রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ১২:০৪ পূর্বাহ্ন

টেকনাফ পৌর শহরে প্রবেশপথে প্রধান সড়কের দৈন্যদশা

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ১৯, ২০১৯ ৯:১৯ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ১৯, ২০১৯ ৯:১৯ পূর্বাহ্ণ

হুমায়ূন রশিদ,টেকনাফ ::

পর্যটন নগরীর টেকনাফ পৌর উপশহরে প্রবেশের প্রধান সড়কের জীর্ণদশায় পর্যটকসহ সাধারণ জনমনে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সড়ক জুড়ে গর্ত সৃষ্টি হওয়ায় যানবাহন নিয়ে চলাচলে মহাদুর্ভোগ সৃষ্টি হচ্ছে। পৌরসভার প্রবেশদ্বার নাইট্যং পাহাড় নেমেই ২ কিলোমিটারেরও বেশী সড়ক শুধু খানা-খন্দকে ভরে রয়েছে। সড়কের এমন দৈন্যদশায় সাধারণ মানুষ ক্ষুদ্ধ হলেও মুখ ফুটে বলার সাহস পাচ্ছেনা।

উপজেলার বিভিন্ন প্রান্ত হতে মডেল থানা হতে থানার ভেতরে ঐতিহাসিক মাথিনের কূপ, উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা, দৃষ্টিনন্দন ট্রানজিট জেটি, বাস টার্মিনাল, সরকারী কলেজ, বড় মাদ্রাসা এবং বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক-বীমাসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করে। এই কারণেই টেকনাফ পৌরসভার ভাল রাস্তা ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার গুরুত্ব খুব বেশী। এদিকে রোহিঙ্গা সেবায় নিয়োজিত এনজিও সংস্থা সমুহের বেশীর ভাগই অফিস এই পৌর শহরেই। বিকালে এসব কর্মীরা কাজ শেষ করে গন্তব্যে ফিরতে গিয়েই এই সড়কের খানা-খন্দকের ঠেলায় খুবই বিরক্তবোধ করে।
পৌর এলাকার এক তরুণ ব্যবসায়ী ক্ষোভের সুরে বলেন,বছরের পর বছর সড়কের এই ধরনের অবস্থা পৌরবাসীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত লোকদের নাভিশ্বাস উঠে।

পুরাতন পল্লান পাড়ার নজরুল ইসলাম বলেন, বছরের প্রায় সময় পৌর শহরে দেশী-বিদেশী পর্যটকের সমাগম ঘটে। রোহিঙ্গা আগমণের পর থেকে কারণে অকারণে প্রায় সময় ভিআইপি ডেটিগেটের পদচারণা দেখা যায়। সেই তুলনায় রাস্তা-ঘাটের করুণ দশা দূর করা দরকার।
পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা নুর বখত জানান, থানা রোড়, নাইট্যংপাড়া থেকে শাপলা চত্বর, শাপলা চত্বর থেকে কেন্দ্রীয় ঈদগাহ, পানির ফোয়ারা থেকে কায়ুকখালী ব্রীজ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি সড়ক চলাচলের অযোগ্য হয়েছে পড়েছে। চলাচলে সাধারণ মানুষের যেমন সমস্যা হচ্ছে তার চেয়েও বেশী রিকসা এবং ইজিবাইক নিয়ে রোগীদের চলাচল মুশকিল হয়ে পড়েছে।
রিকসা চালক শব্বির জানান,ছোট্ট ছোট্ট গর্তে গাড়ী চালানোই মুসিবত। তারপরেও পেটের দ্বায়ে রিকসা চালিয়ে যাচ্ছি। পৌরসভার অধিবাসী আলমগীর নামের এক ব্যবসায়ী জানান, আমরা ঠিক সময়ে পৌর কর আদায় করলেও সড়ক সংস্কার ব্যবস্থাপনায় পৌর কর্তৃপক্ষ অনিয়মিত।

উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া বলেন,পৌর মেয়র অযথা সওজের বাহানা দিয়ে নিজের দায় এড়িয়ে চলার চেষ্টা করছেন। তিনি আরো বলেন, পৌর কর্তৃপক্ষ চাইলে একদিনেই এই সড়ক সংস্কার করা সম্ভব।

এই বিষয়ে জানতে টেকনাফ পৌরসভার মেয়র হাজ¦ী মোহাম্মদ ইসলামের মুঠোফোনে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি মোবাইল রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন পৌর কাউন্সিলর সড়কের বেহাল অবস্থার কথা অকপটে স্বীকার করেন।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রবিউল হাসান জানান, এখানে সওজ এবং পৌরসভার মধ্যে সড়ক সংস্কার নিয়ে সমস্যা দেখা দিয়েছে। জেলা সমন্বয় সভায় বেশ কয়েকবার পৌর সড়ক মেরামতের কথা উত্থাপন করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, দ্রুত সময়ে পৌর সড়ক সংস্কারের জন্য মেয়রকে অবহিত করবেন।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::