শিরোনাম :
বাঁধ মেরামতে স্বস্তি পাচ্ছে কুতুবদিয়ার মানুষ কক্সবাজারে স্মার্ট ফোনের বাজার শুল্কফাঁকিতে আনা অবৈধ মোবাইলের দখলে কক্সবাজারে অর্ধশতাধিক সেবা প্রার্থীকে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট বিতরণ করলেন পুলিশ সুপার রামু থানা পরিদর্শন ও মাস্ক বিতরণ করলেন জেলা পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ প্রতিরক্ষা বেড়িবাঁধ পরিদর্শনে পানি সম্পদ সংসদীয় কমিটির সদস্য এমপি শাওন বিবিসি ১০০ নারীর তালিকায় রামুর মেয়ে রিমা সুলতানা রিমু কক্সবাজারে ৫ রেস্টুরেন্টেকে লক্ষাধিক টাকা জরিমানা কক্সবাজারে নারীর পেটে মিলল ৩ হাজার ইয়াবা : ডিএনসি‘র পৃথক অভিযানে আটক-৪ টেকনাফে ২০হাজার ইয়াবা উদ্ধার করল বিজিবি পেকুয়ায় ব্যক্তিগত অর্থায়নে কালভার্ট ও সড়ক সংস্কার
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০২:১৯ পূর্বাহ্ন

কলকাতার বস্তিতে ভয়াবহ আগুন, ঘটনাস্থলে মমতা

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: নভেম্বর ১০, ২০২০ ১:১৩ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: নভেম্বর ১০, ২০২০ ১:১৩ অপরাহ্ণ

[ad_1]

কলকাতা, ১০ নভেম্বর- তপসিয়ায় ঝুপড়িতে বিধ্বংসী আগুন৷ পুড়ে ছাই প্রায় ১০০ টি ঝুপড়ি৷ দাবি স্থানীয়দের৷ অপরদিকে কলকাতা পুলিশ জানিয়েছে ৫০-৬০ টি ঝুপড়ি পুড়েছে৷ সংখ্যাটা যাই হউক,কালীপুজোর আগে বিধ্বংসী আগুনে বহু পরিবারকে ঘরছাড়া হতে হল৷ যদিও সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছে রাজ্য সরকার।

দমকল সূত্রে খবর,মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে তিনটা নাগাদ তপসিয়ায় আগুন লাগে৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে প্রথমে দমকলের ৫ টি ইঞ্জিন পাঠানো হয়৷ পরে দফায় দফায় আরও ১৩ টি ইঞ্জিন পৌঁছায় ঘটনাস্থলে৷ মোট ১৮ টি ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয় আগুন নেভানোর কাজে৷ কয়েক ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে৷ তবে কোনও হতাহতের খবর নেই৷

এদিন তপসিয়ায় ২৪ নম্বর বাসস্ট্যান্ড লাগোয়া খাল পাড়ের ঝুপড়িতে আগুন লাগে৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সঙ্গে যান দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু ও স্থানীয় বিধায়ক জাভেদ খান৷ সেখানে কার্যত মানবিক মুখে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পুড়ে যাওয়া ঝুপড়ি বাসীদের সঙ্গে কথা বলেন।

সবরকম সাহায্যের আশ্বাস দেন তিনি। অন্যদিকে, অভিযোগ ঝুপড়িতে দাহ্য পদার্থ থাকায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে৷ প্রথমে স্থানীয় বাসিন্দারাই আগুন নেভানোর কাজে হাত লাগান৷ পাশের খাল থেকে জল তুলে আগুন নেভানোর চেষ্টা করা হয়৷ পরে দমকল পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে৷

ঘটনাস্থলে যায় কলকাতা পুলিশের বিপর্যয় মোকাবিলা দল৷ বিধ্বংসী আগুনে হতাহতের খবর না থাকলেও, আগুনের গ্রাসে সহায় সম্বল হারিয়েছে বহু পরিবার৷ আগুন লাগার সঙ্গে সঙ্গে ঝুপড়ির বাসিন্দাদের সেখান থেকে সরিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে৷

প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, এলাকার রঙের কারখানায় প্রথমে আগুন লাগে। সেখান থেকেই তা ছড়িয়ে পড়ে৷ তবে কোথা থেকে কিভাবে আগুন লেগেছে, তার তদন্তে নেমেছে দমকল ও পুলিশ৷

অন্যদিকে ঘটনাস্থলে এক তৃণমূল নেতাকে মারধর করে দলীয় কর্মীরা,এমনই অভিযোগ। আহত তৃণমূল নেতাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে খবর। তবে কি কারণে এই ঘটনা ঘটেছে তা এখনও স্পষ্ট নয়।

সূত্র : কলকাতা২৪x৭

আর/০৮:১৪/১০ নভেম্বর



[ad_2]

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::