মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:১১ পূর্বাহ্ন

চকরিয়ায় স্বামীর হাতে কলেজ ছাত্রী স্ত্রী খুন

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ১৮, ২০১৯ ২:০৬ পূর্বাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ১৮, ২০১৯ ২:০৬ পূর্বাহ্ণ

চকরিয়া প্রতিনিধি ::

চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের (মালুমঘাট) ১নং ওয়ার্ডের রিংভং ছগিরশাহ কাটায় যৌতুকের দায়ে স্বামীর হাতে স্ত্রী ফাতেমা বেগম(২২) নিহত হয়েছেন।

১৮ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকালে পরিকল্পিতভাবে খুনের ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, স্বামী মিজানুর রহমান রিংভং ছগিরশাহ কাটা দক্ষিণ পাহাড় গ্রামের মৃত ছাবের আহমদের পুত্র।

ঘটনা সূত্রে নিহতের ছোট বোন আশরাফা বিলকিস জানান, নিহত ফাতেমা চকরিয়া মহিলা কলেজের ডিগ্রী ফাইনাল বর্ষের ছাত্রী। আমার বড়বোনকে খুনি মিজান যৌতুকের জন্য প্রায় সময় জালাতন করতো।খুনি মিজানের মা কিছু আগে আমার বোনকে মেরে বাড়ী থেকে বের করে দেয়। তাই আমার পিতা নিহত বোনকে কিছুদিন আগেও ২০হাজার টাকা দিয়েছিল।

এরপরও গত ৪/৫দিন পূর্বে আমার নিহত বোন ফাতেমা কেদেঁ-কেদেঁ ফোন করে ১লক্ষ টাকা চাইছিল। আজ সকালে আমার বোনকে চকরিয়া মগবাজার বাসাতে ইচ্ছামত মারধর করলে বোন অজ্ঞান হয়ে গেলে পরে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করেছে।

হত্যার পরে অপরিচিত দুইজন লোক চকরিয়া স্বাস্হ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে এনে দিয়ে চলে যায়। পরে আমার খুনি বোন জামাই আমাদের এক আত্নীয় রুমাকে ভোরে ফোনে বলেছে তোমার বোন ফাতেমা বেহুশ হয়েছে গেছে। তখন রুমা আমার বাড়ীতে খবর দিলে আমরা হাসপাতালে এসে মৃত অবস্হায় দেখতে পায়।

স্বামী মিজানকে তার বন্ধুরা তার স্ত্রী বেচেঁ আছে বলে ডেকে এনে লোকজন তাকে আটকিয়ে রেখে পুলিশকে খবর দিলে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

হাসপাতালের ইনচার্জ ডাঃ শাহবাজ বলেন, সকাল প্রায় ১০টার সময় এক মহিলাকে ২জন লোক আনলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেছে। তখন আমাকে বললে আমিও নিজেই দেখেছি।

চকরিয়া থানার এস আই মফিজুর রহমান জানান,খুনের বিষয়ে হাসপাতাল থেকে থানায় খবর দিলে আমি এসে দেখি খুনি স্বামী মিজানকে আটকে রেখেছে। তখন মিজানকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যায়।

পরে থানা ওসি তদন্ত এসএম আতিক উল্লাহ হাসপাতালে নিহতকে দেখতে আসেন।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::