শিরোনাম ::
উখিয়ার রোহিঙ্গা হিন্দু ক্যাম্পের দুর্গোৎসবে অর্থ সহায়তা প্রদান করেছে কোস্ট ফাউন্ডেশন। উখিয়ায় জাতীয় কন্যা শিশু দিবস পালিত কোটবাজার সিএনজি মালিক-চালক সমিতির কর্মকর্তাদের দুর্নীতি ও উপজেলা সমবায় অফিসারের স্বেচ্ছাচারিতা বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন উখিয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে কর্মশালা অনুষ্ঠিত সামাজিক সংহতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত উখিয়ার রাজা পালং মাদ্রসা দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রে নানা অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠিত মুক্তি কক্সবাজারের উদ্যোগে উখিয়ায় নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফ্রেন্ডশিপের প্রশিক্ষণে চ্যাম্পিয়ন ভালুকিয়া পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের নারী ফুটবল টিমকে সংবর্ধনা উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ!
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

ক্যাম্পে ছয় রোহিঙ্গা হত্যায় জড়িত আরেক রোহিঙ্গার স্বীকারোক্তি!

ইমরান আল মাহমুদ,উখিয়া
আপডেট: বুধবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২২

ইমরান আল মাহমুদ,উখিয়া:
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সিক্স মার্ডার মামলার আরও এক আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ৮এপিবিএন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(মিডিয়া) মো. কামরান হোসেন।

তিনি জানান, গত ১৮ জানুয়ারি দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ৮এপিবিএন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সিহাব কায়সার খানের নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার আশফাকুজ্জামানের তত্বাবধানে ক্যাম্প-১৮ এর জি-৪৫ ব্লকে অভিযান চালিয়ে কালা মিয়ার ছেলে আব্দুল মালেক (২৫) কে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

তিনি আরও জানান,গ্রেফতারকৃত আব্দুল মালেক কে এপিবিএন কর্তৃক জিজ্ঞাসাবাদে সে ৬জন রোহিঙ্গা হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করে এবং হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করে। সর্বশেষ আব্দুল মালেক কে গ্রেফতারপূর্বক তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই এর মাধ্যমে আদালতে প্রেরণ করা হলে সে অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শ্রীজ্ঞান তঞ্চঙ্গাঁ এর আদালতে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার বিষয়টি স্বীকার করে গত ১৯ জানুয়ারি ফৌজদারি কার্যবিধি-১৮৯৮ এর ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। এর আগে আলোচিত ৬জন রোহিঙ্গা হত্যার পর থেকে ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন এবং খুনীদের গ্রেফতারে তৎপর হয়ে গত ৭ ডিসেম্বর জানে আলম নামে আরেক আসামী বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় প্রথম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।
৮ এপিবিএন কর্তৃক এ পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত গ্রেফতারকৃত আসামির সংখ্যা ২১ জন বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত ২২ অক্টোবর ক্যাম্প-১৮ এর “দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল ইসলামিয়া” মাদ্রাসায় একটি সংঘবদ্ধ রোহিঙ্গা দুষ্কৃতিকারী দলের নৃশংস হামলায় ৬জন রোহিঙ্গা নিহত হয়। যা সিক্স মার্ডার নামে সারাদেশে আলোচনা সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই ৮এপিবিএন মামলাটির রহস্য উদঘাটন ও অপরাধীদের গ্রেফতারপূর্বক আইনের আওতায় আনার জন্য কঠোর নজরদারি অব্যাহত রেখেছে।


আরো খবর: