাড়াও প্রতিটি পরীক্ষার মনগড়া লোডশডিং দেয়া হয় আবাসিক প্রকৌশলীর কথা মতো। তিনি ককবাজার বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করে বিনা কারণে নাইক্ষ্যংছড়ি লাইনটি অপ করে রাখেন নিয়মিত। যাতে করে গ্রাহক হযরানী বাড়ছে দিনের পর দিন।

তারা আরো জানান, প্রচন্ড গরমে একদিকে বাতাস বিহীন পাহাড়ী এলাকার গরম পরিবেশ অন্যদিকে লোডশেডিং এর হয়রানী। সব মিলে অসম্ভব গরমে মানুষ সরকারের বিরোদ্ধে ফুঁেস উঠছে। তারা অভিযোগ করছেন, সরকারের প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ১০ প্রকল্পের মধ্যে এ বিদ্যুৎ প্রকল্পে এ সেবার বদলে চলছে এখন চলছে অসেবা আর হয়রাণী। এভাবেই অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে পাহাড়িজনপদের এসব মানুষ নিরীহ বাঙ্গালী আর শতশত উপজাতি।

জনপ্রতিনিধিরা জানান,বিচ্ছিন্ন এ এলাকার মানুষ গুলোর উপর এ ধরনের বিমাতা সূলভ আচরণে বিদ্যুৎ কর্মিরা নিরব থাকলেও দূর্নাম ঠিকই সরকারের ঝুঁড়িতেই জমা পড়ছে। তারা সন্দেহ করছেন[ বিদ্যুৎ অফিসে সরকারের দূর্নামর্সষ্টিকারী কোন দূষ্ট চক্র উৎপেতে আছে কি না।

এবিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধুরী জানান,কোন বা কাল বৈশাখী ছাড়া এতো ঘনঘন লোডশেডিং কেন হয় বোধে আসে না। রামু বিদ্যুৎ অফিসের এক অংশে বিদ্যুৎ থাকে আর নাইক্ষ্যংছড়ি অংশে বিদ্যু থাকে না। গ্রামের মানুষ সরকারের বিরুদ্ধে দূর্নাম রটানোর সুযোগ পাচ্ছে। অথচ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছাতে এবং পূর্বের গ্রাহকদের নিবিড় বিদ্যুৎ সরবরাহে বারবার বলে আসছেন। অথচ রামুতে তার বিপরীত।

কচ্ছপিয়া ইউনিয়ন সেচ্ছসেবক লীগ সভাপতি ও ফাক্রিকাটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মনিরুল আলমমনির অভিযোগ করে বলেন, পরীক্ষার সময় বিনা কারণে বারবার লোডশেডিং। কেন ! বৃষ্টি=বাদল নেই তেমন,অথচ ঘন্টার ঘন্টা বিদ্যুৎ কোথায় চলে যায়। একরে শিক্ষার্থী,শিক্ষক অভিভাবক অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে।

রামু বিদ্যুৎ অফিসের আবাসিক প্রকৌশলী নুরুল আলম ভূইয়া লোডশেডিং বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে তেমন কোন ভাল উত্তর দিতে না পারলেও শেষ পর্যন্ত তিনি এ প্রতিবেদকে জানান,কই লোডশেডিং তো তেমন হচ্ছে না ! তবে যা হচ্ছে তাও ককসবাজার (বিদ্যুৎ ) অফিসের মাধ্যমেই হচ্ছে ! এখানে তার কোন করনীয় নেই। আর অন্যান্য বিষয়ের ব্যাপারেও তিনি অনরূপ বক্তব্য দিয়ে নিজের দায়িত্ব এড়াতে চেষ্ঠা করেছেন এ প্রতিবেকের প্রশ্নের জবাবে।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::