শিরোনাম ::
উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ! বান্দরবানের দুর্গম অঞ্চলে ঝরে পড়া শিশুদের জন্য উদ্বোধন শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের বান্দরবান দুই শতাধিক প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উখিয়ায় পালস’র উদ্যোগে বিশ্ব শান্তি দিবস পালিত সীমান্তে গুলির শব্দ থামছে না উখিয়ায় প্রশাসনের অভিযানে ৩টি ড্রেজার মেশিন ও ২টি বন্দুকসহ অস্ত্র উদ্ধার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আবারো খুন মুক্তি কক্সবাজার-এর উদ্যোগে ব্যবসায়ী ও উপকারভোগীদের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত পালস-এর উদ্যোগে “বর্ণবাদ-শান্তি ও সম্প্রীতির অন্তরায়” বিষয়ক বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:১২ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের প্রতি বাঁকেই দোকান

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: শুক্রবার, ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২২

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকা উখিয়া টেকনাফ সড়কের বাঁকে বাঁকে শ শ অপরিকল্পিত দোকান গড়ে তোলা হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে এ ধরনের দোকানের সংখ্যা অনেক বেড়ে যাওয়ায় ঘটছে দুর্ঘটনা, বাড়ছে যানজট।

এসব দোকানে মাদকদ্রব্য বেচাকেনার অভিযোগে ইতিপূর্বে সড়ক ও জনপদ বিভাগ পুলিশ প্রশাসনের সহায়তায় অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদ করে। কিন্তু উচ্ছেদের পর কয়েক দিনের ব্যবধানে আবার দোকান বসে যায়। এলাকার সাবেক মেম্বার মৌলভী গফুর উল্লাহ জানান, সড়কের উভয়পাশে এভাবে দোকানপাট বসায় কক্সবাজার টেকনাফ সড়কে প্রায়ই যানজট লেগে যায়। উখিয়া সদরের ১ কিলোমিটার মহুরীপাড়া থেকে পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী পর্যন্ত শ শ অবৈধ দোকান বসানো হয়েছে। সড়ক ও জনপদ বিভাগের জায়গা দখল করে গড়ে তোলা এসব দোকানের ছবি ধারণ করতে গেলে ১০-১২ জন রোহিঙ্গা তেড়ে আসে। তাদের দাবি ছবি তুলে পত্রিকান্তরে প্রকাশিত হলে প্রশাসন তাদের দোকানগুলো উচ্ছেদ করবে; তাই এ দোকানের ছবি তুলতে দেওয়া হবে না। অবশ্য পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ছবি ধারণ করা হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষক বিপিন বড়ুয়া অভিযোগ করে জানান, অধিকাংশ দোকানের মালিক রোহিঙ্গা নাগরিক। মানবাধিকার কর্মী বেলাল খান অভিযোগ করে বলেন, বন বিভাগ সংলগ্ন সড়ক দখল করে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা দোকানে রাতের বেলায় মাদক বেচাকেনা হয়।

উখিয়া বন রেঞ্জ কর্মকর্তা গাজী মো. শফিউল আলম জানান, অল্পসংখ্যক লোকবল নিয়ে বিশাল জনগোষ্ঠীর দখলদারিত্ব ঠেকানো অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। তথাপিও অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযানে জন্য ঊর্ধ্বতন কতৃ‌র্পক্ষের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে। কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পেলে শিগ্গিরই উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে।

কক্সবাজার সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী খন্দকার গোলাম মোস্তফা জানান, ইতিমধ্যে সড়কের পাশে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা দোকানপাট চিহ্নিত করা হয়েছে। সড়ক সম্প্রসারণ ও যানজট নিরসনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান চালানো হবে।


আরো খবর: