শিরোনাম :
মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:১৬ পূর্বাহ্ন

ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা ১৪ বছরের মেয়ে, রাগে খুন করলেন বাবা!

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: অক্টোবর ৭, ২০২০ ৯:১৮ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: অক্টোবর ৭, ২০২০ ৯:১৯ পূর্বাহ্ণ

[ad_1]

লখনউ, ৭ অক্টোবর- ১৪ বছরের মেয়ে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ায় রাগে খুন করল তাঁর বাবা। লোমহর্ষক ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তর প্রদেশের শাহজাহানপুরের দুলহাপুর গ্রামের সিদহৌলি এলাকায়। জানা যাচ্ছে, মঙ্গলবার কিশোরীর মুণ্ডুহীন লাশ নদীর তীর থেকে উদ্ধার করে স্থানীয় পুলিশ। তারপরেই তদন্ত করে জানা যায় ১৪ বছর বয়সে অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার কারণে তাঁকে হত্যা করেছে তাঁর বাবা এবং ভাইয়েরা।

পুলিশ সুপার এস এস আনন্দ বুধবার (০৭ অক্টোবর) বলেন, ‘মঙ্গলবার সিদহৌলি এলাকার দুলহাপুর গ্রামে গ্রামবাসী একটি মেয়ের মস্তক বিহীন লাশ পেয়ে পুলিশকে জানায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশটি উদ্ধার করে। তদন্তে দেখা গেছে মেয়েটি ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিল। পরে মেয়েটির বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে খুনের ঘটনা বেরিয়ে আসে।’

জিজ্ঞাসাবাদে মেয়েটির বাবা পুলিশকে জানিয়েছেন, বেশ কয়েকমাস আগে তাঁর মেয়েকে ধর্ষণ করা হয়েছিল। পরিবারের সম্মানের কথা ভেবে সেই সময় পুলিশে অভিযোগ দায়ে করা হয়নি। কিন্তু পরবর্তীকালে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে পুরো এলাকায় খবরটি রটে যায়। পরিবারটিকে নিয়ে অনেকে হাসাহাসি, বিদ্রুপ করতে থাকে।

আরও পড়ুন: রাজনৈতিক জীবনে আরও এক নয়া রেকর্ড মোদির

মেয়ের কাছে কে ধর্ষণ করেছে, তার নাম জানতে চায় বাবা। কিন্তু মেয়েটি ভয় পেয়ে না বলায় তাঁকে মারধর শুরু করেন। এদিকে বোনকে বাঁচানোর বদলে বাবাকে সহযোগিতা করে বড় ভাইও। শেষমেষ শ্বাসরোধ করে কিশোরীকে হত্যা করা হয়। তবে এখানেই শেষ নয়, প্রমাণ লুকানোর জন্য মেয়েটির মুণ্ডুচ্ছেদ করে স্থানীয় একটি নদীর তীরে লাশ পুঁতে আসা হয়।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে অপরাধের কথা স্বীকার করলে ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। যদিও তাঁর ছেলে এখনো পলাতক। তাঁর খোঁজে এরই মধ্যে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে মেয়েটিকে কে ধর্ষণ করেছিল, সেটা জানতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

সূত্র: নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

আর/০৮:১৪/০৭ অক্টোবর



[ad_2]

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::