তারিখ: রবিবার, ৫ই এপ্রিল, ২০২০ ইং, ২২শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম

Share:

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া::

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধকল্পে চকরিয়া উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলাজুড়ে সর্বোচ্চ সর্তকতা বাড়ানো হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমানের নেতৃত্বে উপজেলা প্রশাসন গেল এক সপ্তাহধরে উপজেলার ১৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এলাকার সর্বস্তরের জনগনের সুরক্ষা নিশ্চিতে জনসচেতনতামুলক নানামুখী প্রদক্ষেপ গ্রহন করেছেন।
সরকারি সিদ্বান্তের আলোকে সারাদেশের মতো চকরিয়া উপজেলার প্রতিটি জনপদে সবধরণের দোকানপাট বন্ধ রেখেছেন প্রশাসন। দুইদিন ধরে চকরিয়া উপজেলার প্রতিটি জনবহুল স্টেশনে বন্ধ রয়েছে সবধরণের দোকানপাট। কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কসহ সকল আভ্যন্তরিন সড়কে কমে গেছে সবধরণের যানবাহন। এতে সাধারণ মানুষের চলাচল সীমিত হয়ে পড়েছে। তবে ওষুধ, মুদির দোকান, খাদ্যদ্রব্য দোকান ও সেবামুলক প্রতিষ্ঠান হাসপাতাল, বিদ্যুত বিভাগ, পুলিশ স্টেশন যথারীতি চালু রয়েছে।
অপরদিকে সরকারি নির্দেশনার আলোকে সংক্রমণ সময়ে যাতে চকরিয়া উপজেলার প্রতিটি হাট-বাজারে চালসহ নিত্যপন্য বিক্রিতে বাজার স্থিতিশীল থাকে সেইজন্য ইউএনও শিবলী নোমান ও সহকারি কমিশনার মো.তানভীর হোসেনের নেতৃত্বে উপজেলাজুড়ে বাজার মনিটরিং কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে উপজেলার একাধিক পয়েন্টে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করেছেন। অনেকে ব্যবসায়ীকে পন্য মজুদ ও অতিরিক্ত মুল্য আদায়ের অভিযোগে জরিমানাও করেছে আদালত।
অন্যদিকে মরণব্যাধী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে চকরিয়া উপজেলা ও পৌরসভা এলাকায় পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত সবধরণের দোকানপাট বন্ধ থাকবে বলে ঘোষনা দিয়েছেন স্থানীয় প্রশাসন। তবে সর্বস্তরের মানুষের দৈনন্দিন জীবনে জরুরী প্রয়োজন থাকায় প্রতিটি জনপদে খোলা থাকবে ঔষধ, মুদির খাদ্যদ্রব্য দোকান। চকরিয়া পৌরশহরের বাণিজ্যিক নগরীতে সচেতনতামুলক ক্যাম্পেইনে চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমান এ ঘোষনা দিয়েছেন।
উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে সপ্তাহকাল আগে থেকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিত্যপণ্যের বাজার মনিটরিং কার্যক্রম চালু করেছে চকরিয়া থানা পুলিশ। সহকারি পুলিশ সুপার (চকরিয়া সার্কেল) কাজী মতিউল ইসলাম, চকরিয়া থানার ওসি মো.হাবিবুর রহমান এবং ওসি তদন্ত একেএম সফিকুল আলম চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশের একাধিক ইউনিট বর্তমানে করোনা ভাইরাস বিস্তার প্রতিরোধে চকরিয়া উপজেলার ১৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এলাকার প্রতিটি জনপদে মনিটরিং কার্যক্রম শুরু করেছেন।

Share: