রবিবার, ০৫ জুলাই ২০২০, ১১:০৯ পূর্বাহ্ন

কাশ্মীরে বিশেষ পায়রা, পাক চর সন্দেহে সতর্কতা জারি

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: মে ২৫, ২০২০ ৩:৫৯ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: মে ২৫, ২০২০ ৩:৫৯ অপরাহ্ণ


কাশ্মীর, ২৬ মে- পাকিস্তান সীমান্তের কাঠুয়া এলাকায় সন্দেহজনক একটি পায়রা ধরা পড়েছে। তার পায়ে একটি নম্বর দেওয়া গোল দাগ রয়েছে। পরে পায়রাটিকে নিরাপত্তা কর্মীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

জম্মু ও কাশ্মীর এলাকায় গুপ্তচরদের ধরা পড়া কোনও নতুন ঘটনা নয়, তবে সোমবার কাঠুয়ার হিরানগর থানার পুলিশের হাতে ধরা পড়ে একটি পায়রা। পায়রাটির পায়ে একটি গোলাপি রং এর কাপড়ের টুকরো ও ট্যাগ রয়েছে, তাকে ‘সন্দেহভাজন পাক চর’ বলে থানায় নেয়া হয়েছে।

তাকে সীমান্তপার থেকে গুপ্তচরবৃত্তির কাজে লাগানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সন্দেহভাজন পায়রাটিকে উঁচুতে খাঁচা করে নিরাপদে রাখা হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে আন্তর্জাতিক সীমান্ত লাগোয়া চাড়ওয়াল জেলার গীতাদেবীর বাড়িতে উড়ে আসে। তিনিই পায়রাটিকে ধরেন। পরে পায়রাটির পায়ে একটি গোলাকার রিং দেখতে পান তিনি। রিং এর ওপরে একটি ফোন নম্বর রয়েছে।

পরে গ্রামপ্রধান পায়রাটিকে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হাতে তুলে দেন, পরে তাকে স্থানীয় হিরানগর থানার পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয় বলে জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা। এখনও পর্যন্ত পায়রাটির মধ্যে অস্বাভাবিক কিছু দেখতে পাওয়া যায়নি, তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখছে জম্মুর বিশেষ শাখা।

কাঠুয়ার পদস্থ পুলিশ কর্মকর্তা শৈলেন্দ্র মিশ্র এনডিটিভি বলেন, আমরা বলতে পারব না যে এটা গুপ্তচরের কাজে লাগানো হয়েছিল। স্থানীয়রা এর পায়ে একটি টুকরো দেখতে পেয়েছেন এবং পায়রাটিকে ধরেন। কয়েকজন সেটিকে কোড বার্তা বলেছেন। পাকিস্তানের পঞ্জাবে, মালিকানার জন্য পায়রার পায়ে কাপড়ের টুকরো বেঁধে রাখেন।

তবে অতীতে কিছু পায়রায় পাকিস্তানের বার্তা পাওয়া গিয়েছে। এক আরেক কর্মকর্তা বলেন, এটা স্পর্শকাতর এলাকা, কারণ এটি আন্তর্জাতিক সীমান্তবর্তী। এই পথে অনুপ্রবেশও খুবই নিয়মিত ব্যাপার।

তিনি বলেন, বার্তা পাঠাতে সীমান্তপার থেকে পাখি ব্যবহার করা হয়। পাখিরা সাধারণভাবে সন্দেহজনক হয় না। তারা তাদের কাজ করে কোনও আওয়াজ না করে, এটা একটা সতর্কতা।

সূত্র: জাগোনিউজ

আর/০৮:১৪/২৬ মে




কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::