তারিখ: সোমবার, ১৭ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, ৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Share:

সেদিন ছিলো ১১ নভেম্বর। মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ। প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে। সেটাও ছিলো দুই টেস্ট সিরিজের শেষ টেস্ট। আর এবার প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেই একই মাসের শেষ সপ্তাহ, শেষদিন। এটাও দুই টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয় এবং শেষ টেস্ট। মিল আরো আছে; দুটো টেস্টের ভেন্যুই এক-মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম। তবে একই ভেন্যুতে একই মাসে দুই টেস্টের ম্যাচপূর্ব মেজাজে যে ভীষণ রকমের অমিল!

শুনি সেই ব্যাখা।

সেবার ০-১ ব্যবধানে পিছিয়ে ঢাকায় খেলতে নেমেছিলো বাংলাদেশ। ম্যাচের আগে মহা টেনশনে পুরো বাংলাদেশ দল! জিততেই হবে, নইলে জিম্বাবুয়ে যে টেস্ট সিরিজ জিতে নিবে। আর তাই সব অভিজ্ঞতা ঢেলে দিয়ে ঢাকায় জিতে টেস্ট সিরিজে সমতা আনে বাংলাদেশ দল।

এবার সমীকরণ ঠিক উল্টো। ৩০ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়া ঢাকা টেস্টে নামছে বাংলাদেশ সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে থেকে। এই ম্যাচ নেহাৎ ড্র করতে পারলেই টেস্ট সিরিজ বাংলাদেশের। সিরিজ বাঁচানোর যা টেনশন তার সবটুকুই ওয়েস্ট ইন্ডিজের। বাংলাদেশের মাটিতে প্রথমবারের মতো টেস্ট সিরিজে হারতে না চাইলে ঢাকা টেস্ট ওয়েস্ট ইন্ডিজকে জিততেই হবে।

ঠিক একমাসের মধ্যে ক্রিকেটীয় চাপের ভিন্ন দুই মেজাজ দেখলো বাংলাদেশ সিরিজ সমাপ্তির টেস্টে। তবে আপাত সুবিধায় থাকা এই মেজাজ যাতে দলকে আয়েশি না করে তোলে সেজন্যও যথেস্ট সতর্ক অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ভালই জানেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ ঘুরে দাড়াতে পারে। সিরিজ বাঁচাতে এই টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজ মরিয়া চেষ্টা চালাবে। তাই পুরো দলকে আগাম সতর্ক করে সাকিব বলছেন-‘ সিরিজটা ২-০ ব্যবধানে জেতার সুযোগ আমাদের সামনে আছে। তবে সেই সুযোগটা কাজে লাগাতে হলে এই টেস্টেও আমাদের কঠিন পরিশ্রম করতে হবে। সিরিজে পিছিয়ে থাকা ওয়েস্ট ইন্ডিজ স্বাভাবিকভাবেই শেষ টেস্টে ভাল কিছু করার জন্য উঠে পড়ে লাগবে। জেতার জন্য ওরা ওদের সর্বোচ্চ চেষ্টাই করবে নিশ্চয়ই। আমাদের জিততে হলে ওদের চেয়ে ভাল পারফর্ম করতে হবে।’

-সেই ভাল’র একটা বেঞ্চমার্কও ঠিক করে দিয়েছেন সাকিব,‘ চট্টগ্রামে যেই পারফরমেন্স করেছি আমরা এখানে জিততে হলে তারচেয়েও ভাল পারফরমেন্স করতে হবে।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/29/1543504161876.jpg

চট্টগ্রামে চার স্পিনার নিয়ে খেলা। একাদশে মাত্র একজন পেসার রাখা। পুরো ম্যাচে সেই একমাত্র পেসার মুস্তাফিজুর রহমানের দুই ইনিংসে দুটি করে মাত্র চার ওভার বল করা। প্রথমদিন থেকে উইকেটে স্পিন ধরা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ২০ উইকেটের সবগুলোই স্পিনারদের ঝুলিতে জমা পড়া। তিনদিনেরও কম সময়ের মধ্যে ম্যাচ শেষ হওয়া। বাংলাদেশ সেই টেস্ট ম্যাচ জিতলেও স্পিন আক্রমণে অতিমাত্রায় নির্ভরতা নিয়ে অনেক ভ্রু কুঁচকে প্রশ্ন তুলেছিলেন। সম্ভবত সেই সমালোচকদের দ্বিতীয় আরেকবার প্রশ্ন তোলার সুযোগ করে দিচ্ছে বাংলাদেশ! জেতার জন্য সেই একই কৌশল নিয়েই ঢাকা টেস্টে নামছে সাকিবের দল। স্পিন দিয়েই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আরেকবার কুপোকাত করার অপেক্ষা।

ম্যাচের প্রথমদিন টসের আগ পর্যন্ত আরেকটি অপেক্ষায় থাকছে বাংলাদেশ। আঙ্গুলের চোটে মুশফিক রহিমের এই টেস্টে খেলা নিয়ে সংশয় রয়েছে। তবে মুশফিকের ফিটনেসের জন্য টসের আগ পর্যন্ত অপেক্ষা করা হবে। ফিটনেস টেস্টে উতরে গেলে মুশফিক খেলবেন ঢাকা টেস্টে। নইলে ব্যাক আপ হিসেবে দলে ডাক পাওয়া উইকেটকিপার লিটন দাস চলে আসবেন একাদশে। তবে দলের ব্যাটিং লাইন আপ নিয়ে আগের সিদ্ধান্তেই আছে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট। লিটন খেললে তিনি লোয়ার অর্ডারে ব্যাট করবেন। আর সৌম্য সরকারের সঙ্গে ওপেনিংয়ে নামবেন জীবনের প্রথম টেস্ট খেলতে নামা সাদমান ইসলাম।

টেস্ট শুরুর আগের রাত থেকেই সাদমান মোবাইল ফোনে অভিনন্দন পেতে শুরু করেন। অভিনন্দন বাংলাদেশের ৯৪ নম্বর টেস্ট ক্রিকেটারকে।

ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ: সৌম্য সরকার, সাদমান ইসলাম, মমিনুল হক, মোহাম্মদ মিঠুন, সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম/ লিটন দাস, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, নাঈম হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমান।

Share:

আপনার মতামত প্রদান করুন ::