শিরোনাম :
৬ ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহ উখিয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের নিরাপদ ব্যবহারে হেলপ কক্সবাজারের সচেতনতা ক্যাম্পেইন চকরিয়ায় যাত্রীবেশে বাসে ডাকাতির ঘটনায় ৬ জন গ্রেফতার উখিয়ায় অবৈধ করাতকল উচ্ছেদ, বিপুল পরিমাণ কাঠ জব্দ কক্সবাজার কারাগারে কয়েদির আত্মহত্যা মছ্লেহ উদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে টিএমসি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শোক পেকুয়ার যুবক আফ্রিকায় ডাকাতের গুলিতে নিহত টেকনাফে ৬টি সোনার বার ও মিয়ানমারের ৯৫০ কিয়াট মুদ্রা উদ্ধার চকরিয়ার ডুলাহাজারায় পাহাড় কেটে মাটি লুট : দুই ডাম্পার জব্দ টেকনাফ-সেন্টমাটিন নৌপথ বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিবে ৪৩ সাঁতারু
বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৭:০৮ অপরাহ্ন

তরুণীদের লাশ মেলে, মেলে না পরিচয়

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: মে ৮, ২০১৮ ১০:৪২ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: মে ৮, ২০১৮ ১০:৪২ অপরাহ্ণ

সীমান্তবর্তী জেলা কক্সবাজারে প্রতিনিয়ত অজ্ঞাত মৃতদেহ পাওয়া যাচ্ছে। তার মধ্যে বেশীরভাগ সময় তরুণীদের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। কিন্তু তাদের মৃতদেহ পাওয়া গেলেও দীর্ঘদিনেও মিলেনা তাদের পরিচয়। সম্প্রতি দুই তরুণীর মৃতদেহ নিয়ে রীতি মতো হিমশিম খাচ্ছে পুলিশ।

উখিয়া উপজেলার আওতাধীন ইনানী সমুদ্র সৈকত থেকে গত বুধবার (মে ০২) দিবাগত রাতে অজ্ঞাত তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনার মঙ্গলবার (মে ০৮) ৬দিন অতিবাহিত হচ্ছে। কিন্তু এখনও ওই তরুণীর পরিচয় মেলেনি। মৃত্যুর কারণও জানাতে পারছে না পুলিশ। মৃতদেহটি বর্তমানে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. সেলিম উদ্দিন সিভয়েসকে জানান, তরুণীর মৃতদেহটি বুধবার ইনানী সমূদ্র সৈকত থেকে উদ্ধার করা হয়। সেসময় আশ-পাশের ব্যবসায়ী, নাইটগার্ডসহ অনেকের সঙ্গে কথা বলেছি। কিন্তু কেউ মেয়েটির পরিচয় জানাতে পারেনি। ওখানে কিভাবে তার মৃতদেহ এলো তাও জানাতে পারছে না কেউ।

পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য আমরা ইতোমধ্যে দেশের সব থানায় বেতার বার্তা ও ছবি পাঠিয়েছি। পাশাপাশি পত্রিকাগুলোতেও খবর প্রকাশ হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, মরদেহটি দেখে ধারণা হচ্ছে, তাকে বুধবারই হত্যা করা হয়েছে। তবে তার মৃত্যু কারণ কি, সেটি বলা সম্ভব হচ্ছে না। কারণ মরদেহটি লবণাক্ত পানিতে থাকার কারণে অনেক চিহ্নই নষ্ট হয়ে গেছে।

এদিকে উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের সিভয়েসকে বলেন, ‘সুরতাহালের প্রতিবেদনে তরুণীর শরীরে জখমের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে ওই তরুণীর মৃত্যুর কারণ জানতে ময়না তদন্ত প্রতিবেদনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। এরপর বিস্তারিত জানা যাবে। তার পরিচয় না পাওয়ায় একটু কঠিন হচ্ছে।
অন্যদিকে কক্সবাজার শহরের লাইট হাউস এলাকার হোটেল-মোটেল জোনে বিএম রিসোর্ট থেকে সুমী দাশ (২৩) নামে এক যুবতীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়। কিন্তু ২৮ দিন পার হতে চললেও ওই তরুণীর পরিচয় বা কোন ক্লোই বের করতে পারেনি পুলিশ।

পুলিশ ও রির্সোট সুত্রে জানা যায়, গত (১০ এপ্রিল) মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটার দিকে শহরের লাইট হাউজ এলাকার কটেজ জোন থেকে এক যুবতীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই যুবতীর সাথে গত সোমবার (৯এপ্রিল ) রাতে তার স্বামী পরিচয়ে রাহুল দাশ নামে এক যুবক রুম ভাড়া নেই। এরপর মঙ্গলবার দুপুর নাগাদ তাদের কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে পুলিশ খবর দেয় রির্সোট কর্তৃপক্ষ। পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে। এরপর থেকে রুমে থাকা স্বামী পরিচয়দারী যুবক রাহুল দাশ পলাতক রয়েছে।

তবে পুলিশ বলছে, কটেজ কর্তৃপক্ষ নিয়ম অনুযায়ী সঠিকভাবে পরিচয় লিপিবদ্ধ না করায় হত্যাকারীকে সনাক্ত করতে বেগ পেতে হচ্ছে। কটেজের রেজিষ্ট্রিারে লিপিব্ধ ঠিকানা অনুযায়ী নিহত যুবতী চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া উপজেলার হাতগাও গ্রামের রাহুল দাশের স্ত্রী। রাহুল দাশ ওই এলাকার জীবন দাশের ছেলে বলে উল্লেখ্য করা হয়।

এবিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ উদ্দিন খন্দকার সিভয়েসকে জনান, সঠিক পরিচয় না থাকায় হত্যাকারীকে আটকে ব্যাগ পেতে হচ্ছে পুলিশকে। পাশাপাশি ওই যুবতীর পরিচয়ও ভুল দেওয়া হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে। নিহত তরুণীর মৃতদেহ আনজুমানের মাধ্যমে দাফন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::