শিরোনাম :
সকল ষড়যন্ত্রের জাল ভেদ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাবেই: শামীম চুমু খেতেও ভয় পাচ্ছেন সালমান সুয়ারেজের বিদায়ে মেসির আবেগঘন বার্তা রিজার্ভ চুরির মামলার নোটিশ পেয়েছে সেই ক্যাসিনো পাকিস্তানেরগোয়েন্দা সংস্থার সাথে বিএনপির সম্পর্ক অনেক পুরনো: তথ্যমন্ত্রী এবার লন্ডনে থানার ভেতর পুলিশ কর্মকর্তাকে গুলি করে হত্যা ৫৪ হাজার রোহিঙ্গাকে পাসপোর্ট দিতে বাংলাদেশকে অনুরোধ জানিয়েছে সৌদি আরব: পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক চেষ্টায় রেলওয়ে তার হারানো যৌবন ফিরে পেয়েছে : রেলমন্ত্রী বর্তমান যুগে উন্নয়নের প্রধান হাতিয়ার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা: স্পিকার ইসরায়েল ইস্যুতে এবার ট্রাম্পকে এক হাত নিলেন সৌদি প্রিন্স
শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৫৬ অপরাহ্ন

চকরিয়ার খুটাখালীতে নামের মিল থাকায় দর্জি দোকানি বন মামলার আসামী!

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ১৩, ২০১৯ ৮:১৯ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ১৩, ২০১৯ ৮:১৯ অপরাহ্ণ

সেলিম উদ্দীন, ঈদগাঁও::

নামের কারণে যমে ধরেছে কথাটি পুরনো হলেও বর্তমানে আসামীর নামের সাথে নিরাপরাধ মানুষের নামের মিল থাকায় অনেক সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক হয়রানীর পাশাপাশি অনেকে আবার কারাভোগও করেছে। ঠিক এমনিভাবে বন মামলায় হয়রানির শিকার দর্জি দোকানদার মো: আবদু শুক্কুর।

আবদু শুক্কুর চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড জয়নগর পাড়ার ড্রাইভার জালাল আহমদের পুত্র। পেশায় দর্জি দোকানদার। সে দীর্ঘ ৫ বছর ধরে বাজারের পূর্ব পাড়া সড়কে ওয়েলকাম টেইলার্স নামে একটি ছোট্র দর্জি দোকান করে দিনাতিপাত করছে। মিথ্যা মামলার কারনে বর্তমানে সে দোকানঘর বন্দ করে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

জানা যায়, আবদু শুক্কুর পেশায় দর্জি দোকানদার হলেও খুটাখালী বালু মহালে অবৈধ সেলু মেশিন জদ্ধের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় দু দুবার আসামী হয়েছে। বিগত ২৬ জানুয়ারী কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের আওতাধিন খুটাখালী বনবিট কর্মকর্তাসহ উর্দ্ধর্তন কর্মকর্তারা অভিযান চালিয়ে বেশকটি মেশিন-পাইপ জদ্ধ করেন।

এতে তাকে সু পরিকল্পিতভাবে ৪নং আসামী করা হয়। মামলা নং-০৩ খুটা-ফুল-১৯। মামলায় গ্রেফতারের ওয়ারেন্ট ইস্যু হওয়া অভিযুক্ত আসামীর নাম-ঠিকানার সাথে মো: আবদু শুক্কুরের নাম-ঠিকানার মিল থাকলেও পিতার নাম রয়েছে জালাল ড্রাইভার।

যা নিয়ে এলাকাতে মো. আবদু শুক্কুর ও তার পরিবারের উপর এক ধরনের অজানা নেতিবাচক মনোভাব তৈরি হয়েছে।

মামলার হয়রানির ব্যাপারে মো. আবদু শুক্কুর বলেন, অবৈধ কাজের সাথে জড়িত না হয়েও বারবার আসামীর খাতায় নাম তুলছে বনবিভাগ। একইভাবে বার বার মুল আসামী না হলেও বালু লুটের মামলায় আসামী হওয়ায় এলাকার মানুষ ভাবছে-আমি অপরাধী।

এখন আমার ভিতরেও অজানা ভয় কাজ করছে। প্রতিবারই কিছু না কিছু টাকা খরচ হচ্ছে। পরিবার আমাকে নিয়ে সবসময় অজানা এক আতঙ্কে থাকে।

এ ব্যাপারে ফুলছড়ি সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) বেলায়ত হোসেনের সাথে টেলিফোনে কথা হলে তিনি জানান, এটা অনেক আগের ঘটনা। আমি খোঁজ-খবর নিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি বলে আশ্বস্থ করেন।

তার পরিবারের দাবি, এইভাবে আবদু শুক্কুরকে বার-বার হয়রানি বা সমাজের চোখে অপরাধী না বানিয়ে প্রকৃত অপরাধীকে গ্রেফতার করে, সকল তথ্য-উপাত্ত যাচাই-বাচাই করে তাকে অজানা আতঙ্ক থেকে মুক্ত করার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্থক্ষেপ কামনা করা হয়।

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::