শিরোনাম ::
উখিয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে কর্মশালা অনুষ্ঠিত সামাজিক সংহতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত উখিয়ার রাজা পালং মাদ্রসা দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রে নানা অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠিত মুক্তি কক্সবাজারের উদ্যোগে উখিয়ায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফ্রেন্ডশিপের প্রশিক্ষণে চ্যাম্পিয়ন ভালুকিয়া পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের নারী ফুটবল টিমকে সংবর্ধনা উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ! বান্দরবানের দুর্গম অঞ্চলে ঝরে পড়া শিশুদের জন্য উদ্বোধন শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের বান্দরবান দুই শতাধিক প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উখিয়ায় পালস’র উদ্যোগে বিশ্ব শান্তি দিবস পালিত
শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৪২ অপরাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

খায়রুজ্জামানকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো যাবে না : ইউএনএইচসিআর

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: শনিবার, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২২

মালয়েশিয়ার গ্রেপ্তার হওয়া সাবেক হাইকমিশনার মোহাম্মদ খায়রুরুজ্জামানকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো যাবে না বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর)।

বাংলাদেশ সরকার তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছে। তবে সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এম খায়রুজ্জামান জাতিসংঘের শরণার্থী কার্ড নিয়ে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করায় তাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো সম্ভব নয়। কারণ এটা হবে আন্তর্জাতিক আইনের পরিপন্থী।

শনিবার (১২ ফেব্রুয়ারি) স্থানীয় গণমাধ্যমে এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানিয়েছে ইউএনএইচসিআর।

ইউএনসিএইচআর দেশটির সংবাদমাধ্যমে পাঠানো মেইল বার্তায় জানিয়েছে, মালয়েশিয়ার সরকার তাকে তাদের মূল দেশে ফেরত পাঠাতে পারে না, কারণ এতে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হবে। শরণার্থী পুনর্বাসন আইন অনুযায়ী, সরকার কোনো শরণার্থীকে এমন কোনো স্থানে পাঠাতে পারে না যেখান তার জীবন হুমকির মুখে পড়বে। শরণার্থীদের মর্যাদা সম্পর্কিত ১৯৫১ সালের কনভেনশন চুক্তি অনুযায়ী, উক্ত আইনটি সব দেশের জন্য পালন করা বাধ্যতামূলক।

বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে এম খায়রুজ্জামানকে বুধবার (৯ ফেব্রুয়ারি) মালয়েশিয়া রাজধানী কুয়ালালামপুরের আমপাংয়ের নিজ বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে দেশটির অভিবাসন পুলিশ। অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা এম খায়রুজ্জামান ১৯৭৫ সালের জেলহত্যা মামলায় অভিযুক্ত ছিলেন এবং পরে খালাস পেয়ে ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় মালয়েশিয়ায় হাইকমিশনার নিযুক্ত হন।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার ক্ষমতায় আসার পর তাকে ঢাকায় ফিরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। পরে ঝুঁকি নিয়ে খায়রুজ্জামান কুয়ালালামপুরে জাতিসংঘের শরণার্থী কার্ড পেয়ে যান এবং সেখানেই থেকে যান।

মালয়েশিয়ার বার কাউন্সিলের অভিবাসী এবং শরণার্থী কমিটির সহ-সভাপতি বলেন, কোনো ব্যক্তিকে জাতি, ধর্ম বা রাজনৈতিক কারণে তার জীবন বা স্বাধীনতার জন্য হুমকির সম্মুখীন হলে সরকারের তাকে ফেরত পাঠানো উচিত নয়।

এর আগে, খায়রুজ্জামানের স্ত্রী রিতা রহমান বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তার গ্রিন কার্ডের আবেদন মঞ্জুর করেছে কিন্তু মালয়েশিয়ার পুলিশের নিরাপত্তা যাচাইয়ের অপেক্ষায় ছিল, যা অনেক আবেদন করেও প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে।


আরো খবর: