তারিখ: মঙ্গলবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

সারাদেশের ন্যায় কক্সবাজার জেলায়ও ২০১৮ সালের এইসএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে।যেখানে সারাদেশে পাশের পার ৬৬.৬৪ শতাংশ সেখানে কক্সবাজার জেলায় পাশের পার ৬১ শতাংশ। যা গতবছরের তুলনায় ৬ শতাংশ বেড়েছে।

তবে এবার জিপিএ-৫ এর সংখ্যা বাড়েনি। গতবারের মত এবারও ৩৮ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।এবছর পাশের হারে বিজ্ঞানকে পেছনে ফেলেছে বাণিজ্য বিভাগ।

তবে এবছর ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা পাশ করেছে বেশি। এবছর ৬২৪৭ জন পাশ করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছেলে পাশ করেছে ২৭২৪ জন এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৮ জন।পাশের হার ৬০.১১ শতাংশ।অপরদিকে মেয়েদের পাশের সংখ্যা ৩৭০৩ জন এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ২০ জন।পাশের হার ৬২.৮৬ শতাংশ।

আর বরাবরের মত এবছরও জেলায় সর্বাধিক সাফল্য পেয়েছে কক্সবাজার সরকারী কলেজ। এ কলেজের ৯০৯ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৮৩২ জন এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩২ জন।পাশের হার ৯১.৫৩ শতাংশ।

প্রাপ্ত তথ্যমতে,২০১৮ সালে এবছর জেলায় ১০ হাজার ৪২৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৬২৪৭ জন।পাশের হার ৬১ শতাংশ। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে মাত্র ৩৮ জন শিক্ষার্থী।এর মধ্যে ৩২ জনই আবার কক্সবাজার সরকারী কলেজের। গতবছরও ছিল সমান ৩৮ জন। আর ২০১৬ সালে এর সংখ্যা ছিল ৬৬ জন।

২০১৭ সালে জেলায় মোট পরীক্ষার্থী সংখ্যা ছিল ৮ হাজার ৯০৩ জন।এর মধ্যে পরীক্ষায় পাস করেছিল ৪ হাজার ৯শ ২৫জন।পাশের হার ছিল ৫৫.৩২ শতাংশ।আর জিপিএ-৫ পেয়েছিল সমান ৩৮ জন।

১৯ জুলাই চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড থেকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের কাছে পাঠানো ফলাফল বিবরণীতে জানা যায়, এবছর বিজ্ঞান বিভাগ থেকে মোট পাশ করেছে ৮৯৭ জন এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৪ জন।পাশের হার ৭০.৯৭%।গতবছর যেখানে পাস করেছিল ৭৯০ জন। পাশের হার ছিল ৭৫.৮২ শতাংশ।আর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ২৫ জন।

এবছর মানবিক বিভাগের পাশ করেছে ৩ হাজার ৭৯ জন এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে মাত্র ৫ জন। পাশের হার ৫৩.৭৩%। যেখানে গতবছর মানবিক বিভাগের পাশ করেছিল ২২১৫ জন।পাশের হার ছিল ৪৬.৪২ শতাংশ এবং জিপিএ-৫ পেয়েছিল মাত্র ২ জন।

এবছর বাণিজ্য বিভাগে পাস করেছে ২হাজার ৪শ ৫১জন। এ বিভাগে সর্বোচ্চ পাসের হার ৭১.৪৮ শতাংশ।। জিপিএ-৫ পেয়েছে মাত্র ৯ জন। গতবছর বাণিজ্য বিভাগে পাস করেছিল ১হাজার ৯শ ২০জন আর পাসের হার ছিল ৬২.১৬ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ১১ জন।

সার্বিকভাবে কক্সবাজারে পাসের হার গতবছরের তুলনায় কিছুটা বাড়লেও এবং জিপিএ-৫ এর সংখ্যা বাড়েনি। তবে এবার মেয়েদের পাশের হার বৃদ্ধির পাশাপাশি বানিজ্যে সাফল্য এসেছে সর্বোচ্চ।যদিওবা জিপিএ-৫ এর সংখ্যা আবার কমেছে।

প্রসঙ্গত চলতি বছরের ২ এপ্রিল উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। কক্সবাজার জেলায় এবার ৩০টি কেন্দ্রে সর্বমোট ১৪ হাজার ২৫৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে মাদ্রাসা ও কারিগরী পরীক্ষার্থী ছিল ৩ হাজার ৩৫২ জন।

আপনার মতামত প্রদান করুন ::